পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

নাজিরা বাজার

রাজধানী ঢাকার তথা পুরনো ঢাকার একটি এলাকা হচ্ছে নাজির বাজার। এই এলাকাটি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বংশাল থানাধীন। এই এলাকাটির প্রকৃত নাম নাজির বাজার হলেও লোকমুখে প্রচারিত হতে হতে এই এলাকাটি এখন নাজিরা বাজার নামেই বেশি পরিচিত। প্রকৃত নামটি এখন কেবল কাগজে কলমেই রয়ে গেছে। এই এলাকাটি পুরাতন ঢাকার খাবারের ঐতিহ্য ধারণ করে বিধায় এটি পুরাতন ঢাকার একটি উল্লেখযোগ্য এলাকা হিসেবে বিবেচিত হয়।

 

সীমানা পরিধি

এই এলাকাটি মূলত একটি রোডকে ঘিরে গড়ে উঠেছে। রোডের দুইপাশের সরু গলিপথগুলোর বাড়িগুলোকে নিয়েই নাজিরাবাজার এলাকা। দক্ষিণ দিক থেকে এই এলাকাটি শুরু হয়েছে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা/লেডি বাগান থেকে দক্ষিণ দিক সংলগ্ন কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তা থেকে আর শেষ হয়েছে বঙ্গবাজার মোড়ে। দক্ষিণে বঙ্গবাজার মোড় থেকে শুরু হয়ে উত্তরে কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তায় এসে শেষ হয়েছে।

 

এই এলাকাটির পূর্ব পাশে রয়েছে সুরিটোলা, আলুবাজার, সিদ্দিকবাজার। পশ্চিমে রয়েছে আগামাসিহ লেন, আগাসাদেক রোড, সিক্কাটুলী এলাকা। উত্তরে রয়েছে বঙ্গবাজার আর দক্ষিণে কাজী আলাউদ্দিন রোড, বংশাল, ফ্রেন্স রোড এলাকা।

 

জীবনযাত্রার মান

এই এলাকার অধিকাংশ বাসিন্দা মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণীর। তাদের জীবনযাত্রার মানও ভাল। এছাড়া এলাকার বাসিন্দারা একে অপরের প্রতি বেশ সহনশীল।

 

আবাসন ব্যবস্থা

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বর্তমানে নাজিরা বাজার এলাকায় আবাসন সমস্যা দিনের পর দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে এই এলাকার জমির মূল্য আকাশচুম্বী। এছাড়া এই এলাকার বাড়ি ভাড়াও বেশী। এই এলাকার ভবনগুলো তেমন বড়। বেশীরভাগ ভবনেই রয়েছে ২ রুমের ফ্ল্যাট। ২ রুমের এক-একটি ফ্ল্যাটের ভাড়া পড়ে ৭,০০০ থেকে ৮,০০০ টাকা, সেই সাথে অগ্রীম হিসেবে প্রদান করতে হয় ৫০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত। এছাড়া অল্প কিছু ভবনে ৩ রুম ও ১ রুমের ফ্ল্যাট রয়েছে। ১ রুমের ১টি ফ্ল্যাটের ভাড়া পড়ে ৪,০০০ – ৪,৫০০ টাকা এবং অগ্রীম হিসেবে প্রদান করতে হয় ৩০,০০০ থেকে ৫০,০০০ টাকা। আর ৩ রুমের একটি ফ্ল্যাটের ভাড়া পড়ে ১০,০০০ থেকে ১২,০০০ টাকা, অগ্রীম হিসেবে প্রদান করতে হয় ৫০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ টাকা।

 

এলাকার পরিবহন ব্যবস্থা

এই এলাকার প্রধান বাহন রিক্সা। তবে প্রধান রাস্তাতে আনুপাতিক হারে বেশি চলাচল করে সিএনজি অটো রিক্সা, মাইক্রোবাস, কার। বাস/ট্রাক প্রবেশ করতে রাস্তায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।

 

নাজিরাবাজারে যাওয়ার উপায়

আজিমপুর, নিউ মার্কেট, ধানমন্ডি, শ্যামলী, কল্যাণপুর, গাবতলী থেকে গাবতলী-সদরঘাট রুটে চলাচলকারী ৭ নম্বর, ধামরাই, গ্রামীন বাসযোগে বঙ্গবাজার নেমে, বঙ্গবাজার থেকে দক্ষিণ দিকে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতালের পাশ দিয়ে যে রোডটি গিয়েছে এটিই নাজিরা বাজার রোড।

 

সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ী থেকে নাজিরা বাজারে আসতে হলে চিটাগাং রোড থেকে গুলিস্তান পর্যন্ত যে বাসগুলো চলাচল করে সেই বাসযোগে গুলিস্তান এসে, গুলিস্তান থেকে নর্থ সাউথ রোড হয়ে দক্ষিণ দিকে ৫০০ গজ সামনে সুরিটোলা ওভার ব্রীজের পাশ দিয়ে হাজী ওসমান গণি রোড অবস্থিত। এই রোডের পশ্চিম প্রান্তে নাজিরা বাজার চৌরাস্তা অবস্থিত। এছাড়া গুলিস্তান থেকে সোজা পশ্চিম দিকে বঙ্গবাজার মোড় এসে নাজিরাবাজার রোডে প্রবেশ করার ব্যবস্থা রয়েছে।  

 

সদরঘাট থেকে নাজিরা বাজারে যেতে চাইলে সদরঘাট থেকে গুলিস্তান রোডে চলাচলকারী ৭ নম্বর, আজমেরী, সুপ্রভাত, স্কাই লাইন, ইউনাইটেড বাসযোগে, কিংবা ঐতিহ্যবাহী টমটম/ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে বংশাল নতুন চৌরাস্তায় নেমে ওয়ালটন শো রুমের পাশ দিয়ে পশ্চিম দিকে যে রোডটি রয়েছে সেই রোডের শেষ প্রান্তে কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তাটি অবস্থিত। এই চৌরাস্তা থেকে উত্তর দিকের রোডটিই নাজিরা বাজার রোড।

 

চকবাজার, লালবাগ, সোয়ারীঘাট থেকে এই এলাকায় যেতে চাইলে চক বাজার থেকে গুলিস্তানের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা টেম্পু যোগে বঙ্গবাজার মোড়ে নেমে দক্ষিণ দিকে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতালের পাশ দিয়ে যে রোডটি গিয়েছে এটিই নাজিরা বাজার রোড।

 

এছাড়া রিকশা যোগে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সংলগ্ন পূর্ব দিকে যে রোডটি রয়েছে সেই রোড দিয়ে সাতরওজা মাজারের পাশ দিয়ে উত্তর দিকে যে রোডটি রয়েছে সেটি আগাসাদেক রোড নামে পরিচিতি। আগাসাগদেক রোডের পূর্ব প্রান্তে নাজিরা বাজার চৌরাস্তা অবস্থিত।

 

নাজিরাবাজার খাবারের হাট

নাজিরা বাজার রোডটি বিভিন্ন গনমাধ্যমে খাবারের গলি নামে পরিচিত। বঙ্গবাজার মোড় থেকে দক্ষিণ দিকে নাজিরা বাজার রোডের দুই পাশে অসংখ্য হোটেল রয়েছে। বঙ্গবাজার থেকে প্রথমেই হাতের ডান পাশে রয়েছে হোটেল ওয়ান স্টার। এই হোটেলটিতে ভাত, মাছ, মাংস, মোরগ পোলা, কাচ্চি বিরিয়ানী, লাচ্ছি, ফালুদা, চা, রুটি সবই পাওয়া যায়। এটি বেশ উন্নতমানে একটি হোটেল। এখান থেকে দক্ষিণ দিকে ১০০ গজ সামনে এগুলোই পাশাপাশি ৪ টি খাবারের হোটেল রয়েছে। এই হোটেলগুলোতে সকালের নাস্তা, দুপুরের খাবার, সান্ধ্যকালীন নাস্তা ও রাতের খাবার পাওয়া যায়। এই হোটেলগুলো থেকে ১০ গজ দক্ষিণ দিকে এগোলেই যে খাবারের ঘ্রাণটি সকলের নজর কাড়বে সেটি হল পুরাতন ঢাকার বিখ্যাত হাজীর বিরিয়ানী। এই বিরিয়ানীর দোকানটি নাজিরাবাজার চৌরাস্তা থেকে বঙ্গবাজারের দিকে যাওয়ার পথে ২০ গজ সামনে হাতের বাম পাশে অবস্থিত। প্রতিদিন সকাল ৭.০০ টা থেকে রাত ১১.০০ টা পর্যন্ত এই বিরিয়ানীর দোকানটি সপ্তাহের ৭ দিনই খোলা থাকে। হাজীর বিরিয়ানী থেকে ১০ গজ দক্ষিণে এগুলো হাতের ডান পাশে অবস্থিত পরপর দুটি বিরিয়ানীর দোকানও পথচারীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম। এরমধ্যে হানিফ বিরিয়ানীরও পুরান ঢাকায় বেশ সুনাম রয়েছে। সবশেষ নাজিরা বাজার চৌরাস্তার চারপাশেই রয়েছে খাবারের দোকান। নাজিরাবাজার চৌরাস্তার খাবারের দোকানগুলো হলো – মামুন বিরিয়ানী, ভাই ভাই বিরিয়ানী হাউজ, মদিনা বিরিয়ানী হাউজ, বিসমিল্লাহ কাবাব ঘর, মক্কা বিরিয়ানী হাউজ। এসব খাবারের দোকানগুলোর মধ্যে মামুন বিরিয়ানী ও বিসমিল্লাহ কাবাবের পুরান ঢাকায় বেশ কদর রয়েছে। এছাড়া নাজিরা বাজার চৌরাস্তায় ৩ টি বাকরখানী রুটির দোকান, ১টি মাছ ধরার উপকরণ (বড়শি, ছিপের) দোকান রয়েছে।

 

গুরুত্বপূর্ণ মোড়গুলো  

এই এলাকাটিতে ২ টি ব্যস্ততম মোড় রয়েছে। তন্মধ্যে একটি হল কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তা এবং অপরটি হলো নাজিরাবাজার চৌরাস্তা।

 

কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তা

এই মোড়ের চারটি রাস্তা হলো – দক্ষিণ দিক থেকে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা হয়ে কাজী আলাউদ্দিন রোড; উত্তর দিক থেকে নাজিরাবাজার চৌরাস্তা হয়ে নাজিরাবাজার রোড, পূর্ব দিক থেকে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা থেকে শুরু হয়ে মাজেদ সরদার রোড; আর অপরটি এসেছে পশ্চিম দিক থেকে মাজেদ সরদার রোড/সিক্কাটুলী রোড। এই চারটি রাস্তার মেলবন্ধনে সৃষ্টি হয়েছে এই মোড়টির।

 

নাজিরাবাজার চৌরাস্তা

এই মোড়ের রাস্তা চারটি হলো – দক্ষিণ থেকে কাজী আলাউদ্দিন রোড থেকে নাজিরাবাজার রোড, উত্তর দিক থেকে বঙ্গবাজার মোড় থেকে নাজিরাবাজার রোড, পূর্ব দিক থেকে নর্থ সাউথ রোড থেকে আলু বাজার (হাজী ওসমান গণি রোড), পশ্চিম দিকে আগাসাদেক রোড এসে মিশেছে নাজিরাবাজার চৌরাস্তায়।

 

লেনগুলো

এই এলাকাটিতে বেশ কিছু সরু গলিপথ/লেন রয়েছে। বিশেষত রোডের পূর্ব পাশে ৩ টি লেন রয়েছে যেগুলো প্রস্থে খুব বেশি বড় না হলেও দৈর্ঘ্যে বেশ বড়। লেনগুলো হলো – বাংলাদুয়ার লেন, নাজিরাবাজার লেন (মিষ্টি গলি), নাজিরা বাজার লেন (জামাই গলি), নাজিরা বাজার লেন (স্কুলের গলি)।

 

বাংলাদুয়ার লেন

এই লেনটি কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তা সংলগ্ন। কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তা থেকে ২০ গজ সামনে হাতের ডান পাশ দিয়ে একটি গলিপথ পূর্ব দিকে গেছে। এই গলিপথটির একটি লিংক গিয়ে যোগ হয়েছে মিষ্টি গলির সাথে এবং অন্য আরেকটি লিংক শেষ হয়েছে পূর্বে নর্থ সাউথ রোডে গিয়ে। বাংলাদুয়ার লেনটি অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। এর দুপাশে রয়েছে অসংখ্য বাড়িঘর। পুরাতন ঢাকার বৈশিষ্ট্যানুযায়ী প্রতিটি বাড়ি একটির সাথে আরেকটি আষ্টেপৃষ্টে জড়িয়ে রয়েছে।

 

এখানে রয়েছে আবাসিক ভবন, একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়, একটি মসজিদ। এছাড়া রয়েছে হোটেল, মুদির দোকান, ফার্মেসী, সেলুন, বাখরখানি রুটির দোকান, তরকারির দোকান, জুতার কারখানা। এই লেনটিতে সাইকেল, মোটর সাইকেল ও রিক্সা ছাড়া অন্য কোন যানবাহন প্রবেশ করতে পারে না। 

 

নাজিরাবাজার লেন (মিষ্টি গলি/মেয়র গলি)

বাংলাদুয়ার লেন থেকে নাজিরাবাজার রোড দিয়ে উত্তর দিকে ৫০ গজ এগিয়ে হাতের ডান পাশে এই লেনটি অবস্থিত। এই গলির প্রবেশ মুখে একটি মিষ্টির দোকান আছে। এই জন্য লোকমুখে এই গলিটি মিষ্টি গলি নামে পরিচিত। এছাড়া ঢাকার প্রয়াত মেয়র মরহুম হানিফ সাহেবের বাসভবনও এই গলিতে অবস্থিত। এজন্য লোকে এই গলিটিকে মেয়র গলি নামে অভিহিত করে থাকেন।

 

এই লেনটি প্রস্থে খুব বেশি বড় না হলেও দৈর্ঘ্যে অনেক লম্বা। মূল লেনটি ডানে-বামে একাধিক লেনে মোড় নিয়েছে। এর একটি মুখ দিয়ে মিশেছে বাংলাদুয়ার লেনের সাথে। অপরটি গিয়ে মিশেছে পূর্ব দিকে নর্থ সাউথ রোডের সাথে। এই লেনটি অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ। লেনটির ভিতরে রয়েছে হোটেল, মুদির দোকান, ফার্মেসী, সেলুন, বাখরখানি রুটির দোকান, তরকারির দোকান, জুতার কারখানা। এই লেনটিতে সাইকেল, মোটর সাইকেল ও রিক্সা ছাড়া অন্য কোন যানবাহন প্রবেশ করতে পারে না।

 

নাজিরাবাজার লেন (স্কুলের গলি)

মিষ্টি গলি হতে নাজিরা বাজার রোড হয়ে উত্তর দিকে ২০ গজ সামনে হাতের বাম পাশে এই লেনটি অবস্থিত। এই লেনটিতে রয়েছে নাজিরা বাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। এই স্কুলটির কারণে লোকমুখে এই লেনটি নাজিরাবাজার স্কুলের গলি নামে পরিচিত। এই লেনটি প্রস্থে বেশ ছোট। সাইকেল ও মোটর সাইকেল ছাড়া অন্য কোন যানবাহন প্রবেশ করতে পারে না।

 

নাজিরা বাজার লেন (জামাই গলি)

নাজিরা বাজার স্কুল গলি থেকে নাজিরা বাজার রোড হয়ে উত্তর দিকে ১০০ গজ সামনে হাতের ডান পাশে এই লেনটি অবস্থিত। এটি মূলত নাজিরা বাজার এলাকার একটি লেন হলেও এই লেনটি জামাই গলি নামে সকলের নিকট পরিচিত। এই গলিটির নামকরণ সম্পর্কে তেমন কোন যৌক্তিক কারণ খুঁজে পাওয়া যায় না। এই লেনটিও প্রস্থে খুব বেশি বড় নয়। তবে দৈর্ঘ্যে বেশ লম্বা। এই লেনটি দিয়ে অন্য কোন রোডের লিংক নেই। পূর্ব দিকে এই লেনটি শেষ হয়েছে। এই লেনটিও বেশ ঘনবসতিপূর্ণ। এই লেনটিতে রয়েছে হোটেল, মুদির দোকান, সেলুন, তরকারির দোকান। লেনটিতে সাইকেল ও মোটর সাইকেল ছাড়া অন্য কোন যানবাহন প্রবেশ করতে পারে না।

 

মার্কেটগুলো

নাজিরা বাজার এলাকায় রয়েছে সাইকেল মার্কেট, সাইকেল ও রিক্সা পার্টস মার্কেট, রেকসিন, গার্মেন্টস ম্যাটেরিয়াল মার্কেট, বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য খাবারের মার্কেট।

 

সাইকেল মার্কেট

বংশাল সাইকেল মার্কেটটি উত্তর দিকে সম্প্রসারিত হয়ে কাজী আলাউদ্দিন রোড হয়ে নাজিরা বাজার চৌরাস্তা পর্যন্ত এসে শেষ হয়েছে। এই মার্কেটে নতুন সাইকেলের দোকানের পাশাপাশি বেশ কিছু পুরাতন সাইকেলের দোকানও রয়েছে। এই মার্কেটে ছোট, বড় সকলের জন্য বিভিন্ন ব্র্যান্ডের স্পোর্টস সাইকেল, জাম্পিং, বাংলা সাইকেল পাওয়া যায়।

 

সাইকেল ও রিক্সা পার্টস মার্কেট

কাজী আলাউদ্দিন চৌরাস্তা থেকে উত্তর দিকে নাজিরা বাজার রোডে বেশ কিছু সাইকেল ও রিক্সা পার্টস এর দোকান রয়েছে।

 

রেকসিন ও গার্মেন্টস ম্যাটেরিয়াল মার্কেট

নাজিরা বাজার চৌরাস্তা থেকে উত্তর দিকে বঙ্গবাজার যাওয়ার পথে রোডের দুই পাশে রয়েছে রেকসিন, জুতার সোল, এ্যাডহেসিভ পণ্য, গার্মেন্টস ম্যাটেরিয়াল, লেদার/চামড়ার দোকান। এই দোকানগুলোতে জুতা তৈরীর যাবতীয় মালামাল ও সকল ধরনের গার্মেন্টস পণ্য পাওয়া যায়।

 

এই মার্কেটের দোকানগুলো সকাল ৯.০০ টা থেকে রাত ৮.০০ টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শুক্রবার পূর্ণ দিবস ও শনিবার দিনের প্রথম অর্ধ দিবস বন্ধ থাকে।

 

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

নাজিরা বাজার এলাকার ১ টি প্রাইমারী স্কুল, ২ টি হাই স্কুল রয়েছে। প্রাইমারী স্কুলটি বাংলাদুয়ার লেনে অবস্থিত। হাই স্কুল দুটির মধ্যে ১ টি নাজিরা বাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং অপরটি অল কেয়ার প্রি ক্যাডেট উচ্চ বিদ্যালয়। নাজিরা বাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টি নাজিরা বাজার স্কুলের গলিত অবস্থিত এবং অল কেয়ার প্রি ক্যাডেট উচ্চ বিদ্যালয়টি নাজিরা বাজার জামাই গলির সাথে অবস্থিত।

 

ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান

এই এলাকায় বসবাসরত বাসিন্দাদের শতকরা ৯৯.৯৯ ভাগই মুসলমান। এই এলাকায় ৫ টি মসজিদ ও ১ টি মাদ্রাসা রয়েছে। মসজিদগুলোর মধ্যে ১ টি মসজিদ কাজী আলাউদ্দিন রোড চৌরাস্তার পাশে বাংলাদুয়ার লেনের বিপরীত পাশে অবস্থিত। এই মসজিদটির উপরে মাদ্রাসাতুল হাদীস কিন্ডার গার্টেন নামে একটি মাদ্রাসা রয়েছে। বাংলাদুয়ার লেনে রয়েছে অপর একটি মসজিদ, নাজিরাবাজার চৌরাস্তা সংলগ্ন জামাই গলির বিপরীত পামে আরও ১টি মসজিদ রয়েছে। নাজিরাবাজার চৌরাস্তা থেকে উত্তর দিকে বঙ্গবাজার যাওয়ার পথে হাজী বিরিয়ানীর পাশে একটি এবং অপর ১টি মসজিদ বঙ্গবাজার মোড়ে অবস্থিত।

 

বাজার

এই এলাকার বাসিন্দাদের বাজার সদাই করার জন্য নাজিরা বাজার চৌরাস্তায় ছোট-খাটো একটি বাজার রয়েছে। এই বাজারে মাংস, শাকসবজি, মুদি সামগ্রী পাওয়া যায়। এখানে মাছ পাওয়া যায় না। এছাড়া বাজারের কাছাকাছি দূরত্বে রয়েছে নয়াবাজার ও আগাসাদেক রোড বাজার।

 

ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলো

এই এলাকায় সরকারী কোন প্রতিষ্ঠানের অফিস নেই। নাজিরা বাজার রোডের উত্তর প্রান্তে বঙ্গবাজার মোড়ে রয়েছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন অফিস (প্রধান কার্যালয়) এবং কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতাল।

 

ব্যাংক

নাজিরা বাজার এলাকায় ব্যাংকের তেমন আধিক্য লক্ষ্য করা যায় না। এই এলাকায় রূপালী ব্যাংকের ১ টি শাখা রয়েছে।

 

এটিএম বুথ

নাজিরা বাজার চৌরাস্তা সংলগ্ন অল কেয়ার প্রি ক্যাডেট এর নিচতলায় ডাচ বাংলা ব্যাংকের ১ টি এবং ব্র্যাক ব্যাংকের ১ টি এটিএম বুথ রয়েছে।

 

আইন-শৃঙ্খলা

এই এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোটামুটি শান্ত ধরনের। এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য বংশাল থানা পুলিশ সার্বক্ষণিক টহল দিয়ে থাকেন। এলাকার বাসিন্দাদের পারিবারিক বিরোধ নিষ্পত্তিতে রয়েছে নাজিরাবাজার পঞ্চায়েত কমিটি।

 

বংশাল থানার অবস্থান

বংশাল থানাটি ইংলিশ রোডে অবস্থিত। বংশাল নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা থেকে দক্ষিণ দিকে তাঁতীবাজার মোড় থেকে পূর্ব দিকে রায়সাহেব বাজার যাওয়ার পথে চিত্রামহল সিনেমা হলের বিপরীত পাশে ফজলুল করিম কমিউনিটি সেন্টারের ২য় তলায় অবস্থিত।

 

বংশাল থানায় যোগাযোগের ফোন নম্বর

কর্মকর্তা

ফোন নম্বর

অফিসার ইনচার্জ

০১৭১৩৩৯৮৩৩৬

অপারেশনস অফিসার

০১১৯১০০২২৮৮

ডিউটি অফিসার

০১১৯৯৮৮৩৭২৩

ল্যান্ড ফোন

৯৫৬৫৭০০

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
নাটক সরণিএখানে নাটক সরনি এলাকা পরিচিতি তুলে ধরা হয়েছে।
বংশালবংশাল এলাকা পরিচিতি
গোড়ানগোড়ান এলাকা পরিচিতি
মগবাজারমগবাজার এলাকা পরিচিতি
নাজিরা বাজারনাজিরা বাজার এলাকা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্যের বর্ণনা রয়েছে।
ওয়ারীওয়ারী এলাকা পরিচিতি
আগামাসিহ লেনআগামাসিহ লেনের বর্ণনা রয়েছে
মালিটোলামালিটোলা এলাকার বর্ণনা রয়েছে
কসাইটুলীকসাইটুলী এলাকার পরিচিতি
দয়াগঞ্জদয়াগঞ্জ এলাকা পরিচিতি
আরও ১ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি