পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

যাত্রাবাড়ি – গুলিস্তান ফ্লাইওভার

ঢাকার চতুর্থ ফ্লাইওভার হিসেবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে ঢাকার সাবেক মেয়র মোহাম্মদ হানিফের নামানুসারে যাত্রাবাড়ি – গুলিস্তান ফ্লাইওভারটি। যাত্রাবাড়ী থেকে গুলিস্তান হয়ে পলাশী অভিমুখী ফ্লাইওভারটির ধারণক্ষমতা ২০০ টন এবং স্থায়ীত্বকাল ১০০ বছর। এটি নির্মাণ করছে ওরিয়ন গ্রুপ। সাড়ে ১১ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই ফ্লাইওভার শনির আখড়া থেকে যাত্রাবাড়ী, সায়েদাবাদ, টিকাটুলী, গুলিস্তান হয়ে পলাশীর বকশীবাজার পর্যন্ত বিস্তৃত। চার লেনবিশিষ্ট এই ফ্লাইওভারে ছয়টি স্থান থেকে প্রবেশ করা যাবে এবং সাতটি পথে বের হওয়া যাবে। মোট ১৩টির মধ্যে তিনটি পয়েন্টের কাজ এখনো শেষ হয়নি।

 

নির্মাণপূর্ব কিছু তথ্য:

নগরীর যানজট কমিয়ে আনতে সরকার গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি এলাকায় ফ্লাইওভার নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। সেই সিদ্ধান্তের আলোকে গুলিস্তান থেকে যাত্রাবাড়ি পর্যন্ত একটি ফ্লাইওভার নির্মাণের জন্য বিশ্বব্যাংক ১৯৯৮ সালে বরাদ্দ দেয় ২৫০ কোটি টাকা। তখন সরকারের সঙ্গে একটি চুক্তিও হয়। সড়ক ও জনপথ বিভাগের এটি নির্মাণ করার কথা ছিলো। পরবর্তী সময়ে ঢাকা আরবান ট্রান্সপোর্ট প্রকল্পের আওতায় নগরীতে একটি সমীক্ষা চালানো হয়। প্রকল্পটির আওতায় নগরীতে কয়েকটি ফ্লাইওভার, রাস্তাঘাটের সংস্কার-সম্প্রসারণ, স্বয়ংক্রিয় ট্রাফিক সিগন্যাল চালু, তিনটি নতুন বাস টার্মিনাল, নগরবাসীর চলাচলের জন্য ফুটপাথ ও ওভারব্রিজ নির্মাণের সুপারিশ করা হয। তাতে গুলিস্তান-যাত্রাবাড়ি ফ্লাইওভারটিও ছিলো। ডিসিসি ২০০৫ সালের ২১ জুন ওরিয়ন গ্রুপের সঙ্গে একটি চুক্তি করে। কিন্তু, কাজ শুরুর আগেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার চুক্তিটি বাতিল করে দেয়। ৬ দশমিক ৭ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের ফ্লাইওভারটির নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়ে ছিলো ৬৭০ কোটি টাকা। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ফ্লাইওভারটির নির্মাণকাজ আবার ওরিয়ন গ্রুপকেই দেয়। তবে শর্ত জুড়ে দেয় নতুন করে নকশা তৈরি এবং এটি আরও সম্প্রসারণ করতে হবে। তাই সরকারের নির্দেশে ওরিয়ন গ্রুপ আবারও নকশা সংশোধন করে। নতুন নকশায় ফ্লাইওভারটির দৈর্ঘ্য দাঁড়ায় ১১ কিলোমিটার। দৈর্ঘ্য বেড়ে যাওয়া এবং আনুষঙ্গিক  খরচ বেড়ে যাওয়ায় এর নির্মাণ ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১০৮ কোটি টাকা।

 

ফ্লাইওভার ব্যবহারে টোল পরিশোধ করতে হবে:

উদ্বোধনের পর ওরিয়ন গ্রুপ নিজেই এর ব্যবস্থাপনা, টোল আদায় এবং রক্ষণাবেক্ষণ করবে। চালুর পর থেকে ২৪ বছর টোল আদায় করবে ওরিয়ন গ্রুপ। টোল আদায় করেই তারা নির্মাণ ব্যয় তুলে নেবে। তারপরে এটি হস্তান্তর করা হবে ডিসিসির কাছে। টোল আদায়েও থাকছে প্রযুক্তি নির্ভর আধুনিকতার ছোঁয়া। এই প্রথমবারের মতো টোল আদায়ে ব্যবহার করা হবে এভিসি (অটোমেটিক ভেহিকেল ক্লাসিভিকেশন) পদ্ধতি। ফ্লাইওভারটি যারা ব্যবহার করবেন, তারা আগেই টোল পরিশোধ করবেন। গাড়িতে লাগানো থাকবে একটি প্রি-পেইড স্টিকার। কোনো গাড়ি ফ্লাইওভার অতিক্রম করলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল কেটে নেওয়া হবে। পরিশোধিত টাকা শেষ হয়ে গেলে আবারও রিচার্জ করা যাবে। এছাড়াও থাকছে  টোল প্লাজা। সেখানেও টোল পরিশোধ করা যাবে। সবচেয়ে বড় যানবাহন হিসেবে পরিচিত ট্রেইলরের (১৪ চাকা) জন্য টোল নির্ধারণ করা হয়েছে ২০০ টাকা। এ ছাড়া বড় ট্রাক (১০ চাকা) ১৫০ টাকা, সাধারণ ট্রাক ১০০ টাকা, বাস ১০০ টাকা, পিকআপ ৭৫ টাকা, মাইক্রোবাস ৫০ টাকা, জিপ ৪০ টাকা, কার ৩৫ টাকা, অটোরিকশা ১০ টাকা এবং মোটরসাইকেলের জন্য পাঁচ টাকা টোল দিতে হবে। যেকোনো প্রান্ত থেকে যেকোনো প্রান্তে নামার জন্য টোলের পরিমাণ একই থাকবে।

 

ভিডিও ক্লিপ এ দেখে নিন কেমন হবে ফ্লাইওভারটি:



 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
জরুরী ফোন নাম্বারN\A, N\A
বাড়ি তৈরি করার ইট সিমেন্ট আর রডের যাবতীয় হিসাব নিকাশজেনে নিন বাড়ি তৈরি করার ইট সিমেন্ট আর রডের যাবতীয় হিসাব নিকাশ
শৌখিন মৎস্য শিকারN\A, N\A
বড়শিতে মাছ শিকারবড়শিতে মাছ শিকারের টুকিটাকি
বাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থাবাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থা
প্রবীণ নিবাসপ্রবীণ নিবাস
বিশ্ব শিশু কেন্দ্র ডে-কেয়ার এন্ড প্রি-স্কুলদারুসসালাম, মিরপুর ১
সবুজের মেলা উত্তরা, সেক্টর ০১
মাচ্ মোর লেটিং সার্ভিস খিলগাঁও, গোড়ান
বাড়ি ভাড়া আইনএ বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে
আরও ৮ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি