পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

বংশাল

Bangshal, Online Dhaka Guide৪০০ বছরের ঢাকার ইতিহাসের একটি এলাকা হচ্ছে বংশাল। এটি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের বংশাল থানাধীন একটি এলাকা। এছাড়া নব নির্ধারিত ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (দক্ষিণ) এর বর্তমান ৩৫ নং ওয়ার্ডের আওতাভুক্ত। এই এলাকাটি পুরাতন ঢাকার অন্যতম এলাকা হিসেবেও বিবেচিত। এছাড়া ব্যবসায়িক দিক থেকে এই এলাকাটির গুরুত্ব অপরিসীম।

 

সীমানা/পরিধি

এই এলাকাটির পূর্ব দিকে রয়েছে নর্থ সাউথ রোড, যেটি গুলিস্তান থেকে সদরঘাটের দিকে গিয়েছে। পশ্চিম দিকে রয়েছে ফ্রেন্স রোড এটি বঙ্গবাজার থেকে নয়াবাজার মুখী। উত্তর পাশে রয়েছে বংশাল রোড, যেটি নবাবপুর থেকে শুরু হয়ে নর্থ সাউথ রোড ক্রস করে চকবাজারের দিকে গিয়েছে আর দক্ষিণ দিকে রয়েছে ইংলিশ রোড, এই রোডটি রায়সাহেব বাজার হয়ে ২য় বুড়িগঙ্গা সেতুর দিকে চলে গেছে। এই চারটি রোডই মূলত বংশাল এলাকাটিকে আবর্তন করে রেখেছে। মূল বংশাল এলাকাটি পূর্ব-পশ্চিমে বংশাল নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা/বংশাল নতুন চৌরাস্তা থেকে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা ও তাঁতী বাজার মোড় থেকে নয়াবাজার মোড়ে গিয়ে শেষ হয়েছে। আর উত্তর-দক্ষিণ দিকে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা থেকে নয়াবাজার চৌরাস্তা ও নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা থেকে তাঁতী বাজার চৌরাস্তা পর্যন্ত।

 

 

লেনগুলো

ঢাকার মানচিত্রে বংশাল এলাকাটিকে বেশ বড় মনে হলেও মূল বংশালটি বিস্তৃত হয়েছে - হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেন, বংশাল লেন এলাকাদ্বয়ের সমন্বয়ে। আর বংশালের ওপর দিয়ে প্রবাহিত বংশাল রোডটি পূর্ব দিকে নবাবপুর মানসী সিনেমা হল মোড় থেকে শুরু হয়ে পশ্চিম দিকে মাহুৎটুলী মোড়ে গিয়ে শেষ হয়েছে। এই রোডটির দক্ষিণ পাশেই মূলত এলাকাগুলো অবস্থিত হলেও বংশাল লেনের কিছু অংশ উত্তর পাশেও রয়েছে।

 

হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেন

এই অংশটুকুই মূল বংশাল হিসেবে পরিচিত। বংশাল আহলে হাদীসের মসজিদের পাশ দিয়ে যে গলিপথটি রয়েছে সেটিই হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেন। এখানে ১ নম্বর থেকে ৯০ নম্বর হোল্ডিং পর্যন্ত ৯০ টি হোল্ডিং রয়েছে। আবার এক-একটি হোল্ডিং এর আওতায় একাধিক সাব-হোল্ডিংও রয়েছে।

 

বংশাল লেন

হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেনের পূর্ব পাশে বংশাল লেন অবস্থিত। এটি নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা থেকে পশ্চিম দিকে দশ গজ সামনে হাতের বাম পাশে ন্যাশনাল ব্যাংকের পাশ দিয়ে যে গলিটি রয়েছে সেই গলিপথটিই বংশাল লেন।

 

নর্থ সাউথ রোড/বংশাল নতুন চৌরাস্তা 

এই স্থানটি গুলিস্তান থেকে সদরঘাট ও নবাবপুর থেকে বংশাল সড়কের সংযোগস্থলে অবস্থিত। এই মোড়ে রয়েছে ঢাকা মহানগর ছাত্রদল (দক্ষিণের) প্রধান কার্যালয়, ওয়ালটনের শোরুম, এয়ারটেলের কাস্টমার কেয়ার পয়েন্ট।

 

বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা

এই মোড়টি বংশাল থেকে মকিমবাজার ও নাজিরাবাজার থেকে নয়াবাজার রোডের সংযোগস্থলে অবস্থিত। এই মোড়ে রয়েছে রোকনউদ্দিন জামে মসজিদ, লেডি বাগান, বংশাল ইলেকট্রিক সাব স্টেশন।

 

নামকরা স্থাপনা/প্রতিষ্ঠানগুলো

বংশাল রোডের পূর্ব দিক থেকে পশ্চিম দিকে যাওয়ার পথে প্রথমেই রাস্তার দক্ষিণ পাশে পড়বে মানসী সিনেমা হল, এর কিছুটা সামনে অবস্থিত ডিসি লালবাগ জোনের অফিস ও বংশাল পুলিশ ফাঁড়ি। আর নর্থ সাউথ রোড পাড় হলেই হাতের ডানপাশে পড়বে বেসরকারী টেলিফোন অপারেটর এয়ারটেলের কাস্টমার কেয়ার পয়েন্ট। এখান সামনে এগোলে দেখা মিলবে আহলে হাদীসের প্রধান মসজিদ হিসেবে বিবেচিত বংশাল বড় মসজিদের। মসজিদ থেকে আরও সামনে এগোলে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তায় রয়েছে বংশাল বিদ্যুৎ বিতরণ কেন্দ্র/সাব স্টেশন, পায়রা শোভিত লেডি বাগান।

 

জীবনযাত্রার মান

এই এলাকার অধিকাংশ বাসিন্দা মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত শ্রেণীর। তাদের জীবনযাত্রার মানও ভাল। এছাড়া এলাকার বাসিন্দারা একে অপরের প্রতি বেশ সহনশীল।

 

আবাসন ব্যবস্থা

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির ফলে বর্তমানে বংশাল এলাকায় আবাসন সমস্যা দিনের পর দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে এই এলাকার জমির মূল্য আকাশচুম্বী। এছাড়া এই এলাকার বাড়ি ভাড়াও পুরনো ঢাকার অন্যান্য এলাকার তুলনায় বেশী। এই এলাকার ভবনগুলোতে তেমন বড় নয় আবার ছোটও নয়। বেশীরভাগ ভবনেই রয়েছে ২ রুমের ফ্ল্যাট। ২ রুমের এক-একটি ফ্ল্যাটের ভাড়া পড়ে ৮,০০০ থেকে ৯,০০০ টাকা, সেই সাথে অগ্রীম হিসেবে প্রদান করতে হয় ৫০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত। এছাড়া অল্প কিছু ভবনে ৩ রুম ও ১ রুমের ফ্ল্যাট রয়েছে। ১ রুমের ১টি ফ্ল্যাটের ভাড়া পড়ে ৪,৫০০ – ৫,০০০ টাকা এবং অগ্রীম হিসেবে প্রদান করতে হয় ৩০,০০০ থেকে ৫০,০০০ টাকা। আর ৩ রুমের একটি ফ্ল্যাটের ভাড়া পড়ে ১২,০০০ থেকে ১৫,০০০ টাকা, অগ্রীম হিসেবে প্রদান করতে হয় ৫০,০০০ থেকে ১,০০,০০০ টাকা।

 

ঐতিহ্যবাহী খাবার

এই এলাকার বাসিন্দারা খাবারের দিক থেকে মোটামুটি ভোজন রসিক হলেও এই এলাকায় তেমন কোন খাবারের দোকান নেই। এই এলাকার একমাত্র খাবারের দোকান হিসেবে বিবেচিত হয় নর্থ সাউথ রোডে অবস্থিত হোটেল আল-রাজ্জাক। এছাড়া অলিগলিতে ছোট-খাটো পুরি, লুচির দোকান রয়েছে। হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেনে রয়েছে পুরাতন ঢাকার ঐতিহ্যবাহী খাবার বাখরখানি রুটির ১ টি দোকান। এছাড়া সকাল বেলা বংশাল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে অবস্থিত আলীর নাস্তার দোকানের পরোটার ঘ্রাণ পথচারীদের নজর কাড়তে সক্ষম হয়। এই হোটেলের কাস্টমারদের ভিড় অনেকসময় পথচারীদের কৌতুহলের উদ্রেক সৃষ্টি করে। আর বংশাল মাহুৎটুলী মোড়ে চুড়িওয়ালা গলিতে রয়েছে শামসের আলীর ভূনা খিচুরী।

 

বাজার

বংশালের প্রতিটি গলিতেই একাধিক মুদি দোকান রয়েছে। হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেনে রয়েছে ২ টি অস্থায়ী তরকারীর দোকান। আর ফেরিওয়ালারাতো রয়েছেই। তবে বংশাল ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের বাজার-সদাই করার একমাত্র স্থান নয়াবাজার কাঁচা বাজার। এই বাজারটি বংশাল পকুর পাড় প্রান্তের দক্ষিণ-পূর্ব কোণে ফ্রেন্স রোডে অবস্থিত। এই বাজারে মাছ, মাংস, তরি-তরকারী, মুদি পণ্য, হার্ডওয়্যার পণ্য, তেল-মশলা এমন কিছু নেই যা এখানে পাওয়া যায় না।    

 

বংশালে যাওয়ার উপায়

ঢাকার গুলিস্তান, সদরঘাট, যাত্রাবাড়ী যেখান থেকেই আসুন না প্রতিটি স্থান থেকেই এই এলাকায় আসার জন্য পাবলিক পরিবহন ব্যবস্থা রয়েছে।

 

  • গুলিস্তান থেকে সদরঘাট রুটে চলাচলকারী ৭ নম্বর, সুপ্রভাত, ইউনাইটেড, আজমেরী, বিহঙ্গ, স্কাইলাইন বাসে চড়ে বংশালে যেতে পারেন। এছাড়া নগর পরিবহনের টেম্পু, কিংবা ঢাকার ঐতিহ্যবাহী টমটম গাড়ীতে চড়েও বংশালে যেতে পারেন। গুলিস্তান থেকে যে কোন বাহনে চড়ে নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা/বংশাল নতুন চৌরাস্তায় নেমে পশ্চিম দিকে যে রোডটি রয়েছে সেটিই বংশাল রোড। গুলিস্তান থেকে বংশাল জনপ্রতি বাস ভাড়া ২ টাকা, টেম্পু ভাড়া ৫ টাকা আর টমটম গাড়ীর ভাড়া জনপ্রতি ২০ টাকা।

 

  • সদরঘাট থেকেও অনুরূপভাবে ৭ নম্বর, সুপ্রভাত, ইউনাইটেড, আজমেরী, বিহঙ্গ, স্কাইলাইন বাসে চড়ে বংশালে যাওয়া যায়। এছাড়া নগর পরিবহনের টেম্পু, কিংবা ঢাকার ঐতিহ্যবাহী টমটম গাড়ীও যথারীতি রয়েছে। গুলিস্তানের মত সদরঘাট থেকেও যেতে হলে নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা/বংশাল নতুন চৌরাস্তায় নেমে পশ্চিম দিকে যে রোডটি রয়েছে সেটিই বংশাল রোড। সদরঘাট থেকে বংশাল জনপ্রতি বাস ভাড়া ২ টাকা, টেম্পু ভাড়া ৫ টাকা আর টমটম গাড়ীর ভাড়া জনপ্রতি ২০ টাকা।

 

  • যাত্রাবাড়ী/সায়েদাবাদ থেকে বংশালে যেতে হলে – সায়েদাবাদ মোড় থেকে বাবুবাজারের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা রাজধানী পরিবহনের মিনিবাস কিংবা রিক্সায় উঠতে হবে। মিনিবাসে করে আসলে তাঁতী বাজার মোড় কিংবা নয়াবাজার মোড়ে নেমে উত্তর দিকে ৫০ গজ এগোলেই বংশালে প্রবেশের একাধিক গলিপথ পাবেন। আর রিক্সাওয়ালাকে বংশালের কথা বললেই আপনাকে বংশালে পৌঁছে দিবে। যাত্রাবাড়ী থেকে জনপ্রতি মিনিবাসের ভাড়া পড়ে ১২ টাকা আর রিক্সা ভাড়া ৩০/৪০ টাকার মত লাগে।

 

  • চকবাজার থেকে বংশালে যেতে হলে পরিবহন বলতে এক রিক্সা। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে পূর্ব দিকে সাতরওজা ও মাহুৎটুলী তিন রাস্তার মোড়ের পর থেকেই বংশালের শুরু হলেও মূল বংশালের অবস্থান এখান থেকে আরও ৫০০ গজ পূর্ব দিকে। চকবাজার থেকে বংশালের রিক্সা ভাড়া ২০ টাকা। চাইলে ১৫ মিনিটে পায়ে হেঁটেই বংশালে পৌঁছানো যায়।

 

এলাকার পরিবহন ব্যবস্থা

এই এলাকার প্রধান বাহন রিক্সা। তবে প্রধান রাস্তাতে আনুপাতিক হারে বেশি চলাচল করে বাস, ট্রাক, টেম্পু, সিএনজি অটো রিক্সা, মাইক্রোবাস, কার, টমটম গাড়ী। যাদের টমটম গাড়ীতে চড়ার শখ রয়েছে তারা রথ দেখা ও কলা বেঁচা একইসাথে সম্পূর্ণ করতে পারেন।

 

ব্যবসায়িক গুরুত্ব

ব্যবসায়িক প্রয়োজনে প্রতিদিনই হাজার হাজার লোকের পদচারণায় এই এলাকাটি মুখরিত থাকে। এই এলাকায় রয়েছে সাইকেল মার্কেট, রেকসিন/ফ্লোরমেট মার্কেট, মটর সাইকেল পার্টস মার্কেট, মটর সাইকেল মার্কেট, রিক্সা পার্টস মার্কেট, কাঠ ও দরজার মার্কেট। এসব মার্কেটের কারণেও এই এলাকাটি সারা দেশবাসীর নিকট বিশেষ পরিচিত।

 

সাইকেল মার্কেট

দেশের বৃহত্তম সাইকেল মার্কেটটি বংশাল এলাকাতেই অবস্থিত। সাইকেল মার্কেটটি বংশাল নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা থেকে শুরু হয়ে মকিম বাজার পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। এই মার্কেটে প্রায় শতাধিক সাইকেলের দোকান রয়েছে। এসব দোকানে রয়েছে ছোটদের সাইকেল, রেসিং সাইকেল এমনকি ব্যাটারী চালিত ছোট গাড়ী, সাইকেলের পার্টস। এই মার্কেটে খুচরা বিক্রয়ের পাশাপাশি পাইকারী হারেও সাইকেল বিক্রয় করা হয়। এছাড়া এই মার্কেটে রয়েছে একাধিক সাইকেল সার্ভিসিং সেন্টার।

 

মোটর সাইকেল/পার্টস মার্কেট

ঢাকায় অবস্থিত মোটর সাইকেল পার্টস মার্কেটগুলোর মধ্যে বংশাল মোটর সাইকেল পার্টস মার্কেটটি বৃহত্তের দাবীদার। কেননা বংশাল নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা থেকে শুরু হয়ে মাহুৎটুলী মোড় পর্যন্ত বংশাল রোডের দুই পাশে শতাধিক মটর সাইকেল পার্টসের দোকানের সমন্বয়ে এই মার্কেটটি গড়ে উঠেছে। এই মার্কেটে চায়না, জাপান, ইন্ডিয়ার তৈরী সকল ব্র্যান্ডের মোটরসাইকেল ও মোটর সাইকেলের পার্টস পাওয়া যায়। এখানে খুচরা বিক্রয়ের পাশাপাশি পাইকারী বিক্রয়ও করা হয়। এছাড়া মোটর সাইকেল, মোটর সাইকেল পার্টস এর পাশাপাশি রয়েছে মোটর সাইকেল সার্ভিসিং সেন্টার, মোটর সাইকেল সজ্জার স্টীকার এর দোকান।

 

রেকসিন/ফ্লোরমেট/ফোম/ম্যাটেরিয়ালস মার্কেট

এই মার্কেটটি বংশাল রোডের নবাবপুর প্রান্তে অবস্থিত হলেও মূল বংশাল রোডে ২০ টির মত রেকসিন/ফ্লোরমেটের দোকান রয়েছে। এই দোকানগুলো নর্থ সাউথ রোড থেকে শুরু হয়ে বংশাল পুরাতন চৌরাস্তা পর্যন্ত বংশাল রোডের দুই পাশে অবস্থিত।  

 

রিক্সা পার্টস মার্কেট

দেশের রিক্সা গ্যারেজ মালিকদেরও অন্যতম ভরসা বংশাল। কেননা এখানে রয়েছে রিক্সার পার্টসের মার্কেট। এসব দোকানগুলো বংশাল পুরাতন চৌরাস্তার পূর্ব ও পশ্চিম পাশে অবস্থিত।   

 

কাঠ ও দরজার মার্কেট

বংশালে রয়েছে কাঠ, কাঠের দরজা, প্লাস্টিক, জাহাজের দরজা ও প্লাইউডের মার্কেট। এই মার্কেটটি বংশাল পুকুরের পশ্চিম পাশে ফ্রেন্স রোড ঘেঁষে অবস্থিত। এছাড়া এই মার্কেটের কিছু অংশ নর্থ সাউথ রোড ঘেঁষে বংশাল কেরোসিন কাঠ মার্কেটে অবস্থিত।

 

এই এলাকার মার্কেটের দোকানগুলো সকাল ৯.০০ টা থেকে রাত ৮.০০ টা পর্যন্ত খোলা থাকে এবং শুক্রবার পূর্ণ দিবস ও শনিবার অর্ধ দিবস বন্ধ থাকে।

 

শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান

এই এলাকায় কোন কলেজ না থাকলেও ৪ টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২ টি বেসরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, ৬ টি মসজিদ ও ৩ টি মাদ্রাসা রয়েছে।

 

পাঠাগার

বংশাল আহলে হাদীস মসজিদের বিপরীত পাশে বংশাল রোডে আহলে হাদীস লাইব্রেরী নামে একটি লাইব্রেরী রয়েছে। এই লাইব্রেরীতে ইসলাম বিষয়ক বইয়ের পাশাপাশি সমসাময়িক বিষয়ের বইও রয়েছে।

 

প্রাকৃতিক পরিবেশ

বংশালের প্রাকৃতিক পরিবেশ অত্যন্ত মনোরম। তবে ব্যবসায়িক প্রানকেন্দ্র বিধায় দিনের বেলায় কোলাহলময় থাকলেও রাতের দিকে মোটামুটি শান্ত হয়ে যায়। এছাড়া এই এলাকায় রয়েছে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বংশাল পুকুর। চারদিকে গাছপালায় পরিবেষ্টিত ও সান বাধানো ঘাঁট বিশিষ্ট এই পুকুরটি বংশালের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক। 

 

ঐতিহাসিক পুকুর

হাজী আব্দুল্লাহ সরকার লেনের দক্ষিণ প্রান্তে নয়বাজার সংলগ্ন স্থানে রয়েছে বংশাল পুকুর। এই পুকুরটির কারণেও বংশাল এলাকাটির বিশেষত্ব রয়েছে। পুকুরটি চারকোনা বিশিষ্ট। এই চারপাশ গ্রীল দিয়ে আবর্তন করে রাখা হয়েছে। আর পুকুরের পাড়গুলোতে রয়েছে সারি সারি নারকেল গাছ ও অন্যান্য বাহারি গাছ। পুকুরের উত্তর ও দক্ষিণ প্রান্তে রয়েছে ১ টি আরে মোট ২ টি পাকা ঘাঁট। এর মধ্যে উত্তর প্রান্তের ঘাঁটটি এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের গোসলের জন্য ব্যবহৃত হয় এবং দক্ষিণ প্রান্তের ঘাঁটটি আশেপাশের কর্মজীবি অস্থায়ী মানুষের গোসলের কাজে ব্যবহৃত হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের গোসলের জন্য কোন টাকা প্রদান করতে না হলেও অস্থায়ী বাসিন্দাদের গোসলের জন্য জনপ্রতি ২ টাকা প্রদান করতে হয়। এছাড়া পুকুরটিতে মাছ চাষ করা হয়। যেমন – পাঙ্গাস, তেলাপিয়া, রুই, কাতল। প্রতি ৬ মাস অন্তর টিকেটের মাধ্যমে বড়শি দিয়ে মাছ ধরার আয়োজন করা হয়। শৌখিন মাছ শিকারীরা পুকুরের পানিতে বাঁশ ও কাঠের সমন্বয়ে মাচা তৈরী করে মাচাতে বশে মাছ শিকার করেন। এছাড়া বছর শেষে সমগ্র পুকুরে একবারে জাল ফেলে সকল মাছ ধরে এলাকার বাসিন্দাদের নিকট বিক্রয় করা হয়। পুকুর থেকে প্রাপ্ত অর্থ পুকুরের উন্নয়ন, কর্মচারীদের বেতন ও এলাকার গরীব-দু:খীদের সেবায় খরচ করা হয়।

 

ব্যাংক

ব্যবসায়িক গুরুত্বের দিক বিবেচনায় এই এলাকায় ৮ টি ব্যাংক রয়েছে। ব্যাংক গুলো হলো – ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক লি:, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড, এনসিসি ব্যাংক লি:, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লি:, জনতা ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক লি:, রূপালী ব্যাংক লি:।

 

এটিএম বুথ

ব্যাংকের তুলনায় এই এলাকায় এটিএম বুথের সংখ্যা সামান্য। বংশাল পুরাতন চৌরাস্তার দক্ষিণ পাশে ডাচ বাংলা ব্যাংকের ১টি এটিএম বুথ রয়েছে। এছাড়া নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তায় এবি ব্যাংক ও ডাচ বাংলা ব্যাংকের ১ টি করে দুইটি এটিএম বুথ রয়েছে।

 

আইন-শৃঙ্খলা

এই এলাকার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বেশ শুশৃঙ্খল। এই এলাকার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে কাছেই ইংলিশ রোডে রয়েছে বংশাল থানা। এছাড়া পারিবারিক বিরোধ সংক্রান্ত ঝামেলা নিরসনে রয়েছে বংশাল পঞ্চায়েত কমিটি। এই কমিটির মাধ্যমে পারিবারিক বিরোধসমূহ নিষ্পত্তি করা হয়।

 

বংশাল থানার অবস্থান

বংশাল থানাটি ইংলিশ রোডে অবস্থিত। বংশাল নর্থ সাউথ রোড চৌরাস্তা থেকে দক্ষিণ দিকে তাঁতীবাজার মোড় থেকে পূর্ব দিকে রায়সাহেব বাজার যাওয়ার পথে চিত্রামহল সিনেমা হলের বিপরীত পাশে ফজলুল করিম কমিউনিটি সেন্টারের ২য় তলায় অবস্থিত।

 

বংশাল থানায় যোগাযোগের ফোন নম্বর

কর্মকর্তা

ফোন নম্বর

অফিসার ইনচার্জ

০১৭১৩৩৯৮৩৩৬

অপারেশনস অফিসার

০১১৯১০০২২৮৮

ডিউটি অফিসার

০১১৯৯৮৮৩৭২৩

ল্যান্ড ফোন

৯৫৬৫৭০০

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
নাটক সরণিএখানে নাটক সরনি এলাকা পরিচিতি তুলে ধরা হয়েছে।
বংশালবংশাল এলাকা পরিচিতি
গোড়ানগোড়ান এলাকা পরিচিতি
মগবাজারমগবাজার এলাকা পরিচিতি
নাজিরা বাজারনাজিরা বাজার এলাকা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্যের বর্ণনা রয়েছে।
ওয়ারীওয়ারী এলাকা পরিচিতি
আগামাসিহ লেনআগামাসিহ লেনের বর্ণনা রয়েছে
মালিটোলামালিটোলা এলাকার বর্ণনা রয়েছে
কসাইটুলীকসাইটুলী এলাকার পরিচিতি
দয়াগঞ্জদয়াগঞ্জ এলাকা পরিচিতি
আরও ১ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি