পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

ঢাকা সিটি কর্পোরেশন দক্ষিণ (ডি.সি.সি.সি)

২০১২ সালের পূর্ব অবধি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (ডি.সি.সি) নামের একটি স্ব-শাসিত সংস্থা দ্বারা ঢাকা শহর পরিচালিত হতো। সেবার মান বৃদ্ধির জন্য বর্তমানে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (উত্তর) ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (দক্ষিণ) এই দুই অংশে এই সংস্থাটি বিভক্ত করা হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ এর কার্যালয়টি গুলিস্তানে পূর্ববর্তী ঢাকা নগর ভবনে এবং ঢাকা উত্তরের কার্যালয়টি বনানী কমিউনিটি সেন্টারে অবস্থিত। ঢাকা দক্ষিণ এর ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে পূর্ববর্তী ওয়ার্ড নং ২৪-৩৬ নং ওয়ার্ড এবং ৪৮-৯২ নং ওয়ার্ড পর্যন্ত। বর্তমানে ওয়ার্ডগুলোর নম্বর এরকম যেমন বর্তমান ওয়ার্ড নং ১ (সাবেক ২৪) এভাবে ক্রমানুসারে। আর ঢাকা উত্তরের ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে পূর্ববর্তী ওয়ার্ড নং ১-২৩ নং ওয়ার্ড এবং ৩৭-৪৭, ৫৪, ৫৫ নং ওয়ার্ড নিয়ে এই অংশটি গঠিত। উত্তর ও দক্ষিণ উভয় অংশে আলাদা সংরক্ষিত মহিলা আসনও রয়েছে। ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (দক্ষিণ) অংশে ১৯টি এবং ঢাকা সিটি কর্পোরেশেন (উত্তর) অংশে ১২টি সংরক্ষিত মহিলা আসন রয়েছে। প্রতি তিনটি ওয়ার্ড নিয়ে একটি করে সংরক্ষিত মহিলা আসন গঠিত।

 

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এর অন্তর্ভুক্ত এলাকাগুলো হলো উত্তরা, পল্লবী, মিরপুর, ভাসানটেক, কাফরুল কচুক্ষেত, কুড়িল, বাড্ডা, গুলশান, বনানী, মহাখালী, মধ্যবাড্ডা, পূর্ব রামপুরা, মালিবাগ চৌধুরীপাড়া, তেজগাঁও, আগারগাঁও, মোহাম্মদপুর, শ্যামলী, আদাবর, টঙ্গী ডাইভারশন রোড এলাকার ওয়ার্ডগুলো ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অন্তর্ভুক্ত হবে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এর অন্তর্ভুক্ত এলাকাগুলো হলো খিলগাঁও, গোড়ান, মাদারটেক, আহমদবাগ, মুগদা, মানিকনগর, গোপীবাগ, আরামবাগ, মতিঝিল, শাহজাহানপুর, গুলবাগ, ধানমণ্ডি, শুক্রাবাদ, শাহবাগ, পল্টন, হাজারীবাগ, লালবাগ, কোতোয়ালি, নবাবপুর, সদরঘাট, সূত্রাপুর, নারিন্দা, মৈশুন্দী, গেণ্ডারিয়া, শ্যামপুর, যাত্রাবাড়ী, পোস্তগোলা, কামরাঙ্গীরচর এলাকার ওয়ার্ডগুলো দক্ষিণের আওতায় পড়বে।

 

ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন বিভাগসমূহ

  • প্রকৌশল বিভাগ
  • রাজস্ব বিভাগ
  • সম্পত্তি বিভাগ
  • স্বাস্থ্য বিভাগ
  • নগর পরিকল্পনা বিভাগ

 

বিভাগ অনুযায়ী বিভিন্ন বিভাগের সেবা প্রাপ্তি

প্রকৌশল বিভাগ

  • রাস্তা, ফুটপাথ ও সারফেস ড্রেনের পটহোলস, ভাঙ্গা ম্যানহোল কভার, রাস্তার উপর মালামাল রেখে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি ইত্যাদি বিষয়ে আবেদন / অভিযোগ প্রদানের ৭২ (বাহাত্তর ঘন্টার মধ্যে সংশ্লিস্ট অঞ্চলের নির্বাহী প্রকৌশলী কর্তৃক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের ব্যবস্থা করা হয়।
  • পানি, বিদ্যুত, গ্যাস প্রভৃতি সংযোগের জন্য সড়ক খননের প্রয়োজন হলে সংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক কার্যালয়ে যোগাযোগ করে ১০ টাকা মূল্যের একটি আবেদন ফরম সংগ্রহ করে ফরমটি যথাযথভাবে পূরণ করে তার সাথে হোল্ডিং ট্যাক্সের হালনাগাদ রশিদের ফটোকপি আঞ্চলিক কার্যালয়ে জমা দিতে হয়। লোকাল রোডের ক্ষেত্রে আবেদনের পরবর্তী ৩ (তিন) কার্য দিবসের মধ্যে ক্ষতিপূরণের চাহিদাপত্র প্রস্তুত করা হয় এবং তা আবেদনকারীকে উক্ত আঞ্চলিক কার্যালয়ের নির্বাহী কর্মকর্তার কাছ থেকে সংগ্রহ করতে হয়। আর প্রাইমারী রোডের ক্ষেত্রে গ্রাহকের আবেদন ওয়ান স্টপ সার্ভিস সেলের সভায় উপস্থাপন করার পর যদি আবেদনটি অনুমোদন করা হয় তাহলে আবেদনকারী উক্ত আঞ্চলিক কার্যালয় হতে সংগ্রহ করতে হয়।
  • চাহিদাপত্র অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট ব্যাংকে ক্ষতিপূরণ জমা দিয়ে লোকাল রোডের ক্ষেত্রে পরবর্তী ১ কার্ম দিবসের মধ্যে সড়ক খননের অনুমতি পত্র আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস থেকে সংগ্রহ করা যায়। প্রাইমারী রোগের ক্ষেত্রে চাহিদা অনুযায়ী নির্দিষ্ট ব্যাংকে ক্ষতিপূরণের টাকা জমা প্রদানের পর পরবর্তী ১ কর্মদিবসের মধ্যে সড়ক খননের অনুমতি পত্র আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস থেকে সংগ্রহ করা যায়।

 

ড্রাইভ ওয়ে নির্মাণ

  • ড্রাইভ ওয়ে নির্মাণের জন্য পান, ক্রস সেকশনসহ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের নির্বাহী প্রকেৌশলী বরাবর আবেদন করতে হয়।
  • নকশা ও আবেদনপত্র যাচাই বাছাই করে পরবর্তী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ প্রস্তুত করার পর আবেদনকারী সেটি সংশ্লিষ্ট কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন।
  • ক্ষতিপূরণের টাকা জমা প্রদানের পর রশিদ এর কপি পরবর্তী ১ কর্মদিবসের মধ্যে ড্রাইভ ওয়ে নির্মাণের কার্যারম্ভের অনুমতি পত্র আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে হয়।

 

রাজস্ব বিভাগ

হোল্ডিং নাম্বার প্রদান

  • নতুন হোল্ডিং নম্বর এর জন্য সংশ্লিষ্ট কর কর্মকর্তার বরাবর জমির মালিককে মালিকানা দলিল, খাজনার রশিদ, পর্চা, ডি.সি আর সহ সাদা কাগজে আবেদন করতে হয়। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সরেজমিনে তদন্তপূর্বক খালি জায়গা (সীমানা নির্ধারিত থাকতে হবে) অথবা নির্মাণাধীন কাঠামো হলে বার্ষিক মূল্যায়ন ২২৫ টাকা নির্ধারন করে নতুন হোল্ডিং নম্বর প্রদান করা হয়ে থাকে। তবে ওই জমির উপর যদি কোনো স্থাপনা থাকে তাহলে নির্ধারিত উপায়ে ওই স্থাপনার বার্ষিক মূল্যায়ন নির্ধারণ করে হোল্ডিং নম্বর প্রদান করা হয়ে থাকে।
  • আবশ্যিক সকল তথ্য বা দলিলপত্র পাওয়ার পর খালি জায়গা বা নির্মাণাধীন ভবনসহ জমির ক্ষেত্রে ১৫ দিনের মধ্যে এবং কাঠামো থাকার ক্ষেত্রে বার্ষিক মূল্যায়ন নিরুপন করে ৯০ দিনের মধ্যে হোল্ডিং নম্বর প্রদান করা হয়।

 

হোল্ডিংয়ের নামজারী

  • ক্রয়/দান/ওয়ারিশ সূত্রে আংশিক বা সম্পূর্ণ মালিকানা প্রাপ্ত হয়ে সংশ্লিষ্ট হোল্ডিং এর নামজারী করতে চাইলে আবেদনকারীকে হোল্ডিংয়ের মালিকানা রেজিষ্টার্ড দলিল, পর্চা, ডিসিআর, খাজনার রশিদ এর সত্যায়িত কপিসহ নির্ধারিত ‘এম’ ফরমে সংশ্লিষ্ট কর কর্মকর্তার বরাবর আবেদন করতে হয়। আবেদনপত্র পাওয়ার পর এই আবেদনের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট হোল্ডিংয়ের পূর্ববর্তী সম্পূর্ণ বা আংশিক মালিকপক্ষের কোনো আপত্তি আছে কিনা তা জানতে চেয়ে নোটিশ পাঠানো হয়। নোটিশ প্রদানের ৩০ ত্রিশ দিনের মধ্যে কোনো আপত্তি না এলে নামজারীর বিষয়টি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক বিবেচনায় আনা হয়। এক্ষেত্রে ওই হোল্ডিং এর পৌরকর হাল সন পর্যন্ত পরিশোধিত থাকতে হবে।
  • উপরোক্ত বিষয়ে প্রয়োজনীয় সকল তথ্য/দলিলপত্র পাওয়ার পর আপত্তি নোটিশ জারীর ৬০ দিনের মধ্যে নামজারী কার্য সম্পাদন করা হয়ে থাকে।

 

হোল্ডিং কর পৃথকীকরণ

  • কোন হোল্ডিংয়ের পৌরকর পরিশোধের সুবিধার্থে ওই হোল্ডিংয়ের মালিকপক্ষ আবেদনের মাধ্যমে হোল্ডিং কর আলাদা করতে পারবেন। এজন্য আবেদনপত্রের সাথে প্রেরিত মালিকানা সংক্রান্ত কাগজপত্র ও সরেজমিন তদন্ত এবং প্রয়োজনীয় শুনানী গ্রহণের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট মালিকপক্ষের হোল্ডিংক কর পৃথক করা হয়। এই সুবিধা পাওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট হোল্ডিংয়ের পৌরকর হাল সন পর্যন্ত পরিশোধ থাকতে হয়।
  • হোল্ডিং পৃথক করতে হলে প্রস্তাব অনুযায়ী ভূমি অফিস কর্তৃক ইতোমধ্যে আবেদনকারীগণের নামে পৃথক পৃথক নামজারীর স্বপক্ষে পর্চা, ডিসিআর, খাজনার রশিদ, হোল্ডিং এর মালিকগণের মধ্যে আপোষ বন্টননামা এবং নক্সাসহ আবেদন করতে হয়।
  • প্রয়োজনীয় সকল তথ্য/দলিলপত্র প্রাপ্তি সাপেক্ষে ৬০ দিনের মধ্যে হোল্ডিং পৃথকীকরণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত প্রদান করা হয়।

 

হোল্ডিং কর পরিশোধ এবং বকেয়া কর আদায়

  • অর্থ বrসরের প্রথমেই ঢাকা সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক পৌরকর পরিশোধের বিল বই সকল হোল্ডিং এ সরবরাহ করা হয়। উক্ত বিল বই সহ জনতা ব্যাংকের নির্ধারিত ব্রাঞ্চে পৌরকর পরিশোধের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া সংশ্লিষ্ট এলাকার রেভিনিউ সুপার ভাইজার এর নিকট কিংবা জোন অফিসে এসে Internal Collector এর নিকট রশিদ বই এর মাধ্যমে পৌরকর পরিশোধ করা যায়।
  • হাল সনের পৌরকর (১) ১ম কিস্তি (জুলাই-সেপ্টেম্বর) পরিশোধ করলে ৫% রিবেট (২) ৩ কিস্তি একসাথে পরিশোধ করলে ৭.৫ রিবেট এবং (৩) ৪ কিস্তি একসাথে পরিশোধ করলে ১০% রিবেট এর সুবিধা পাওয়া যায়।
  • হাল সনের পৌরকর যথাসময়ে পরিশোধ করা না হলে নির্ধারিত অর্থ বrসর পরে হাল সনের বকেয়ার উপর ১৫% হারে সারচার্জ আরোপ করা হয়। এধরনের বকেয়া কর পরিশোধ না করা পর্যন্ত বকেয়া করের উপর প্রতিবছর ১৫% হারে সারচার্জ আরোপিত হতে থাকে।

 

ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়ন

  • ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের অধিভুক্ত এলাকায় ব্যবসা-বাণিজ্য এবং জীবিকা নির্বাহের উপর আদর্শ কর তফসীল/০২ মতে নির্ধাতি হালে ফি আদায়পূর্বক ট্রেড লাইসেন্স প্রদান করা হয়। এজন্য নির্ধারিত আবেদন ফরমে ব্যবসার ধরন, স্থান, স্থায়ী/বর্তমান ঠিকানা প্রভৃতি উল্লেখ করে ৩ কপি ছবি, ভাড়ার চুক্তিপত্র ও ভাড়ার রশিদ/কর পরিশোধের রশিদসহ কর কর্মকর্তার বরাবরে আবেদন করতে হবে।
  • সকল তথ্য/কাগজপত্র প্রাপ্তি সাপেক্ষে ‘কে’ ফরম দাকিলকৃত আবেদন ৭ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করে ‘আই’ ফরমে দাখিলকৃত আবেদন স্বাস্থ্য বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিভাগের প্রতিবেদনের উপর ভিত্তি করে ৭ দিনের মধ্যে প্রদান করা হয়।
  • ইস্যুকৃত ট্রেড লাইসেন্স বrসর ভিত্তিক  নবায়ন করতে হয়। লাইসেন্স নবায়নের জন্য সোনালী ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট শাখায় নির্ধারিত নবায়ন ফি জমা দিয়ে নবায়ন করা যায়। 

 

সম্পত্তি বিভাগ  

অস্থায়ীভাবে নির্মাণ সামগ্রী রাখার অনুমতি

  • কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান চাইলে তার স্থাপনার নির্মাণ সামগ্রী রাস্তায় রাখতে পারবেন। এজন্য আগে থেকে আবেদনপত্রের মাধ্যমে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের অনুমতি নিতে হবে। আবেদন পাওয়ার পর সরেজমিনে সার্ভে করা হয়। সার্ভে রিপোর্ট ও রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না করার শর্তে ভাড়া পরিশোধের ভিত্তিতে নির্মাণ সামগ্রী রাস্তার উপর রাখার অনুমতি পাওয়া যায়। বর্তমানে ভাড়ার হার প্রতি বর্গফুট মাসিক ১০ (দশ) টাকা। এই কার্যক্রম সম্পন্ন হতে কম/বেশী ১৫ দিন সময় লাগে।

 

সিটি কর্পোরেশনের মাঠ/জায়গা ব্যবহারের অনুমতি

  • বিভিন্ন ধর্মীয়, সামাজিক অনুষ্ঠান, সভা সমাবেশ করার জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র পাওয়ার পর ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মাঠ/খালি জায়গা বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায়। গুলশান ২ নং শিশু পার্কের পিছনের মাঠ ব্যবহারের জন্য প্রতিদিন ২৩,৩৩৪ টাকা পরিশোধ করতে হয়। এই কার্যক্রম সম্পন্ন করতে কম/বেশী পনের দিনের মতো সময় লাগে। জরুরী প্রয়োজনে সাত দিনের মধ্যে কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়।

 

স্বাস্থ্য বিভাগ

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন কর্মসূচী

ঢাকা শহরে জন্ম গ্রহণকারী ও মৃত্যুবরণকারীদের জন্ম ও মৃত্যু সনদ প্রদানের কাজটি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন করে থাকে। ঢাকার ১০ টি আঞ্চলিক অফিস থেকেই জন্ম সনদ প্রদান করা হলেও মৃত্যু সনদের জন্য কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে হয়। জন্ম ও মৃত্যু সনদের জন্য নির্ধারিত ফরমে আবেদন করতে হয়। আবেদন পত্র গ্রহণ সাপেক্ষে অনধিক ১৫ দিনের মধ্যে সনদ প্রদান করা হয়ে থাকে।

 

গৃহপালিত জীব-জন্তু রেজিষ্ট্রেশন

সংশ্লিষ্ট পশুর কাগজপত্র ও ফি প্রদান সাপেক্ষে ১ দিনের মধ্যে গৃহপালিত পশুর (কুকুর, হরিন ইত্যাদি) রেজিষ্ট্রেশন / লাইসেন্স করা যায়।

 

হাসপাতাল ও মাতৃসদনের ঠিকানা

ঢাকা মহানগর শিশু হাসপাতাল

৪/১, গৌর সুন্দর রায় লেন, লালবাগ, ঢাকা।

তত্ত্বাবধায়ক: ফোন নং ৭৩১৯৭৩৬

 

নাজিরা বাজার মাতৃসদন

নাজিরা বাজার, ঢাকা।

পরামর্শক (গাইনী) কাম প্রশাসক: ফোন নং ৯৫৫৮৪৪৪

 

ঢাকা মহানগর জেনারেল হাসপাতাল

নয়াবাজার ঢাকা।

পরিচালক: ফোন নং ৭৩৯০৮৬০

 

নগর পরিকল্পনা বিভাগ

বহুতল ভবন নির্মাণের ছাড়পত্র

  • ঢাকা সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ছয় তলার উর্ধ্বে ভবন নির্মাণের জন্য ডিসিসির কাছ থেকে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও গাড়ী পার্কিং সংক্রান্ত ছাড়পত্র সংগ্রহ করতে হয়। এজন্য রাজউকের “এককেন্দ্রিক সেবাসেল’র মাধ্যমে কাগজপত্র দাখিল করে ৫০ টাকা চালানের মারফত আবেদন ফরম সংগ্রহ করতে হবে। আবেদনের সাথে হালনাগাদ হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধের ফটোকপি, দলিলের কপি/পাওয়ার অব এটর্নীর কপি, নকশা এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও ভবন নির্মাণ সংক্রান্ত অঙ্গীকারনামা প্রদান করতে হবে। সকল কাগজপত্র জমা দেওয়ার ১০ দিনের মধ্যে ডিসিসির ছাড়পত্র পাওয়া যায়।

 

ওয়ার্ডভিত্তিক মানচিত্র

  • ২৩´৩৬ ইঞ্চি সাইজের কাগজে ডি.সি.সি এর পূর্ণাঙ্গ ও প্রতিটি ওয়ার্ডের মানচিত্র ২০০ টাকা চালানের মাধ্যমে সোনালী ব্যাংক নগর ভবন শাখায় জমা দিয়ে নগর পরিকল্পনা বিভাগ থেকে সংগ্রহ করা যায়। মানচিত্র সংগ্রহের সময় চালানের অফিস কপি প্রদান করতে হয়।

 

ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন বিভাগের যোগাযোগ নম্বর

পদবী

যোগাযোগের নম্বর

মেয়র

9563512, 9567932

প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তর

9563510

সচিবের দপ্তর

9563507

প্রধান প্রকৌশলীর দপ্তর

9567763

প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তার দপ্তর

9557964

প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তার দপ্তর

9556017

প্রধান হিসাব রক্ষন কর্মকর্তার দপ্তর

9566709

প্রধান পরিচ্ছন্নতা কর্মকর্তার দপ্তর

9556016

প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তার দপ্তর

9565986

মহা-ব্যবস্থাপক (পরিবহন)

9565572

প্রধান ভান্ডার ও ক্রয় কর্মকর্তার দপ্তর

9565977

প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তার দপ্তর

9563447

প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদের দপ্তর

7110241

প্রধান সমাজকল্যান কর্মকর্তার দপ্তর

9567609

প্রধান বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তার দপ্তর

9550966

আইন কর্মকর্তার দপ্তর

9559271

 


আপলোড: ১৪/১০/২০১২

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
ডি.সি.সি উত্তর ও দক্ষিণের আঞ্চলিক কার্যালয়গুলোর এলাকাঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) উত্তর ও দক্ষিণের আঞ্চলিক কার্যালয়গুলোর এলাকা
ঢাকা সিটির থানাগুলোঢাকা সিটির থানাগুলো সম্পর্কে এখানে বলা হয়েছে
ঢাকা সিটি কর্পোরেশন দক্ষিণ (ডি.সি.সি.সি)বিভিন্ন সেবা সম্পর্কে তথ্য রয়েছে
ঢাকা নগর ভবন (দক্ষিণ)বিভিন্ন সেবা সম্পর্কে তথ্য রয়েছে
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি