জমি রেজিষ্ট্রেশন

 

বাংলাদেশে জমি ক্রয়-বিক্রয় করার পর অবশ্যই তা রেজিষ্ট্রি করতে হয়। আইন ও বিচার মন্ত্রণালয়ের সরাসরী তদারকীতে প্রত্যেক উপজেলার সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের সাব রেজিষ্ট্রার জমির ক্রেতা ও বিক্রেতার উপস্থিতিতে বিভিন্ন শর্তাবলীর উপর ভিত্তি করে জমি রেজিষ্ট্রেশন/নিবন্ধন করিয়ে থাকেন।

 

রেজিষ্ট্রেশনে প্রয়োজন

জমির নতুন দলিল, খতিয়ান, খারিজের কাগজ (যদি থাকে), জমির মূল্য, সাক্ষী, নকশা, সীমানা প্রাচীরের বর্ণনা ও বিক্রেতার অনাপত্তিতে জমি রেজিষ্ট্রেশন করে থাকেন রেজিষ্ট্রার। এছাড়া জমির মোট মূল্যের ২০% হস্তান্তর কর সরকারকে প্রদান করতে হয়। জমি রেজিষ্ট্রেশন/নিবন্ধনের পর স্থানীয় আয়কর কার্যালয়ে চিঠি মারফত অবগত করা হয়।

 

খাজনার প্রকারভেদ

বাংলাদেশের জমিগুলোকে দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। কৃষি ও অকৃষি জমি। কৃষি জমির ক্ষেত্রে ৮.২৫ একর পর্যন্ত জমির কোন প্রকার কর/খাজনা দিতে হয় না। তবে ৮.২৫ একরের বেশী ও ১০ একরের বেশী যেকোন পরিমাণ জমির জন্য ১০ টাকা হারে প্রত্যেক ডেসিমেল এর জন্য কর/খাজনা দিতে হয়।

ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, চট্টগ্রাম ও গাজীপুর জেলার অকৃষি জমির প্রত্যেক ডেসিমেল জমির বাৎসরিক খাজনা ২২ টাকা। অন্যান্য জেলা শহরে প্রত্যেক ডেসিমেল জমির বাৎসরিক খাজনা ২২ টাকা, পৌরসভায় ১৭ টাকা এবং অন্যান্য এলাকা ১৫ টাকা।


২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি