মিষ্টির দোকান

বাঙ্গালীর মিষ্টান্ন প্রীতি চিরন্তন। মিষ্টি ছাড়া কি কোন নিমন্ত্রণ সম্পূ্র্ণ হয়? মিষ্টি হলো চিনির বা গুড়ের রসে ভেজানো ময়দার গোলা কিংবা দুধ- চিনি মিশিয়ে তৈরি বিভিন্ন আকৃতির ছানার/ময়দার টুকরো করা খাবার। বাঙ্গালির খাওয়া-দাওয়ায় মিষ্টি একটি অতি জনপ্রিয় উপকরণ। মিষ্টি হলো বাঙ্গালীর অবিচ্ছিন্ন সাথী। ধর্মীয় কিংবা বাঙ্গালীদের বিভিন্ন উত্সবে মিস্টি কেনার হিড়িক পড়ে যায়। তাছাড়া বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল বের হওয়ার সাথে সাথে ঢাকার মিষ্টির দোকানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় জমে যায়। দোকানীরাও এসময় মিষ্টির দাম স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি দামে বিক্রয়ের সুযোগ নেয়। বাংলাদেশে মিষ্টিকে পণ্য করে গড়ে ঊঠেছে অগণিত নামী-দামী মিষ্টি-বিক্রয়কেন্দ্র। সেই আদিযুগের লাড্ডু থেকে শুরু করে সন্দেশ, কালোজাম পেরিয়ে আজ মিষ্টির প্রকারভেদ শিল্পের পর্যায়ে চলে গেছে। বিভিন্ন রকমের মিষ্টি স্বাদ, আকারে এমনকি নামকরণে ভিন্নতা নিয়ে জনপ্রিয়। মিস্টির আরেক নাম ‘ডেজার্ট’। রসগোল্লা, পানতোয়া, রসমালাই, দই, কেক, পুডিং, পাই, আইসক্রিম- সবই ডেজার্ট।

 

মিস্টির নামের বৈচিত্রতা

রসগোল্লা, রাজভোগ, কালোজাম, চমচম, রসমালাই, সন্দেশ, ছানামূখী, মন্ডা, বরফি, আমৃত্তি, আফলাতুন, বাদামী লাড্ডু, বালুসাই, বুন্দিয়া, ক্রীমজাম, দধি, গাজর সন্দেশ, গুড় সন্দেশ, কাঁচাগোল্লা, কাঁচা সন্দেশ, কদম লাড্ডু, কাঁটারি ভোগ, ক্ষীর কদম, ক্ষীর চমচম, ক্ষীর টোষ্ট, লালমোহন, মালাইকারী, মনসুর, মতি লাড্ডু, স্পঞ্জ রসগোল্লা, জিলাপী, জর্দার গুটি, দুধের স্বর, মালাইচপ, ডায়া ভোগসাগর, ডায়া কাচ্চা ছানা, স্যূইট পার্সিয়া, রেগুলার ভোগ সাগর, নবরত্ন হালুয়া, মাওয়া লাড্ডু, মতিচুর লাড্ডু, জাফরান মিষ্টি, পুতুল সন্দেশ, চকোলেট সন্দেশ, ফ্রুট জ্যাম, স্যান্ডুইচ সন্দেশ, নকশি সন্দেশ, রসকদম্ব, কাঁচা ছানা, ক্ষীরসা ভোগ, গোপাল ভোগ, রাজভোগ, ডিমভোগ, গুড়ো মিস্টি, প্রানভোগ, মৌচাক, ছাপ সন্দেশ, প্যাড়া সন্দেশ, ইরানী ভোগ ইত্যাদি।

 

ঢাকায় প্রচলিত বিখ্যাত কয়েকটি মিষ্টির নাম

টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচম, নাটোরের কাঁচাগোল্লা, কুমিল্লার রসমালাই, বিক্রমপুর ও কলাপাড়ার রসগোল্লা, বগুড়া (মূলত শেরপুর) ও গৌরনদীর দই, যশোরের খেজুরগুড়ের সন্দেশ, শাহজাদপুরের রাঘবসাই, মুক্তাগাছার মণ্ডা, খুলনা ও মুন্সিগঞ্জের আমৃতি, কিশোরগঞ্জ-নেত্রকোনার বালিশ মিষ্টি, নওগাঁর  প্যারা সন্দেশ, ময়মনসিংহের আমিরতি, যশোরের জামতলার মিষ্টি, যশোরের খেজুরের নোলন গুড়ের প্যারা সন্দেশ, যশোরের খেজুর রসের ভিজা পিঠা, মাদারীপুরের রসগোল্লাতো, রাজশাহীর তিলের খাজা, সিরাজদিখানের পাতক্ষীরা, রাজবাড়ির শংকরের ক্ষীরের চমচম, নওগাঁর রসমালাই, পাবনার প্যারাডাইসের প্যারা সন্দেশ, পাবনার শ্যামলের দই, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের পানিতোয়া, কুষ্টিয়ায় মহিষের দুধের দই, মেহেরপুরের সাবিত্রী নামে একটা মিষ্টান্ন, কুষ্টিয়ার তিলের খাজা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছানামুখি, মানিকপুর-- চকরিয়ার মহিষের দই, ইকবালের সন্দেশ(দেওয়ান বাজার), বোম্বাইয়াওয়ালার ক্ষীর(এনায়েত বাজার), মহাস্থানের কটকটি, গাইবান্ধার রসমঞ্জুরি, কুষ্টিয়ার স্পেশাল চমচম, ঢাকার বংগবন্ধু আভিনিউ এর পূর্ণিমার জিলাপী, গুলশান এর সমরখন্দ এর রেশমী জিলাপী, মহেশখালীর মোষের দই, রাজশাহীর রসকদম, চাপাই নবাব গঞ্জের শিবগঞ্জের চমচম, শিবগঞ্জের (চাঁপাই নবাবগঞ্জ) চমচম, পায়ড়া সন্দেশ এবং কিশোরগঞ্জের তালরসের পিঠা ( চিনির শিরায় ভেজানো)। এছাড়া ঢাকার মিষ্টির দোকানগুলো ইদানিং তাদের পরিবেশিত খাদ্যপণ্যে যুক্ত করেছে ফাস্টফুডসহ হরেকরকম স্বাদের পেষ্ট্রি পন্য। বিশেষ করে পাউরুটি, দুধকাচ্চা, রোস বিস্কিট, নানা স্বাদের কেক এবং ড্রাইকেকের জন্য মানুষ তার বেকারী প্রতিষ্ঠান নির্দিষ্ট করে নিয়েছে। সবচেয়ে অধিক বিক্রিত পণ্য বিভিন্ন মাপ, ওজন এবং স্বাদের পাউরুটি, কেক, ড্যানিশ এবং কেক। বেকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে বাটারবোন, ক্রীমরোল, ক্রীমবোন, টোস্ট, ঢালাই বিস্কুট, ওভালটিন, বাটার সল্ট, কোকোনাট, দুধকাচ্চা, সল্টেজ, কুকিজসহ নানা ধরনের বিস্কুট পাওয়া যায়। এর বাইরে ফ্রুটকেক, ওভালটিন কেক এবং জন্মদিনের কেক ও বার্গার, ভেজিটেবল রোল, টানা পরোটা, পিৎজা, সমুচা, শিঙ্গাড়া, পেটিস, স্যান্ডউইচ ইত্যাদি পাওয়া যায়। ড্যানিশ, জেলি কেক, মধুবন প্রভৃতি পেস্ট্রি আইটেমও পাওয়া যায়। এছাড়া সুজি, ছোলা-বুট, গাজর, ময়দা, পেঁপে, মিষ্টিকুমড়া, চালকুমড়ার হালুয়াসহ অনেক পদের হালুয়া তৈরি করা হয়।

উল্লেখযোগ্য কয়েকটি মিষ্টির দোকান

রস বহুমূখী ফার্ম লিমিটেড

মৌচাক শাখা

গোল্ডেন প্লাজা (মৌচাক জনতা ব্যাংকের নিচতলা)

৯৫ সিদ্ধেশ্বরী সার্কুলার রোড (নিচ তলা)

মোবাইল: ০১৯৭৭৫৫৪৪২২, ০১৭১১৬৬৬২৭৮

বনফুল এন্ড কোং

৭২/২ চক সার্কুলার রোড, চক বাজার, ঢাকা।

ফোন: ৭৩৪৩৪৬০।

প্রমিন্যান্ট সুইটস

বাড়ি: ১৫৩/ই, সড়ক: ১১, বনানী, ঢাকা-১২১৭। ফোন: ৯৩৫৪৪৮৪

এক্সক্লুসিভ সুইটস

মোল্লা ম্যানসন,

ক-১১/৪, জগন্নাথপুর, বসুন্ধরা রোড, ঢাকা।

ফোন: ০১৭৩২-৬৭৮৩৫০

রসমেলা

৫০ কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ, বনানী, ঢাকা-১২১৩।

ফোন: ৮৮১৩১০৬

একুশে সুইটস

বাড়ি: ১১, সড়ক: ৭/ডি, সেক্টর: ৯, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা-১২৩০।

ফোন:৮৯২২০৫৬,

০১৭৩২-৪২৪১৩৫

জয়পুর সুইটস

বাড়ি: ৯৩/বি, সড়ক: ১৬ (নতুন), ২৭ (পুরাতন), ধানমন্ডি, ঢাকা।

মোবাইল: ০১৮১৯-১৪৫২১৮

রসিক লাল মিষ্টান্ন ভান্ডার

১০৫৯ মালিবাগ বাজার রোড, ঢাকা-১২১৭। মোবাইল: ০১৭১১-৯৩৮১৩৬

মেসার্স সালাম ডেইরী ফার্ম

বাড়ি: ৭৫, ব্লক: কে, বনশ্রী, ঢাকা। ফোন: ৭৮১১০৭৪

ভাগ্যকূল মিষ্টান্ন ভান্ডার

৬৭ লেক সার্কাস, কলাবাগান

ঢাকা।

মরন চাঁন মিষ্টান্ন ভান্ডার

৯৮/বি, ডিআইটি রোড, মালিবাগ চৌধুরীপাড়া, ঢাকা-১২১৯। ফোন: ০১৯২১-৪৮৯০৭১

মধুবন

১৫২/১/এইচ, গ্রীণ রোড, ঢাকা। ফোন: ৮১৫৮০৫২

আম্বালা সুইটমিট

আম্বালা ইন শপ, বাড়ি: ৩৯, সড়ক: ০২, ধানমন্ডি, ঢাকা। ফোন: ৮৬১৯৩৭৩, ৮৬১০৫০২

প্রিমিয়াম সুইটস বাই সেন্ট্রাল

মমতাজ প্লাজা (নিচ তলা)

বাড়ি: ০৪, সড়ক: ০৪, ধানমন্ডি, ঢাকা।

ফোন: ৮৬২২৩৪০

আলীবাবা সুইটস

জিপি-চ ১০৪/২, প্রগতি স্বরনি, উত্তর বাড্ডা, ঢাকা ১২১২।

কোয়ালিটি সুইটস এন্ড বেকারী

১১৫/২৩ ফকিরাপুল, ইনার সার্কুলার রোড, ঢাকা ১০০০। ফোন: ৭১৯২৭৮৫

মোঘল সুইটস

৫৯ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, ফার্মগেট, ঢাকা-১২১৫। ফোন: ৯১১৮৩১৫

পুষ্টি ডেইরী ফার্ম

রোড নং ৪, বাড়ি নং ২, ব্লক ডি, বনশ্রী, ঢাকা।

মোবাইল: ০১৭১৬-৭৫৩২৪৫, ০১৭১৯-৪৬১৪৪৬

 

ডেকোরেশন এবং গ্রাহক সুবিধা

ঢাকার আধুনিকতা বৃদ্ধির সাথে সাথে মিষ্টির দোকানগুলো হয়ে উঠেছে আধুনিক, নিজেদের অলংকৃত করেছে বিভিন্ন ডেকোরেশন দিয়ে। বিশেষ করে ধানমন্ডি, গুলশান, বনানী, বারিধারা, উত্তরা ইত্যাদি অভিজাত এলাকার বেকারী প্রতিষ্ঠানগুলো দেখলে এদের বাহ্যিক সোন্দর্য্য নজর কাড়ে। ইন্টেরিয়র ডেকোরেশনও মনোরম। এখন মিষ্টির দোকানগুলো এসি ছাড়া কল্পনা করা যায় না। নিজস্ব জেনারেটর থাকায় লোডশেডিং সমস্যা পোহাতে হয়না। মিষ্টি তৈরীর নিজস্ব কারখানাগুলোও শোরুম থেকে দুরে নয়। কিছু মিষ্টি তৈরীর প্রতিষ্ঠানের নিজেদের  নিজস্ব শাখাগুলোতে তৈরী মিষ্টি সরবরাহ করে থাকে। এছাড়া অন্যান্য মিষ্টি তৈরীর প্রতিষ্ঠানগুলোর তৈরী মিষ্টি পণ্যসমূহ নিজস্ব শাখায় সরবরাহসহ অন্যান্য মিষ্টির দোকানসমূহে সরবরাহ করে থাকে। মিষ্টি পণ্য পরিবরহনে ব্যবহার করা হয় রিক্সা ভ্যান এবং কভার্ড ভ্যান। বর্তমান অনেক মিষ্টি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হোম ডেলিভারী সার্ভিস দিয়ে থাকে। মিষ্টি তৈরীর প্রতিষ্ঠান তাদের খাদ্যপণ্যের প্রচার প্রসারে টেলিভিশন এবং পত্রিকা-ম্যাগাজিনগুলোতে নিয়মিত বিজ্ঞাপন প্রকাশ করে থাকে। তাছাড়া মিষ্টি তৈরীর প্রতিষ্ঠানের মিষ্টির প্যাকেটের ডিজাইন আকর্ষনীয় করে ছাপানো হয়।


২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি