পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

লালপ্যাথ ল্যাব এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার

১৯৪৯ সালে ভারতের সেনাবাহিনী এবং যুক্তরাষ্ট্রের  শিকাগো  কাউন্টি হাসপাতাল থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বিশেষজ্ঞ ডা: এস কে লাল ‘লাল প্যাথ ল্যাব’ প্রতিষ্ঠা করেন। ভারত জুড়ে সফল কার্যক্রম পরিচালনার ধারাবাহিকতায় ২০১০ সালে ‘লাল প্যাথ ল্যাব’ বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম শুরু করে। বেশ বড় জায়গা নিয়ে লাল প্যাথের ঢাকা অফিসটির অবস্থান।

 

অবস্থান ঠিকানা

গ্রীন রোডে বনফুল ও মুসলিম সুইটস এর পেছনে এবং বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিপরীতে  ঢাকা শাখার অবস্থান।

১৪৬/৩, গ্রীন রোড, ঢাকা- ১২০৫।

ফোন- ৯১১৫৭২১, ৯১০২৩৫৩

ই-মেইল- [email protected]

ওয়েব- www.lalpathlabs.com

 

সময়সূচী:

প্রতিদিন সকাল ৯ থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত এটি খোলা থাকে, কোন সাপ্তাহিক বন্ধ নেই।

 

বিভিন্ন টেষ্টের নাম খরচ

এখানে প্রায় ৩০০ প্রকার রোগের টেষ্ট করা হয়। বাংলাদেশে করার সুযোগ নেই এমন টেস্টের ক্ষেত্রে ভারতে নমুনা পাঠানো হয়। তবে সেক্ষেত্রে রোগীকে টেষ্ট এর সমস্ত ব্যায়ভার বহন করতে হয়। এখানে করা টেস্টগুলোর মধ্যে আছে: ব্লাড টেষ্ট, ইউরিন টেষ্ট, এক্স-রে, সি.বি.সি, লিভার টেষ্ট,কালচার টেষ্ট, কফ টেষ্ট, মল-মূত্র টেষ্ট, কিডনী ফাংশন টেষ্ট ইত্যাদি।

 

নিম্নে বিভিন্ন টেষ্টের খরচ উল্লেখ করা হল-

টেষ্টের নাম

টেষ্টের খরচ

রক্তের হিমোগ্লোবিন

৩০০ টাকা

ইউরিন

২০০ টাকা

আলট্রাসনোগ্রাম

৪০০ টাকা

এক্স-রে

২৫০ টাকা

 

আলট্রাসনোগ্রাম

যেহেতু আলট্রাসনোগ্রাম স্বয়ং চিকিৎসককেই করতে হয় সেহেতু তাঁর দেয়া সময় অনুযায়ী টেস্ট করা হয়।  সাধারণত আল্ট্রাসনোগ্রাম করাতে ৩০ মিনিট সময় লাগে। টেস্ট করাতে এসে রোগীকে তেমন একটা অপেক্ষা করতে হয় না। আলট্রাসনোগ্রামে 3D মেশিন ব্যবহার করা হয়।

 

সুবিধাদি:

টেষ্ট করানোর জন্য পুরুষ ও মহিলাদের জন্য আলাদা ও আলাদা সহকারী আছেন। অত্যন্ত কঠোরভাবে সিরিয়াল মেনে পরীক্ষা করা হয়। টেষ্ট রুম গুলোর সামনে দাঁড়ানোর সুযোগ নেই। ওয়েটিংরুমে বসতে হয়। ওয়েটিং রুমে একসাথে প্রায় ৩০ জন বসতে পারেন। প্লাস্টিকের চেয়ার রয়েছে বসার জন্য। গুরুতর অসুস্থ রোগীদের জন্য ট্রলির ব্যবস্থা নেই, তবে হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা আছে।

 

স্বয়ংক্রিয় মেশিনে রক্ত ও ইউরিন টেষ্ট করা হয়। রক্ত সংগ্রহের পর সিরিঞ্জ ধ্বংস করে ফেলা হয়। নিজ উদ্যোগে টেষ্ট করারনোর সুযোগ নেই। টেষ্টের জন্য সার্বক্ষণিক ডাক্তার থাকেন।

 

টাকা জমাদান ও রিপোর্ট প্রদানের জন্য একটি কাউন্টার আছে। এটির অবস্থান সেন্টারে প্রবেশ গেইটের হাতের বামপাশে। ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে টাকা জমা দেবার সুযোগ নেই। সাধারনত একদিন পর রিপোর্ট দেয়া হয়। রিপোর্ট সংগ্রহের সময় মানি রিসিট সঙ্গে আনতে হয়।

 

রক্তের শর্করা পরীক্ষার জন্য রোগীকে গ্লুকোজ দেয়া হয়। আবার রোগী নিজেও গ্লুকোজ নিয়ে আসতে পারেন।

বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা আছে, তবে ডিস্পোজেবল গ্লাস নেই। একই গ্লাসে সবাইকে পানি পান করতে হয়।

 

অন্যান্য তথ্য:

  • হাসপাতালের নীচ তলায় পুরুষ ও মহিলাদের জন্য আলাদা টয়লেটের ব্যবস্থা রয়েছে। 
  • শুধু রুমগুলো শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।
  • নিজস্ব জেনারেটর রয়েছে। তবে জেনারেটরে এসি চালানো হয় না।
  • অগ্নি নির্বাপণের জন্য অগ্নিনির্বাপক গ্যাস সিলিন্ডার রয়েছে।
  • এই ডায়গনস্টিক সেন্টারে কয়েকজন চিকিৎকের চেম্বার আছে। শিশু বিশেষজ্ঞ, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ, হেমাটোলজিষ্টরা বসেন এখানে।

এটিএম বুথ

ডায়াগনস্টিক সেন্টারটির কাছেই ডাচ্ বাংলা ব্যাংক এর একটি এটিএম বুথ রয়েছে।

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
ল্যাব এইড (গুলশান)গুলশান, গুলশান ২
ল্যাবএইড ডায়াগনস্টিক, উত্তরা উত্তরা, সেক্টর ০৬
ল্যাব এইড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারসূত্রাপুর, ধোলাইখাল
ল্যাব এইড ডায়গানস্টি সেন্টার, ধানমন্ডিN\A, N\A
পপুলার ডায়াগনষ্টিক সেন্টার ধানমন্ডি, ধানমন্ডি
পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টার লি: (উত্তরা )উত্তরা, সেক্টর ৪
ইবনে সিনা ডায়াগনষ্টিক সেন্টারধানমন্ডি, ধানমন্ডি
উত্তরা ক্রিসেন্ট ডায়াগনস্টিক এন্ড কনসালটেশন সেন্টার উত্তরা, সেক্টর ০৭
মডার্ন ডায়গনষ্টিক সেন্টার, ধানমন্ডি ৮মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডি
রাফা মেডিকেল সার্ভিসেসগুলশান, মহাখালী
আরও ১৪ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি