সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল

 

রুট ভিত্তিক লঞ্চগুলো

 

গুলিস্থান থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার দক্ষিনে আহসান মঞ্জিলের পূর্ব পাশে বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল অবস্থিত। আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু ১৯৬৬ সালে। টার্মিনালটি কোতোয়ালী থানার অন্তর্গত। টার্মিনাল ভবনের আয়তন ৪৫০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৫০ ফুট প্রস্থ। এটি পশ্চিমে বাদামতলী বাজার ও পূর্বে শ্যামপুর বাজার পর্যন্ত বিস্তৃত। এই টার্মিনাল দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৭০,০০০ জন যাত্রী ঢাকার বাইরে বিভিন্ন অঞ্চলে বা গন্তব্যে যাতায়াত করেন। প্রতিদিন এখান থেকে গড়ে ১১০টি লঞ্চ ছেড়ে যায় এবং সমপরিমান লঞ্চ টার্মিনালে প্রবেশ করে।

 

যাতায়াত

গুলিস্থান গোলাপ শাহ্ মাজার থেকে সদর ঘাটগামী বাসে ৫ টাকা, যাত্রাবাড়ী থেকে রাজধানী পরিবহনে ১০ টাকা এবং পোস্তাগোলা থেকে ১০ টাকা ভাড়ার বিনিময়ে খোলা জীপে আসা যায় সদরঘাট। এছাড়া গুলিস্থানের গোলাপশাহ মাজারের নিকট থেকে ঘোড়ার গাড়ী এবং রিক্সায় করে সরাসরি সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যাওয়া যায়।  

 

টার্মিনালে প্রবেশ পদ্ধতি

টার্মিনালে প্রবেশ সাধারনের জন্য উম্মুক্ত নয়। এখানে প্রবেশ করতে ৪ টাকা ফি প্রদান করতে হয়। তবে শিক্ষার্থীদের টিকেটের প্রয়োজন হয় না। টার্মিনালের প্রত্যেক গেটেই টিকেট কাউন্টার রয়েছে।

 

অপেক্ষমান কক্ষ

এই টার্মিনালে মোট চারটি ওয়েটিং রুম বা অপেক্ষমান কক্ষ রয়েছে। এর মধ্যে একটি ভিআইপি ও বাকী তিনটি সাধারণ মানের। ভিআইপি গেটের ডান পাশেই ভিআইপি ওয়েটিং রুম অবস্থিত। এটিতে  বাথরুমের ব্যবস্থা আছে। সাধারণ ৩ টি ওয়েটিং রুমের মধ্যে ২নং গেটে বাম ও ডান পাশে ২টি এবং ৩নং গেটের ডান পাশে ১টি ওয়েটিং রুম অবস্থিত। এইগুলোতে বসার চেয়ার ও আরামের জন্য ফ্যান রয়েছে। তবে এখানে কোন বাথরুম নাই।

 

লঞ্চের টিকিট ব্যবস্থা

এই লঞ্চ টার্মিনালে কোন টিকেট কাউন্টার নেই। যে লঞ্ঝ যাত্রা করবে সেই লঞ্চ থেকে টিকিট কাটতে হয়। তবে অগ্রিম টিকিট  করতে হলে কাঙ্খিত লঞ্ঝ থেকে টিকিট কাটতে হবে। এই অগ্রীম কাটা টিকিট বাতিল করতে চাইলে কমপক্ষে দুই দিন আগে নির্দিষ্ট লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। মালামাল পরিবহনের ক্ষেত্রে এর ওজন ও আকৃতির উপর ভাড়া নির্ধারিত হয়। ১০০ কেজি ওজনের জন্য মালামালের জন্য একটি সিটের সমপরিমান ভাড়া দিতে হয়। তবে দামাদামি করলে কিছুটা কম হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

 

সরকারী স্টীমার সার্ভিস

সরকারী উদ্যোগে বেশিরভাগ স্টীমার সার্ভিস পরিচালিত হয়। ১৩ নং পল্টুন থেকে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের উদ্দেশ্যে স্টীমারগুলো ছেড়ে যায়। স্টীমার সার্ভিসের রুট ও ভাড়ার হার নিম্নরূপ:

দুরত্ব

প্রথম শ্রেনীর ভাড়া

দ্বিতীয় শ্রেনীর ভাড়া

সুলভ শ্রেনীর ভাড়া

ঢাকা থেকে চাঁদপুর

২৩৫/= টাকা

১৪০/= টাকা

৫০/= টাকা

ঢাকা থেকে বরিশাল

৫৬৫/= টাকা

৩৫৫/= টাকা

৯৫/= টাকা

ঢাকা থেকে ঝালকাঠি

৬৫৫/= টাকা

৩৯০/= টাকা

১০০/= টাকা

ঢাকা থেকে কাউখালী

৭১৫/= টাকা

৪৪০/= টাকা

১০৫/= টাকা

ঢাকা থেকে হুলার হাট

৭৪৫/= টাকা

৪৫০/= টাকা

১২০/= টাকা

ঢাকা থেকে চরখালী

৭৭৫/= টাকা

৪৫০/= টাকা

১২৫/= টাকা

ঢাকা থেকে বড় মাছুয়া

৮৮০/= টাকা

৫৩০/= টাকা

১৩৫/= টাকা

ঢাকা থেকে সন্যাসী

৮৮৫/= টাকা

৫৪৫/= টাকা

১৪০/= টাকা

ঢাকা থেকে মোড়েল গঞ্জ

৮৮৫/= টাকা

৫৪৫/= টাকা

১৪০/= টাকা

ঢাকা থেকে মংলা বন্দর

১২৩০/= টাকা

৬২৫/= টাকা

১৬০/= টাকা

 

লঞ্চের রুট এবং ভাড়ার হার

এখান থেকে সর্বমোট ৪৫ টি রুটে লঞ্চ চলাচল করে। রুটগুলো হলো- ঢাকা, বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, ঝালকাঠী, মাদারীপুর, চাঁদপুর, খুলনা, মংলা বন্দর, কাউখালী, চরখালী, বড় মাছুয়া, হাতিয়া, মোড়েল গঞ্জ, লালমোহন, হুলারহাট, ভান্ডারীয়া, ইচলী, দৌলতখা, বোরহানা উদ্দিন এবং সুরেশ্বর।

প্রথম ১০০ কিঃ মিঃ এর জন্য জনপ্রতি সর্বোচ্চ যাত্রী ভাড়া প্রতি কিঃ মিঃ ১.১৮ টাকা । ১০০ কিঃ মিঃ এর অধিক দূরত্বে প্রতি কিঃ মিঃ .৮৮ টাকা। এছাড়া জন প্রতি সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা। ডেক শ্রেণীর তুলনায়  প্রথম শ্রেণীর ভাড়া ৩/৪ গুন এবং দ্বিতীয় শ্রেণীর ভাড়া দ্বিগুন বেশী হয়।

 

সঙ্গে নেওয়া সামগ্রীর তালিকা ও কুলির মজুরি

ক্রমিক নং

বিবরণ

মালামালের পরিমাণ

মজুরী হার টাকায়

বিভিন্ন ধরনের লাগেজ / ব্যাগেজ

রাস্তা থেকে লঞ্চ/ স্টিমার পর্যন্ত

অথবা লঞ্চ/স্টিমার থেকে রাস্তা পর্যন্ত পিঠে/মাথায়/হাতে বহযোগ্য।

(একজনা কুলির ক্ষেত্রে)

অনাধিক ১০ কেজি (১টি ব্যাগ)

১০/-

অনাধিক ২০ কেজি (১টি ব্যাগ)

২০/-

অনাধিক ৩০ কেজি (২টি ব্যাগ)

৩০/-

অনাধিক ৪০ কেজি (১টি ব্যাগ)

৩০/-

অনাধিক ৪০ কেজি (২টি ব্যাগ)

৪০/-

অনাধিক ৬০ কেজি (১টি ব্যাগ)

৪০/-

অনাধিক ৪০ কেজি (২টি ব্যাগ)

৫০-

স্টীল/কাঠের আলমারী

(একাধিক শ্রমিকের ক্ষেত্রে)

প্রতিটি (সর্বোচ্চ ওজন ১০০ কে,জি পর্যন্ত)

১০০/-

কাপড়ের গাইট

(একাধিক শ্রমিকের ক্ষেত্রে)

(ভ্যান বা মাথায়)

প্রতিটি (৫০ কে.জি পর্যন্ত)

৫০/-

৫০ কেজির ঊধ্বে প্রতি ২০ কেজির জন্য

১০/-

কাঠের/স্টীলের খাট সাকুল্যে

প্রতিটি

১০০/-

কাঠের /স্টীলের/বেতের টেবিল/চেয়ার

প্রতিটি

২০/-

ফ্রিজ (সকল আয়তনের)

প্রতিটি

৫০/-

টেলিভিশন (সকল ধরনের)

প্রতিটি

২০/-

হার্ডওয়্যার মালামাল/ অন্যান্য মালামাল  

  (কার্টুন/প্যাকেট/ঝুড়ি ইত্যাদি)

৫০ কে.জি পর্যন্ত প্রতিটি

৪০/-

মোটর সাইকেল

প্রতিটি

২৫/-

১০

বাইসাইকেল

প্রতিটি

২০/-

১১

সিলিং ফ্যান/টেবিল ফ্যান/ অন্যান্য তৈজস পত্র

প্রতিটি

২০/-

এছাড়া গাড়ি সহ মালামাল ৫ ও ৮ নং গেট দিয়ে সরাসরি লঞ্চ পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া যায়। ভ্যান গাড়ির ভাড়া ১০ টাকা।

 

বিশেষ সার্ভিস

বছরে দুটি ঈদে উৎসবে বিশেষ লঞ্চ ও ষ্টীমার সার্ভিস চলাচল করে। ঈদের এক সপ্তাহ আগে থেকে ঈদের তিন দিন পর পর্যন্ত এই সার্ভিস অব্যাহত থাকে।

    

তাৎক্ষনিক সাহায্য

যেকোন সমস্যায় যাত্রীগণ তাৎক্ষনিক সাহায্যের জন্য টার্মিনাল কর্তৃপক্ষের শরনাপন্ন হতে পারে। এজন্য ফোন / মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে যোগাযাগ করতে হবে।

নম্বরগুলো হলো ০২-৭১১৩৩৭২, ০১৫৫৩২০৭৬২৬ এবং ০৪৭১১১২৮০৪৫।

 

শৌচাগার

এই লঞ্চ টার্মিনালে একটি গনশৌচাগার রয়েছে। টার্মিনাল ভবনের একদম পূর্ব পাশে এটি অবস্থিত।  এই শৌচাগারে পুরুষ ও মহিলার জন্য আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে পুরুষদের জন্য ৪ টি টয়লেট, ৪টি প্রস্রাবখানা ও ২টি বেসিন রয়েছে। মহিলাদের জন্য ২টা টয়লেট, ২টা প্রস্রাবখানা ও ১টি বেসিন রয়েছে। এই শৌচাগার সম্পূর্ণ বিনা পয়সায় ব্যবহার করা যায়।

 

গাড়ি পার্কিং

এই টার্মিনালে ছোট বড় প্রায় ৫০ টির মতো গাড়ি পার্কিং করা যায়। এখানে প্রথম ২ ঘন্টায় পার্কিং করতে মোটর সাইকেল/ স্কুটার/ বেবী টেক্সী ৫ টাকা, কার/ জিপ ৮ টাকা, মাক্রোবাস ১০ টাকা, বাস/ ট্রাক- ১৫ টাকা চার্জ প্রদান করতে হয়।

২ ঘন্টার পর প্রতি ঘন্টায় উপরোক্ত হারে চার্জ প্রদান করতে হয়।

 

বিবিধ

টার্মিনাল ভবনের দ্বিতীয় তলায় জনতা ব্যাংকের শাখা,  ৩ নং গেটের সামনে পুলিশ ফাঁড়ি এবং ২ নং গেটে অস্থায়ী আনসার ক্যাম্প রয়েছে। এছাড়া ৪ নং গেটের ডান পাশে মসজিদ রয়েছে। এখানে একসাথে ৬০ থেকে ৭০ জন ব্যক্তি নামাজ আদায় করতে পারে।


২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি