শেষকৃত্য

অবশ্যম্ভাবী মৃত্যুর স্বাদ পেতে হয় প্রতিটি মানুষকে। জন্মের মধ্য দিয়ে যে জীবনের শুরু, মৃত্যু দিয়ে  সে জীবনের ঘটে অবসান। মৃত্যু তাই তুচ্ছ বিষয় নয়। বরং জন্মের মতোই মর্যাদা দাবী করে। মানুষের জন্ম যেমন সামাজিকভাবে অনেক মুখরতা, আনুষ্ঠানিকতা দাবী করে, মৃত্যু ও ঠিক তাই। মৃত্যুর পর আনষ্ঠানিকভাবে যে সকল সৎকর্ম সম্পাদন করতে হয়। সেগুলোই মূলতঃ শেষকৃত্য।

মানুষের শেষকৃত্য মূলতঃ জীবিত অবস্থায় সে যে ধর্মের অনুসারী ছিল, সেই ধর্ম অনুসারেই সম্পাদিত হয়। এজন্য ধর্ম অনুসারে মানুষের শেষকৃত্যের ধরনও আলাদা। শুধু ধর্মই নয়, বর্ন, গোত্র, এলাকেভেদে শেষকৃত্যের ধরনও আলাদা হয়ে থাকে।

মারা যাওয়ার পর প্রথমে শবদেহের প্রতি শেষ বিদায়ী কর্ম পালন করা হয়। তারপর ধর্মীয় রীতি অনুসারে দাহ করা বা কবর দেয়ার পর কিছু আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হয়। এ সকল কাচের সামস্টিক রূপই শেষকৃত্য।

মৃত্যু বলে কয়ে আসে না। জন্মের সাথে মৃত্যুর পার্থক্যটাই এখানে। জন্মের দশ মাস আগেই জন্মের খবর জানা যায়। কিন্তু অবশ্যম্ভাবী মৃত্যু আসে হঠাৎ করে। তাই জন্মের জন্য যেমন পূর্ব-প্রস্তুতি থাকে, মৃত্যুর জন্য তেমন পূর্ব প্রস্তুতি থাকেনা। তাছাড়া মৃত ব্যাক্তির আকস্মিক মৃত্যুতে শোক বিহবল হতভম্ব  আত্বীয়-স্বজনের শোকের দরুন অনেক ক্ষেত্রেই শবদাহের প্রতি ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা করতে বিলম্ব করে ফেলে। কিংবা স্বল্প সময়ে শেষকৃত্যের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরন কোথা থেকে সংগ্রহ করা হবে সে ব্যাপারে দুঃশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়ে পড়ে। শেষ কৃত্যের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরন সমূহের জন্য আলাদা দোকান রয়েছে। সেক্ষেত্রে, শেষ কৃত্যের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরন কোথায় পাওয়া যায়। কিভাবে সেসব সংগ্রহ করতে হয় তা জানা একান্ত জরুরী। এটা শেষ কৃত্যেরই একটা অংশ।

আবার, শবদাহের জন্য কিংবা সমাধির জন্য শ্মশান ঘাটের এবং কবর দেয়ার জন্য কবরস্থানের যাবতীয় তথ্য জানা দরকার। যেহেতু সার্বজনীন শ্মশান ঘাট কিংবা কবরস্থান কোন ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়, সেহেতু সেসব জায়গায় শেষ কৃত্যের জন্য কোথায় এবং কার নিকট যোগাযোগ করতে হবে। সব কিছুই জানা থাকা দরকার এবং এগুলোও শেষ কৃত্যের একটা অংশ।

এছাড়া বেওয়ারিশ লাশের সৎকারের জন্য কোথায় যোগাযোগ করতে হবে। এটাও শেষ কৃত্যেরই একটা  অংশ। কেননা, লাশ বেওয়ারিশ হলেও মানুষের মৃতদেহ হিসেবে মর্যাদার সহিত সৎকর্ম পাওয়ার অধিকার লাশের রয়েছে।

জন্মের যেমন রয়েছে সুন্দর আয়োজনের, মৃত্যুর পর শেষকৃত্যেরও তেমনি সুসম্পন্ন হোক সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে। সুষ্ঠু শেষকৃত্যের মাধ্যমে তৃপ্ত হোক মৃত ব্যক্তির আত্মা।


২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি