পূর্ববর্তী লেখা  
পুরো লিস্ট দেখুন

সেলিনা পারভীন

সেলিনা পারভীন পাকিস্তান আমলে একজন নির্ভিক কলম সৈনিক ছিলেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত সাংবাদিকতা করেছেন। জীবদ্দশায় তিনি বেগম, সাপ্তাহিক ললনা এবং শিলালিপি পত্রিকায় কাজ করেছেন।

 

জন্ম

৩১ মার্চ, ১৯৩১ সালে ফেনীতে জন্মগ্রহণ করেন সেলিনা পারভীন।  

 

 

পারিবারিক জীবন

  • পিতা মো: আবিদুর রহমান শিক্ষকতা করতেন ।
  • ছোটবেলা থেকেই তিনি সাহিত্যের অনুরাগী হয়ে গল্প ও কবিতা লেখা শুরু করেন।
  • মাত্র ১৪ বছর বয়সে তাঁর অমতে পরিবার থেকে বিয়ে দেয়া হয় । সেই বিয়ে টিকেছিল মাত্র ১০ বছর।
  • পরবর্তীতে পড়ালেখা শুরু করেন কিন্তু মেট্রিকুলেশনে পাশ করতে পারেননি সেলিনা পারভীন।
  • ১৯৫৯ সালে ঢাকায় এসে বিয়ে করেন। তাদের একমাত্র সন্তান সুমন।

 

সাংবাদিক জীবন

  • ১৯৫৮ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল- এ হল পরিচালকের দায়িত্ব নেন। এক বছর পর এই চাকুরী ছেড়ে দেন।
  • তৎকালীন ললনা পত্রিকায় বিজ্ঞাপন বিভাগে চাকুরী নেন ৷ বিজ্ঞাপন সংগ্রহ এবং টাকা তোলার কাজ করতেন৷
  • এরপর বেগম পত্রিকায় লেখালেখি করতেন।  
  • ১৯৬৯ সালে বন্ধু ও শুভানুধ্যায়ীদের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে বের করেন শিলালিপি নামে একটি পত্রিকা ৷
  • পত্রিকাটির সম্পাদনা ও প্রকাশনার দায়িত্ব পালন করেন সেলিনা পারভীন নিজেই ৷
  • তখনকার স্বাধীনতার স্বপক্ষের প্রায় সকল বুদ্ধিজীবীদের লেখা নিয়ে প্রকাশিত হতো শিলালিপি পত্রিকাটি।
  • ফলে বুদ্ধিজীবি মহলে ব্যাপক পরিচিতি অর্জন করেন সেলিনা পারভীন।  
  • মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে শিলালিপির উপরও নেমে আসে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর থাবা। হাসেম খানের প্রচ্ছদ করা শিলালিপির প্রকাশিতব্য একটি সংখ্যা নিষিদ্ধ করে পাকিস্তান সরকার৷
  • শর্ত সাপেক্ষে আবার শিলালিপি প্রকাশের অনুমতি দেয় পাকিস্তান সরকার।
  • ৭১ সালের আগষ্ট-সেপ্টেম্বরে তাঁর সম্পাদনায় বের করেন শিলালিপির শেষ সংখ্যা। কিন্তু এর আগের সংখ্যাই স্বাধীনতার স্বপক্ষের বুদ্ধিজীবীদের লেখা দিয়ে বের করায় আবার পাকিস্তান সরকারের রোষানলে পরেন সেলিনা পারভীন।

 

স্বাধীকার আন্দোলন

  • ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের আন্দোলনে যোগ দেন সেলিনা পারভীন।
  • '৬৯-এর ২১ ফেব্রুয়ারির জনসভা এবং শহীদ মিনার থেকে বের হওয়া নারীদের মিছিলে যোগ দিয়েছিলেন ছেলে সুমনকে সাথে নিয়ে।  
  • ৭১’র মুক্তিযুদ্ধ চলার সময় তাঁর বাসায় মাঝে মাঝে তরুণ মুক্তিযোদ্ধা এসে রাতের খাবার খেয়ে চলে যেতেন।
  • মুক্তিযোদ্ধাদের যাওয়ার সময় তাদের হাতে ঔষধ, পরিধেয় বস্ত্র এবং নগদ অর্থ তুলে দিতেন৷
  • শিলালিপির বিক্রয়লব্ধ অর্থ দিয়েই তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতা করতেন৷

 

মৃত্যু

  • ১৩ ডিসেম্বর, ১৯৭১ সালে সিদ্ধেশ্বরীর বাসা থেকে আল-বদর বাহিনীর সদস্যরা ধরে নিয়ে যায় সেলিনা পারভীনকে। সে সময় বাসায় ছিল তার সন্তান সুমন, মা এবং ভাই উজির।
  • ধারনা করা হয় ১৪ ডিসেম্বর অন্যান্য বুদ্ধিজীবীদের সাথে তাকেও আল-বদর বাহিনী লোকেরা হত্যা করে।
  • ১৮ ডিসেম্বর সেলিনা পারভীনের ক্ষত বিক্ষত মৃতদেহ রায়েরবাজার বধ্যভূমিত থেকে সনাক্ত করে তার মা ও ভাই৷
  • ১৮ ডিসেম্বরই তাঁকে আজিমপুর কবরস্থানে শহীদদের জন্য সংরক্ষিত স্থানে সমাহিত করা হয়৷
 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
আনিসুল হকবর্তমান সময়ের মেধাবী সাংবাদিক
আবেদ খানদীর্ঘ ৪৯ বছর ধরে সাংবাদিকতার জড়িত রয়েছেন
শফিক রেহমানযায়যায় দিন খ্যাত জনপ্রিয় সাংবাদিক ও টিভি ব্যক্তিত্ব
তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়াদৈনিক ইত্তেফাকের প্রতিষ্ঠাতা এবং বাংলাদেশে সাংবাদিকতার পথিকৃৎ
এনায়েতউল্লাহ খানএদেশে ইংরেজী সাংবাদিকতায় পথিকৃৎদের একজন
ওয়াহিদুল হকপ্রগতিশীল ঘরনার সাংবাদিক
সেলিনা পারভীনপাকিস্তান আমলে স্বাধীনতার পক্ষে নির্ভিক কলম সৈনিক।
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি