পূর্ববর্তী লেখা  
পুরো লিস্ট দেখুন

এইচ এস বি সি বাংলাদেশ

 

হংকং সাংহাই ব্যাংকিং কর্পোরেশন বা এইচএসবিসি একটি বেসরকারী ব্যাংক। ব্যাংকটি আন্তর্জাতিকভাবে খুবই পরিচিত এবং বিশ্বস্ত। ঢাকা শহরে মোট ৮ (আট) টি শাখার মাধ্যমে গ্রাহকদের আন্তর্জাতিক মানের ব্যাংকিং সেবা দিচ্ছে এইচএসবিসি। এই ব্যাংকে বিভিন্ন প্রকার হিসাব রয়েছে যার মাধ্যমে গ্রাহক বিভিন্ন সুবিধা ভোগ করে থাকে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য সঞ্চয়ী হিসাবগুলো হচ্ছে –

১. টাইম ডিপোজিট

২. সেভিংস প্লাস

৩. স্মার্ট সেভার প্লান

 

টাইম ডিপোজিট এ্যাকাউন্ট

টাইম ডিপোজিট হিসাব একটি ফিক্সড ডিপোজিট (এফডিআর) একাউন্ট যা থেকে গ্রাহকেরা মাসিক হারে মুনাফা পেতে পারেন। নির্দিষ্ট হারে মুনাফা নির্ণয় করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে এইচএসবিসি – তে মনোনীত গ্রাহকের অন্য একাউন্টে জমা করে দেওয়া হয়। এটিএম কার্ডের মাধ্যমেও এই এ্যাকাউন্টের টাকা উত্তোলন করা যায়। কমপক্ষে ৫,০০,০০০ টাকা দিয়ে টাইম ডিপোজিট একাউন্ট খুলতে হয়। মেয়াদ পূর্তির আগেই বা মাস শেষ হওয়ার আগেই এ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিলে সঞ্চয়কৃত টাকার উপর অর্জিত মুনাফা বাজেয়াপ্ত হবে। সর্বোচ্চ দুই বছরের জন্য এ্যাকাউন্ট খোলা যায় এবং মেয়াদ পূর্তীর পরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে এ্যাকাউন্ট পরবর্তী সময়ের জন্য চালু থাকে।

 

সেভিংস প্লাস এ্যাকাউন্ট

সাধারণ সঞ্চয়ী হিসাবের মত ৬ মাসের পরিবর্তে সেভিংস প্লাস একাউন্টে প্রতি মাসে ইন্টারেস্ট পাওয়া যায়। এই সঞ্চয়ী হিসাব থেকে গ্রাহকগণ চেক কিংবা এটিএম – এর মাধ্যমে প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৫০,০০০ টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। সেভিংস প্লাস এ্যাকাউন্টের চেক বই ফ্রি দেওয়া হয় এবং প্রতি মাসে ষ্টেটমেন্ট দেওয়া হয়। ১৮ বছরের উর্ধ্বে যেকোন বাংলাদেশী নাগরিক এই এ্যাকাউন্ট খুলতে পারে।  

 

স্মার্ট সেভারস প্লান

এই এ্যাকাউন্টটি প্রচলিত এসডিপিএস এর মত। এখানে গ্রাহক ৫,০০০ টাকা, ৫০,০০০ টাকা, ১,০০,০০০ টাকা অথবা ৫,০০,০০০ টাকা জমা দিয়ে হিসাব চালু করতে পারেন এবং মাসিক যথাক্রমে ১,০০০ টাকা, ২,৪০০  টাকা, ৪,৭০০ টাকা অথবা ২৩,০৬২ টাকা কিস্তিতে টাকা জমা দিয়ে তিন বৎসর পর্যন্ত একাউন্ট চালু রাখতে পারেন। এই একাউন্টে ইন্টারেস্ট দেওয়া হয়। গ্রাহক চাইলে সর্বনিম্ন ৯০,০০০ টাকা থেকে শুরু করে জমাকৃত অর্থের ৯০% পর্যন্ত টাকা ব্যাংক জমাতিরিক্ত ঋণ হিসেবে নিতে পারেন। মেয়াদান্তে সম্পূর্ণ টাকা পাওয়ার জন্য গ্রাহককে নিয়মিত কিস্তি দিতে হবে।

এইচএসবিসি ব্যাংক থেকে গ্রাহকগণ বিভিন্ন ধরনের ঋণ নিতে পারেন। উল্লেখযোগ‌্য কিছু ‌ঋণের মধ্যে রয়েছে –

ক. কার লোন

খ. হোম লোন

গ. হোম ইকুইটি লোন

 

কার লোন

প্রায় সবারই একটা স্বপ্ন থাকে নিজের একটি গাড়ি থাকবে। এইচএসবিসি ব্যাংক এই স্বপ্ন পূরণে আর্থিক সহযোগীতার জন্য দিচ্ছে কার লোন। যেকোন বেতনভুক্ত চাকুরীজীবি যার মাসিক বেতন ন্যূনতম ২০,০০০ টাকা অথবা যারা কোন ব্যবসা বা পেশাদারী কাজে নিয়োজিত তাদের মাসিক আয় ন্যূনতম ৫০,০০০ টাকা হতে হবে এবং ব্যবসা বা পেশাতে কমপক্ষে দুই বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। লোন পরিশোধের জন্য ৫ থেকে ২৫ বছর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়। চাকুরীজীবিকে কোন সুপ্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠানে কমপক্ষে দুই বছর ধরে চাকুরীরত থাকতে হবে। পেশাদার বা ব্যবসায়ীদের তাদের পেশার কমপক্ষে দুই বছরে  অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। ১,০০,০০০ টাকা থেকে ২০,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত গাড়ি বাবদ ঋণ দেওয়া হয়। ব্র্যান্ড নিউ কারের ক্ষেত্রে মোট মূল্যের ৯০% পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয়। আর রিকন্ডিশন গাড়ির ক্ষেত্রে মোট মূল্যের সর্বোচ্চ ৮৫% পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয়। ঋণ পরিশোধের জন্য ১২, ২৪, ৩৬, ৪৮ এবং ৬০ মাসের মাসিক কিস্তির সুযোগ আছে। প্রতিযোগীতামূলক কম হারে হ্রাসকৃত ব্যালেন্সের উপর ইন্টারেস্ট ধরা হয়। বর্তমানে ইন্টারেস্ট রেট ১৫%।

 

হোম লোন

একটি সুন্দর ঘরের স্বপ্ন সবারই থাকে। আর স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদান করতে এইচএসবিসি নিয়ে এসেছে হোম লোন। ঘর তৈরীর জন্য কিংবা এপার্টমেন্ট ক্রয়ে এইচএসবিসি ব্যাংক হোম লোনের ব্যবস্থা করে থাকে। প্রতিযোগিতামূলক ইন্টারেস্টে ৭,৫০,০০০ টাকা থেকে ১,০০,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত হোম লোন দেওয়া হয়। গৃহ ঋণের জন্য ঋণগ্রহীতার বয়স কমপক্ষে ২৩ বছর হতে হবে। চাকুরীজীবিদের ক্ষেত্রে কোন ভাল প্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম ৪০,০০০ টাকা মাসিক বেতনে কমপক্ষে দুই বছর ধরে চাকুরীরত থাকতে হবে। আবার যারা কোন ব্যবসা বা পেশাদারী কাজে নিয়োজিত তাদের মাসিক আয় ন্যূনতম ৫০,০০০ টাকা হতে হবে এবং ব্যবসা বা পেশাতে কমপক্ষে দুই বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। লোন পরিশোধের জন্য ৫ থেকে ২৫ বছর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়। নির্মাণাধীন এপার্টমেন্টের জন্যও গৃহঋণের আবেদন করা যাবে। মাসিক ক্রমহ্রাসমান ব্যালেন্সের উপর ইন্টারেস্ট দিতে হয়।

 

হোম ইকুইটি লোন

এপার্টমেন্ট, অফিস ইত্যাদির বর্ধিতকরণ, সাজানো কিংবা বাড়ি বা দোকান তৈরী, সন্তানের শিক্ষা ব্যয়সহ বেশ কিছু খাতে হোম ইকুইটি লোন দেওয়া হয়ে থাকে। কোন ব্যক্তিগত বা নগদ জামানতের প্রয়োজন নেই। সংশ্লিষ্ট সম্পদের মোট মূল্যের ৮০% পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয়। তুলনামূলক কম হারে মাসিক ক্রমহ্রাসমান ব্যালেন্সের উপর ইন্টারেস্ট চার্জ করা হয়। ঋণ পরিশোধের জন্য সর্বোচ্চ ১০  বছর সময় পাওয়া যায়। ঋণ আবেদনকারীকে ন্যূনতম ২৩ বছর বয়সী হতে হবে এবং তার মাসিক আয় কমপক্ষে ৫০,০০০ টাকা হতে হবে।

 

এছাড়া এইচএসবিসি ব্যাংক এর বিভিন্ন সুবিধা সমূহের একটি সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেওয়া হলো –

  • চেকবই প্রথম বার ফ্রি দেওয়া হয়। ২য় বার থেকে ২৫ পাতা চেক বইয়ের জন্য ভ্যাটসহ ১৭২ টাকা দিতে হয়।
  • সেভিংস একাউন্টের জন্য অর্ধেক বছরের জন্য চার্জ দিতে হয় ভ্যাট সহ ৩৪৫ টাকা, কারেন্ট একাউন্টের জন্য ৫৭৫ টাকা, কারেন্টে কোন লাভ দেওয়া হয় না আর সেভিংস এ্যাকাউন্টে ৩% ইন্টারেষ্ট দেওয়া হয়।
  • ব্যাংক ষ্টেটমেন্ট বছরে দুই বার ফ্রি দেওয়া হয়। এর বেশীবার নিলে ভ্যাটসহ ২০০ টাকা দিতে হয়।
  • লোনের জন্য কল সেন্টার নাম্বার  - ০১১৯৯-৮৮৫৬২৬।
  • তাদের নিজস্ব বুথ গুলোর মধ্যে ৯টি বুথে টাকা জমা নেওয়া হয় এগুলো হল – গুলশান, উত্তরা, ধানমন্ডি, মিরপুর, গুলশান – ২, বসুন্ধরা, বনশ্রী, চট্টগ্রাম, সিলেট।
  • কোন বুথে কার্ড আটকে গেলে তাদের কল সেন্টারে কল দিতে হবে এবং নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করতে হবে। সংশ্লিষ্ট শাখায় ২/৩ দিনের মধ্যের কার্ড পাওয়া যাবে। ব্যালেন্স কাটার পর টাকা বের না হলে কল সেন্টারে কল করে তাদের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করতে হবে। কল সেন্টারের নাম্বার – ০১১৯৯-৮৮৪২৭৭।
  • ব্যালেন্স জানার জন্য তাদের বুথ থেকে স্লিপ নিলে কোন চার্জ কাটে না। অন্য বুথ থেকে নিলে সে ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী চার্জ কর্তন করে।

 

এইচএসবিসি ব্যাংকের শাখাসমূহ

ক্রমিক নং

শাখার নাম

ঠিকানা

০১.

প্রধান কার্যালয়

এ্যাংকর টাওয়ার, ১০৪, বীর উত্তম সি.আর দত্ত রোড, ঢাকা – ১২০৫।

০২.

গুলশান শাখা

বাড়ি # এসডব্লিউজি -২, (কর্ণার রোড # ৫), গুলশান এভিনিউ ঢাকা – ১২১২।

০৩.

আমানাহ শাখা

আইকে টাওয়ার (নীচতলা), প্লট # সিইএন – এ (২), নর্থ এভিনিউ গুলশান – ২, ঢাকা – ১২১২।

০৪.

ধানমন্ডি শাখা

বাড়ি # ৩৫২ (পুরাতন), রোড # ২৭ (পুরাতন),ধানমন্ডি, ঢাকা – ১২০৫।

০৫.

মতিঝিল শাখা

সিটি সেন্টার, ১০৩, মতিঝিল বা/এ, ঢাকা – ১০০০।

০৬.

উত্তরা শাখা

এন আর কমপ্লেক্স, প্লট # ৪/এ, রোড # ৫, সেক্টর # ৪, উত্তরা মডেল টাউন, ঢাকা – ১২০৩।

০৭.

বনানী শাখা

বাড়ি # ১৫৫, রোড # ১৩/বি (সড়ক নং # ১১ তে), ব্লক # ই, বনানী মডেল টাউন,ঢাকা – ১২১৩।

০৮.

লালবাগ শাখা

২০৩, ওয়াটার ওয়ার্কস রোড, লালবাগ, ঢাকা – ১২১১।

০৯.

মিরপুর শাখা

হাইপেরিয়ান হাউজ (১ম তলা), প্লট # ৬১/১ ও ৬১/২, রোড # ৪, ব্লক # বি, সেকশন # ১২, মিরপুর, ঢাকা – ১২১৬।

১০.

নারায়ণগঞ্জ শাখা

৫০, এস এম মালেহ রোড, টানবাজার, নারায়ণগঞ্জ – ১৪০০।

১১.

চট্টগ্রাম শাখা

ওসমান কোর্ট, ৭০, আগ্রাবাদ, বাণিজ্যিক এলাকা, চট্টগ্রাম – ৪১০০।

১২.

জিইসি শাখা, চট্টগ্রাম

হোসনা কালাম কমপ্লেক্স, প্লট # ৩৪-৩৯, সি,ডি,এ এভিনিউ, পূর্ব নাসিরাবাদ, চট্টগ্রাম – ৪০০০।

১৩.

সিলেট শাখা

প্লট # ০১, চৌহাট্টা জিন্দাবাজার মেইন রোড, সিলেট।

 

  • এইচএসবিসি ব্যাংক সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য ব্রাউজ করুন- www.hsbc.com.bd
  • বিস্তারিত যোগাযোগের জন্য ই-মেইল- [email protected] , কল সেন্টার নম্বর – ০১১৯৯-৮৮৪৭২২, ৯৫৫৩০৫৩
 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
এক্সিম ব্যাংকের কৃষি বিনিয়োগ কর্মসূচিগুলশান, গুলশান এভিন্যিউ
ডাচ্ বাংলা ব্যাংক লিমিটেডমতিঝিল, মতিঝিল
এক্সিম ব্যাংকের আমানত প্রকল্পগুলোগুলশান, গুলশান ১
আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডN\A, N\A
ঢাকা ব্যাংকমতিঝিল, মতিঝিল
ইসলামী ব্যাংকের আই ব্যাংকিংN\A, N\A
কমার্শিয়াল ব্যাংক অব সিলন পি এল সিমতিঝিল, দিলকুশা
সিটি মানারাহ্ ইসলামিক ব্যাংকিং (সিটি ব্যাংক)N\A, N\A
উত্তরা ব্যাংক লিমিটেডঢাকা, মতিঝিল
এবি ব্যাংকমতিঝিল, দিলকুশা
আরও ১২ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি