পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

ই-টিআইএন

বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী যে সকল নাগরিক বছরে দুই লাখ বিশ হাজার টাকা বা তার বেশি আয় করেন তাদেরকে অবশ্যই কর দিতে হবে। প্রত্যেক কর দাতার নির্দিষ্ট একটি “টিন (TIN)” নাম্বার রয়েছে। কর প্রদান ও গ্রহণের বিষয়টি সহজ ও সুন্দরভাবে করার জন্য ১০ অঙ্কের এই টিন নাম্বার প্রদান করা হয়। এত দিন টিআইএনের পুরো প্রক্রিয়া কাগুজে নথিভিত্তিক ছিল। আয়কর দেওয়া নিয়ে করদাতাদের ভোগান্তির অবসান এবং নথি সংরক্ষণব্যবস্থা সরল করার লক্ষ্যে ১ জুলাই থেকে ইলেকট্রনিক ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নাম্বার বা 'ই-টিআইএন' ব্যবস্থা চালু করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এর ফলে এখন আর রাজস্ব টিন নাম্বারের অফিসে জন্য যেতে হবে না। ঘরে বসেই টিন নম্বর এর জন্য নিবন্ধন করা যাবে। জরুরী প্রয়োজনে যেকোনো স্থান থেকে টিন সনদ প্রিন্ট করে প্রয়োজনীয় কাজ সম্পাদন করতে পারবেন। অত্যাধুনিক পদ্ধতির ডিজিটাল সিকিউরিটি থাকায় টিআইএন জাল করা যাবে না। বন্ধ হবে ভুয়া টিআইএন ব্যবহার করে নানা অপকর্মের সুযোগ। সব নিবন্ধনকারীর তথ্য ডেটাবেইজে সংরক্ষিত থাকায় একদিকে স্বচ্ছ ও দ্রুত হবে টিআইএন ব্যবস্থাপনা, অন্যদিকে করদাতারা পাবেন সহজ সেবা।

 

সকলকে নিবন্ধন করতে হবে:

নতুন বা পুরাতন সকল করদাতাকে এই নিয়মে নতুন করে নিবন্ধন করতে হবে। আগামী ১ জানুয়ারি, ২০১৪ থেকে বর্তমান ১০ অঙ্কের টিন নাম্বার বাতিল হয়ে যাবে। তাই সকল করদাতাকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে নিবন্ধন করতে হবে। এজন্য প্রথমে এনবিআরের ওয়েবসাইট (www.nbr-bd.org) এ গিয়ে ই-টিআইএন লেখার ওপর ক্লিক করতে হবে। www.incometax.gov.bd ঠিকানা থেকেও এ কার্যক্রম শুরু করা যাবে। এখানে Register বাটনে ক্লিক করে প্রাথমিক নিবন্ধন করার পর Login করতে হবে। এরপর মূল নিবন্ধন বা পুনর্নিবন্ধন ফরম আসবে।  এই ফরম পূরণ করার পর একটি নিবন্ধন নাম্বার দেওয়া হবে। নিবন্ধন নম্বর দিয়ে লগ-ইন করে যেকোনো জায়গা থেকে টিআইএন দেখা ও প্রিন্ট করা যাবে। ওয়েবসাইটের User Guide থেকেও পাওয়া যাবে এ পদ্ধতির বিস্তারিত নির্দেশাবলী।

 

ট্যাক্স ক্যালকুলেটর:

কর বা ইনকাম ট্যাক্স হিসাব করার জন্য বিশেষ ধরনের ক্যালকুলেটর রয়েছে, এটি ট্যাক্স ক্যালকুলেটর নামে পরিচিত। বাংলাদেশি কর প্রদানকারীদের জন্য অনলাইন সফটওয়্যারের মাধ্যমে এই বিশেষ ক্যালকুলেটরটি তৈরি করা হয়েছে। এই ক্যালকুলেটরের মাধ্যমে খুব সহজেই অনলাইনে আয়কর হিসাব করা যায়। এই ক্যালকুলেটরের কিছু নির্ধারিত বক্সে প্রয়োজনীয় ডাটা বসালেই ক্যালকুলেটরটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে মোট আয় ও আয়ের ওপর প্রদেয় কর জানিয়ে দেয়। এই ক্যালকুলেটরটির মাধ্যমে কোম্পানি আয়কর ও ব্যক্তিগত আয়কর দুই ধরনের করই হিসাব করা যায়। এই ক্যালকুলেটরটির সাহায্য নিতে হলে যেতে হবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ওয়েবসাইট www.nbr-bd.org এ।

 
রাজস্ব বোর্ডের হোমপেজের নিচের দিকে মাঝামাঝি অবস্থানে লাল রঙের ব্র‌্যাকগ্রাউন্ডের মধ্যে “ট্যাক্স ক্যালকুলেটরটি” রয়েছে। অথবা সরাসরি ট্যাক্স ক্যালকুলেটরটি পেতে চাইলে এই লিংকটি www.nbrtaxcalculatorbd.org ব্যবহার করতে পারেন।

 

ট্যাক্স ক্যালকুলেটর পেজটি ওপেন হওয়ার পর “ইনকাম ট্যাক্স ক্যালকুলেটর” ও “ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন প্রিপারেশন” নামে আলাদা আলাদা দুটি অপশন রয়েছে। “ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন প্রিপারেশন” মূলত ক্যালকুলেটরটির একটি বর্ধিত রূপ। এটির মাধ্যমে কর হিসাব করার সাথে সাথে নির্ভুল রিটার্ন তৈরি করা যায়।  

 

“ইনকাম ট্যাক্স ক্যালকুলেটর” পেজটিতে কোম্পানি আয়কর ও ব্যক্তিগত আয়কর হিসাব করার আলাদা আলাদা ক্যালকুলেটর রয়েছে। পেজটি ওপেন হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যক্তিগত ট্যাক্স হিসাব করার ক্যালকুলেটরটি সিলেক্ট করা থাকে। পেজটির বাম পাশে কোম্পানি আয়কর হিসাব করার ক্যালকুলেটরের অপশনটি রয়েছে।


ব্যক্তি আয়কর হিসাব করতে চাইলে ওIndividual Tax Calculator এবং প্রতিষ্ঠানের আয়কর হিসাব করতে চাইলে Company Tax Calculator নির্বাচন করতে হবে। এরপর প্রাথমিক তথ্য, যেমন- নাম, জন্ম তারিখ, টিআইএন ইত্যাদি ঘর পূরণ করতে হবে।


ব্যক্তি আয়করের ক্যালকুলেটরের ছকে ৯টি খাত রয়েছে। এগুলো হলো বেতন, সিকিউরিটি সুদ, বাড়িভাড়া, কৃষি, ব্যবসা বা পেশা, ব্যবসায়ী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রাপ্ত লভ্যাংশ, স্বামী-স্ত্রী ও সন্তানের আয়, মূলধনী মুনাফা ও অন্যান্য খাতের আয়। প্রতিটি খাতে বার্ষিক আয়ের পরিমাণ বসানোর পর নিচের Total Income ও Tax Leviable Total Income ঘরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে মোট আয় ও তার ওপর প্রদেয় আয়কর চলে আসবে। এসব আয়ের মধ্যে কোনো কর রেয়াত থাকলে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাদ হয়ে যাবে। যেমন- পেনশনের আয় করমুক্ত হওয়ায় এর ওপর কর দিতে হবে না। এ ছাড়া বিনিয়োগজনিত আয়কর রেয়াতের পরিমাণ জানতে চাইলে Investments ঘরে বিনিয়োগের পরিমাণ উল্লেখ করতে হবে। কোম্পানির বার্ষিক আয় ও আয়কর হিসাব করতে চাইলে এর জন্য নির্ধারিত ফরমটি পূরণ করতে হবে। এরপর সফটওয়্যার স্বয়ংক্রিয়ভাবে জানিয়ে দেবে মোট আয় ও তার ওপর প্রদেয় কর। হিসাব-নিকাশ শেষ করার পর Print-এ ক্লিক করে নিয়ে রিটার্নের সঙ্গে এটি সংযুক্ত করতে হবে।


আয়কর হিসাবের পাশাপাশি যদি অনলাইনে রিটার্নও প্রস্তুত করতে চান, তাহলে আপনাকে নিবন্ধিত ইউজার হতে হবে। এ জন্য সাইটের হোম পেইজ থেকে নিবন্ধন করে লগ-ইন করুন। এবার রিটার্ন প্রিপারেশনের পৃষ্ঠা দেখতে পাবেন। এগুলো পূরণ করে Save বাটনে ক্লিক করে পরবর্তী সময় সংশোধন বা পরিমার্জনের জন্য সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। করদাতাদের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে ক্যালকুলেটরটি নিয়মিত আপগ্রেড করা হয়।

 

ই-পেমেন্ট:

করদাতারা যাতে সবচেয়ে কম শ্রমে আয়কর দিতে পারেন, তাই ট্যাক্স ক্যালকুলেটরের পাশাপাশি চালু হয়েছে ই-পেমেন্ট। ফলে নিজস্ব ডেবিট কিংবা ক্রেডিট কার্ড দিয়েই কর পরিশোধ করা যাবে। এ ক্ষেত্রে ফরমে টিআইএন দিয়ে ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের নম্বর দিলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নির্ধারিত টাকা ট্রান্সফার হবে।  অনলাইনে ই-পেমেন্ট পদ্ধতিতে আয়কর, মূসক এবং শুল্ক ঘরে বসে বা যেকোন স্থান থেকে খুব সহজে পরিশোধ করা যাবে। করদাতা নিজে বা তার আইনানুগ প্রতিনিধি, উৎসে কর কর্তনকারী কর্তৃপক্ষসহ সকল ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠান এ সুবিধা নিতে পারবেন।

 

e-payment পদ্ধতিতে কর পরিশোধের জন্য প্রাথমিকভাবে যা লাগবে:

  • কার্যকর ই-মেইল অ্যাকাউন্ট
  • TIN, AIN, BIN (যেটি প্রযোজ্য)
  • ডেবিট কার্ড, প্রি-পেইড/ক্যাশ কার্ড (সোনালী ব্যাংক, ট্রাস্ট ব্যাংক, জনতা ব্যাংক)

 

নিচে e-payment পদ্ধতিতে আয়কর দেয়ার বিস্তারিত:

রেজিস্ট্রেশন: প্রথমে www.nbrepayment.org এই ওয়েবসাইটে গিয়ে রেজিস্টেশন করতে হবে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের হোম পেজের নিচের দিকে ঠিক মাঝামাঝি এই পেজটির আলাদা অপশন রয়েছে। এই পেজটির ঠিক নিচের দিকে রেজিস্ট্রেশন করার অপশন রয়েছে। রেজিস্ট্রেশন ফর্মে আবেদনকারীর নাম, ঠিকানা, ই-মেইল অ্যাড্রেস, ফোন নাম্বার, লগ ইন নাম, পাসওয়ার্ড, জন্ম তারিখ, সিকিউরিটি প্রশ্নের উত্তর প্রভৃতি তথ্য প্রদান করে শর্তসমূহ ভালোমতো পড়ে "I agree and Create accont" এ ক্লিক করলেই রেজিস্ট্রেশন সম্পন্ন হয়ে যাবে।  রেজিস্ট্রেশন শেষে e-payment সিস্টেম থেকে ব্যবহারকারীর ই-মেইল অ্যাকাউন্টে একটি মেইল আসবে। মেইলটিতে একটি নতুন ‘e-Pay Control Panel’ লিংক দেখা যাবে।


আয়কর প্র্রদান: ‘e-Pay Control Panel’ লিংকটিতে ক্লিক করলে যে পাতাটি ওপেন হবে, সেখানে ‘In-come Tax’ বাটনে ক্লিক করে pay Income Online সিলেক্ট করতে হবে। এখানে যে ফরমটি আসবে সেখানে কর অঞ্চল, কর সার্কেল, আয় করের ধরন ও ধারা, সংশ্লিষ্ট কর বছর ইত্যাদি তথ্য  পূরণ করে Submit বাটনে ক্লিক করতে হবে। এটি সংক্রিয়ভাবে সোনালী ব্যাংক Q-Cash পেইজ এ যাবে। এই পেইজ থেকে পেছনে আসা বা ব্যাক করা সম্ভব নয়। তবে চাইলে নতুন করে শুরু করা যাবে।


অর্থ প্রদান পদ্ধতি: সোনালী ব্যাংকের পেইজ থেকে ডেবিট কার্ড বা ক্যাশ কার্ডের যে কোনো একটি সিলেক্ট করতে হবে। প্রাথমিক/ড্রাফট ই-চালান দেখতে next এ ক্লিক করতে হবে। চালানে বর্ণিত তথ্য সঠিক হলে পুনরায় next ক্লিক করতে হবে।


Q-Cash এর পেইজটিতে কার্ড বা অ্যাকাউন্টের তথ্য প্রদান করতে হবে। কার্ড অনুযায়ী নাম টাইপ করার পর কার্ড এর মেয়াদের তথ্য প্রবেশ করাতে হবে। এই অংশের পুরো কাজটি করতে হবে সাবধানতার সঙ্গে, তবে দ্রুত। কোনো কাজ না করে বসে থাকলে পেইজটি expire করবে বা বাতিল হয়ে যাবে। সব ঠিক থাকলে OK ক্লিক করতে হবে।


এর পরবর্তী পেইজ-এ কার্ডের/একাউন্টের গোপন পাসওয়ার্ড প্রবেশ করিয়ে Next ক্লিক করতে হবে। এতে চূড়ান্ত চালান পত্রটি দেখা যাবে। ই-পেমেন্ট সিস্টেম থেকে চালানটি প্রিন্ট, সেভ বা যে কোনো ই-মেইল অ্যাকাউন্টে করা যাবে।


পরবর্তীতে যেকোন সময় লগ-ইন করে আয়করের বিস্তারিত রেকর্ড দেখা যাবে। কাজ শেষে করে অনান্য অ্যাকাউন্টের মতো সাইন আউট করতে হবে।


চালান যাচাইকরণ: মূলপাতা www.nbrepayment.org থেকে verify challan iBAS থেকে যাচাই করা যাবে। এছাড়া www.nbrepayment.org এই পেইজটি থেকে প্রয়োজনীয় আরো তথ্য জানা যাবে।


প্রায় একই রকম পদ্ধতিতে অনলাইনের মাধ্যমে মূসক, অনলাইন কাস্টমস ডিউটি, এবং অনান্য কর প্রদান করা যাবে।

 

ভ্যালু অ্যাডেড ট্যাক্স/মূল্য সংযোজন কর (মূসক):

মূসক-বিষয়ক পেইটিতে রাজস্ব প্রদানকারীরা মূল্য সংযোজন কর সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য পাবেন যেগুলো তাদেরকে উক্ত খাতে রাজস্ব দিতে বিশেষভাবে সহায়তা করবে। এখানে বিভিন্ন পণ্য এবং সেবার উপর প্রযোজ্য মূসকের হার সম্পর্কে তথ্য রয়েছে। পাশাপাশি কোন কোন পণ্য মূসকের আওতায় পড়বে না সেসব বিষয়েও তথ্য দেয়া রয়েছে।

 

এই ব্যবস্থাটি বিংশ শতাব্দীতে উদ্ভাবিত একটি আধুনিক কর যা যেকোনো ব্যবসায়ের মাধ্যমে সৃষ্ট মূল্য সংযোজনের ওপর আরোপ করা হয়ে থাকে। দেশীয় পণ্য উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রয়, বিদেশী পণ্য আমদানী ও রপ্তানী, দেশের অভ্যন্তরে সেবা বা পরিসেবার উৎপাদন, বিপণন ও বিক্রয় ইত্যাদি সকল ক্ষেত্রে মূল্য রপ্তানী কর আরোপযোগ্য। এই কর উৎপাদন থেকে খুচরা বিক্রয় পর্যন্ত বিভিন্ন স্তরে আরোপ ও আদায় করা হলেও এর দায়ভার চূড়ান্তভাবে কেবল পণ্য বা সেবার ভোক্তাকে বহন করতে হয়।

 

যেসকল পণ্যের উপর মূসক প্রদান করতে হয়:

আবাসিক হোটেল

রেস্তোরাঁ

ডেকোরেটর ও ক্যাটারার্স

কমিউনিটি সেন্টার

মিষ্টান্ন ভান্ডার

বিউটি পার্লার

পণ্যাগার ও বন্দর

শিপিং এজেন্ট

ফ্রেইট ফরোয়ার্ডার্স

ইনডেন্টিং সংস্থা

বীমা কোম্পানি

বিদ্যুৎ বিতরণকারী

ওয়াসা

আইন পরামর্শক

ইমিগ্রেশন উপদেষ্টা

যান্ত্রিক লন্ড্রি

বিজ্ঞাপনী সংস্থা

ছাপাখানা

জরিপ সংস্থা

নিলামকারী সংস্থা

মানি চেঞ্জার

পরিবহন ঠিকাদার

খেলাধুলা আয়োজক

অনুষ্ঠান আয়োজক

নির্মাণ সংস্থা

যোগানদার

হেলথ ক্লাব ও ফিটনেস সেন্টার

কোচিং সেন্টার

স্যাটেলাইট ক্যাবল অপারেটর

স্যাটেলাইট চ্যানেল ডিস্ট্রিবিউটর

কুরিয়ার ও এক্সপ্রেস মেইল সার্ভিস

অডিট ও একাউন্টিং ফার্ম

ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্ম

চলচ্চিত্র স্টুডিও

চলচ্চিত্র প্রদর্শক (প্রেক্ষাগৃহ)

স্বয়ংক্রিয় বা যন্ত্রচালিত করাতকল

আসবাবপত্রের বিপণন কেন্দ্র

সিকিউরিটি সার্ভিস

গ্লাসশীট প্রলেপকারী প্রতিষ্ঠান

নিলামকৃত পণ্যের ক্রেতা

স্থান ও স্থাপনা ভাড়া গ্রহণকারী

যানবাহন ভাড়া প্রদানকারী

লটারীর টিকিট বিক্রয়কারী

এ্যামিউজমেন্ট পার্ক ও থিম পার্ক

পিকনিক স্পট, শ্যুটিং স্পট ও পর্যটন স্থান

সিম কার্ড সরবরাহকারী

গ্রাফিক ডিজাইনার

ইজারাদার

মেরামত বা সার্ভিসিং প্রতিষ্ঠান

তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর সেবা

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত টেইলারিং সপ ও টেইলার্স

টেলিফোন, টেলিপ্রিন্টার, টেলেক্স, ফ্র‌্যাক্স বা ইন্টারনেট সংস্থা

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাস, লঞ্চ ও রেলওয়ে সার্ভিস

মোটর গাড়ির গ্যারেজ, ওয়ার্কশপ এবং ডকইয়ার্ড

ভূমি উন্নয়ন সংস্থা ও ভবন নির্মাণ সংস্থা

ব্যাংকিং ও সম ব্যাংকিং সেবা প্রদানকারী

ক্রেডিট কার্ড প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান

মানব সম্পদ সরবরাহ বা ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান

বোর্ড সভায় যোগদানকারী

ফটো নির্মাতা (রঙিন ও সাদাকালো)

কনসালটেন্সী ফার্ম ও সুপারভাইজরী ফার্ম

উপগ্রহ চ্যানেলের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রচারকারী

আর্কিটেক্ট, ইন্টেরিয়র ডিজাইনার/ইন্টেরিয়র ডেকোরেটর

শব্দ ও আলোক সরঞ্জাম ভাড়া প্রদানকারী

প্ল্যান্ট বা মূলধনী যন্ত্রপাতি ভাড়া প্রদানকারী সংস্থা

নিজস্ব ব্র‌্যান্ড সম্বলিত তৈরী পোশাক বিপণন কেন্দ্র

বিদেশী শিল্পী সহযোগে বিনোদনমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজক

চাটার্ড বিমান বা হেলিকপ্টার ভাড়া প্রদানকারী সংস্থা

স্বর্ণকার, রৌপ্যকার এবং স্বর্ণ ও রৌপ্যের দোকানদার এবং স্বর্ণ ও রৌপ্যের পাকাকারী

ভিডিও ক্যাসেট সপ, ভিডিও গেম সপ, ভিডিও অডিও রেকর্ডিং সপ, ভিডিও ও অডিও সিডি ভাড়া প্রদানকারী সপ

অন্যান্য সেবা যা মূল্য সংযোজন কর আইনের দ্বিতীয় তফসিল দ্বারা অব্যাহতিপ্রাপ্ত নয়

 

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
স্কুল ব্যাংকিংN\A, N\A
অনলাইনে কর পরিশোধ পদ্ধতিঅনলাইনে কর পরিশোধ সংক্রান্ত তথ্য রয়েছে
কি করবেন এটিএম বুথে কার্ড আটকিয়ে গেলে?বিস্তারিত ভিতরে দেওয়া আছে
এটিএম বুথে সন্ত্রাসীদের মুখোমুখি হলে কি করবেন?সচেতন হয়ে নিজে এবং নিজের টাকা দুটোই বাঁচান।
মোবাইল ব্যাংকিং খাতে নতুন দিগন্ত সৃষ্টি করল UCash.ইউ ক্যাশ এ account করুন আর বলুন ‘ভাল থাকুক আপনার টাকা’
বিয়ে, এখন ঋণ করেও করা যায়!! টাকা দেবে ব্যাংক!!বিয়েটা তাহলে এবার করেই ফেলুন, টাকা তো ব্যাংক দেবে।
টাকা তোলা এবং টাকা পাঠানোর সহজ, দ্রুত, নির্ভুল এবং নিরাপদ উপায় ‘বিকাশ’।টাকা লেনদেন করুন নিজেই, সহজে এবং নিরপদে
জাল বা ছেঁড়া টাকা এটিএম বুথ থেকে পেলে কি করবেন?আপনার সাবধানতা এবং সচেতনতাই পারে নকল টাকা থেকে আপনাকে এবং অন্যকে নিরাপদে রাখতে
ইসলামী ব্যাংক এর মোবাইল ব্যাংকিং “এম ক্যাশ”ব্যাংকিং করুন শরীয়াহ ভিত্তিতে, সহজে, দ্রুত, নিরাপদে এবং কম খরচে।
বিদেশ যেতে জামানত বিহীন ঋণপ্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের প্রদত্ত ঋণ সম্পর্কে তথ্য রয়েছে
আরও ৬ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি