পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

উত্তম কুমার

চল্লিশের দশকের শেষভাগে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করা উত্তম কুমার বাংলা চলচ্চিত্রের সর্বকালের সর্বসেরা অভিনেতাদের একজন। চল্লিশের দশক থেকে পরবর্তী তিন দশকেরও বেশি সময় জুড়ে তার মাথাতেই শোভা পেয়েছে বাংলা চলচ্চিত্রের মুকুট। নায়ক শব্দের আগে ‘মহা’ শব্দটি যোগ হয়েছিল ১৯৭০ সালের পর থেকে। এটা কোনো আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি ছিল না। জনসাধারণের ভালোবাসা আর মুগ্ধতা থেকেই এই শব্দটি জন্ম নিয়েছিল। ক্রমেই উত্তম কুমারের নামের পাশে এই বিশেষণটি স্থায়ী হয়ে গেল।

 

জন্ম:

মহানায়ক উত্তম কুমার ১৯২৬ সালের ৩ রা সেপ্টেম্বর কলকাতার অহেরিটোলা স্ট্রিটে, মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তার প্রকৃত নাম অরুণ কুমার চট্টোপাধ্যায়। পরবর্তীতে নাম পালটে রাখেন উত্তম কুমার।

 

পড়াশোনা:

উত্তম কুমার কলকাতার সাউথ সাবারবান স্কুল থেকে মেট্রিকুলেশন পাশ করে গোয়েঙ্কা কলেজে ভর্তি হন। তবে কলকাতা পোর্টে কেরাণীর চাকরিতে যোগ দানের কারণে পড়াশোনা আর চালিয়ে যেতে পারেননি।

 

চলচ্চিত্র জীবন:

মহানায়ক উত্তম কুমারের ক্যারিয়ারের প্রথম দিকটা ছিল ভয়ঙ্কর। ফ্লপ এবং ফ্লপ। হাত থেকে কনট্রাক্টের কাগজ ছিনিয়ে নিয়েছেন প্রযোজক। মুখের ওপর বলে দিয়েছেন, ‘কিছু মনে করবেন না, আপনার চেহারাটা নায়কোচিত নয়’। এরকম এক অবস্থা থেকে তিনি হয়ে উঠেছেন বাংলা চলচ্চিত্রের মহানায়ক।

 

১৯৪৮ সালে নীতিন বসুর ‘মায়াডোর’ নামে চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় উত্তম কুমারের। তবে এই চলচ্চিত্রটি পরবর্তীতে মুক্তি পায় নি। এই চলচ্চিত্রে কাজ করে দৈনিক পাঁচ সিকি পেতেন উত্তম কুমার।  উত্তম কুমার অভিনীত প্রথম মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রের নাম “দৃষ্টিদান”। শুরুর দশকে উত্তম কুমারের চলচ্চিত্রগুলো দর্শক হৃদয়ে তেমন সাড়া জাগাতে পারেনি। ১৯৫২ সালে ‘বসু পরিবার’ চলচ্চিত্রটির মাধ্যমে উত্তম কুমার জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। সে বছর উত্তম কুমারের “সঞ্জীবনী” নামে অপর একটি চলচ্চিত্র মুক্তি পায়। ১৯৫৩ সালে সুচিত্রা সেনের সাথে জুটি বেঁধে ‘সাড়ে চুয়াত্তর’ নামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। পরবর্তী সময়ে উত্তম – সুচিত্রা জুটি বাংলা চলচ্চিত্রকে একচেটিয়া শাসন করেন। উত্তম কুমার বহু সফল বাংলা চলচ্চিত্রের পাশাপাশি বেশ কয়েকটি হিন্দি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছিলেন। তাঁর অভিনীত হিন্দি চলচ্চিত্রের মধ্যে ছোটিসি মুলাকাত, অমানুষ এবং আনন্দ আশ্রম অন্যতম।    

 

পারিবারিক জীবন:

উত্তম কুমার বিয়ে করেন ১৯৫০ সালের ১ জুন পদ্ম পুকুরের বাসিন্দা গৌরী দেবীকে। একমাত্র ছেলে গৌতমের জন্ম ১৯৫১ সালে।

 

মৃত্যু:

সুদীর্ঘ বর্ণাঢ্য এক চলচ্চিত্র জীবন শেষে ১৯৮০ সালের ২৪ জুলাই উত্তম কুমার মৃত্যুবরণ করেন।

 

উত্তম কুমার অভিনীত বাংলা চলচ্চিত্রগুলো:

দৃষ্টিদান (১৯৪৮), কামনা (১৯৪৯), মর্যাদা (১৯৫০), সহযাত্রী (১৯৫১), ওরে যাত্রী (১৯৫১), নষ্টনীড় (১৯৫১), সঞ্জীবনী (১৯৫২), বসু পরিবার (১৯৫২), কার পাপে (১৯৫২), সাড়ে চুয়াত্তর (১৯৫৩), নবীন যাত্রা (১৯৫৩), লাখ টাকা (১৯৫৩), বৌ ঠাকুরানীর হাট (১৯৫৩), সদানন্দের মেলা (১৯৫৪), ওরা থাকে ওধারে (১৯৫৪), মনের ময়ূর (১৯৫৪), মরণের পারে (১৯৫৪), মন্ত্র শক্তি (১৯৫৪), কল্যাণী (১৯৫৪), গৃহপ্রবেশ (১৯৫৪), চাঁপাডাঙার বউ(১৯৫৪), ব্রতচারিনী (১৯৫৪), বকুল (১৯৫৪), বিধিলিপি (১৯৫৪), অনুপমা (১৯৫৪), অন্নপূর্ণার মন্দির (১৯৫৪), অগ্নিপরীক্ষা (১৯৫৪), সাঁঝের প্রদীপ (১৯৫৫), উপহার (১৯৫৫), শাপ মোচন (১৯৫৫), হ্রদ (১৯৫৫), সবার উপরে (১৯৫৫), কঙ্কাবতীর ঘাট (১৯৫৫), রাইকমল (১৯৫৫), দেবত্র (১৯৫৫), ত্রিযামা(১৯৫৬), শ্যামলী (১৯৫৬), শিল্পী (১৯৫৬), শঙ্কর নারায়ন ব্যাঙ্ক (১৯৫৬), সাহেব বিবি গোলাম (১৯৫৬), সাগরিকা (১৯৫৬), রাতভোরে(১৯৫৬), পুত্রবধূ (১৯৫৬), নবজন্ম (১৯৫৬), লক্ষ হীরা (১৯৫৬), একটি রাত (১৯৫৬), চিরকুমার সভা (১৯৫৬), জীবন তৃষ্ণা (১৯৫৭), অভয়ের বিয়ে (১৯৫৭), তাসের ঘর (১৯৫৭), যাত্রা হল শুরু (১৯৫৭), হারজিৎ (১৯৫৭), সুরের পরশে (১৯৫৭), পুনর্মিলন (১৯৫৭), পৃথিবী আমারে চায় (১৯৫৭), পথে হল দেরি (১৯৫৭), হারানো সুর (১৯৫৭), চন্দ্রনাথ (১৯৫৭), বড়দিদি (১৯৫৭), শিকার (১৯৫৮), বন্ধু (১৯৫৮), সূর্যতোরণ (১৯৫৮), মানময়ী গার্লস স্কুল (১৯৫৮), ইন্দ্রাণী (১৯৫৮), ডাক্তার বাবু (১৯৫৮), রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত (১৯৫৮), যৌতুক (১৯৫৮), অবাক পৃথিবী (১৯৫৯), সোনার হরিন (১৯৫৯), পুষ্পধনু (১৯৫৯), বিচারক (১৯৫৯), চাওয়া পাওয়া (১৯৫৯), মরুতীর্থ হিংলাজ (১৯৫৯), খেলাঘর (১৯৫৯), গলি থেকে রাজপথ (১৯৫৯), শহরের ইতিকথা (১৯৬০), শখের চোর (১৯৬০), খোকাবাবুর প্রত্যাবর্তন (১৯৬০), উত্তর মেঘ (১৯৬০), শুন বরনারী (১৯৬০), রাজা সাজা (১৯৬০), মায়া মৃগ (১৯৬০), কুহক (১৯৬০), হাত বাড়ালে বন্ধু (১৯৬০), নেকলেস (১৯৬১),  ঝিন্দের বন্দী (১৯৬১), অগ্নিসংস্কার (১৯৬১), সাথী হারা (১৯৬১), সপ্তপদী (১৯৬১), দুই ভাই (১৯৬১), শিউলিবাড়ি (১৯৬২), বিপাশা (১৯৬২), কান্না (১৯৬২), দেয়া নেয়া (১৯৬৩), ভ্রান্তিবিলাস (১৯৬৩), নিশীথে (১৯৬৩), উত্তরায়ণ (১৯৬৩), সূর্যশিখা (১৯৬৩), শেষ অঙ্ক (১৯৬৩), লাল পাথর (১৯৬৪), নতুন তীর্থ (১৯৬৪), বিভাস (১৯৬৪), মোমের আলো (১৯৬৪), জতুগৃহ (১৯৬৪), রাজকন্যা (১৯৬৫), থানা থেকে আসছি (১৯৬৫), সূর্যতপা (১৯৬৫), রাজদ্রোহী (১৯৬৬), শঙ্খবেলা (১৯৬৬), শুধু একটি বছর (১৯৬৬), নায়ক (১৯৬৬), কাল তুমি আলেয়া (১৯৬৬), জীবন মৃত্যু (১৯৬৭), নায়িকা সংবাদ (১৯৬৭), চিড়িয়াখানা (১৯৬৭), ছোটিসি মুলাকাত (১৯৬৭), অ্যান্টনি ফিরিঙ্গী (১৯৬৭), গৃহদাহ (১৯৬৭), গড় নাসিমপুর (১৯৬৮), তিন অধ্যায় (১৯৬৮), কখনো মেঘ (১৯৬৮), চৌরঙ্গী (১৯৬৮), শুকসারী (১৯৬৯), মন নিয়ে (১৯৬৯), সবরমতী (১৯৬৯), চিরদিনের (১৯৬৯), অপরিচিত (১৯৬৯), কমললতা (১৯৬৯), রাজকুমারী (১৯৭০), দুটি মন (১৯৭০), বিলম্বিত লয় (১৯৭০), মঞ্জরী অপেরা (১৯৭০), কলঙ্কিত নায়ক (১৯৭০), নিশিপদ্ম(১৯৭০), নবরাগ (১৯৭১), জীবন জিজ্ঞাসা (১৯৭১), এখানে পিঞ্জর (১৯৭১), জয় জয়ন্তী (১৯৭১), ধন্যি মেয়ে(১৯৭১), ছদ্মবেশী (১৯৭১), আলো আমার আলো (১৯৭১), ছিন্ন পত্র (১৯৭২), স্ত্রী(১৯৭২), বিরাজ বৌ (১৯৭২), অন্ধ অতীত (১৯৭২), মেম সাহেব (১৯৭২), হার মানা হার(১৯৭২), রাতের রজনীগন্ধা (১৯৭৩), রৌদ্র ছায়া (১৯৭৩), সোনার খাঁচা (১৯৭৩), কায়াহীনের কাহিনী (১৯৭৩), বনপলাশীর পদাবলী (১৯৭৩), রোদন ভরা বসন্ত (১৯৭৪), আলোর ঠিকানা (১৯৭৪), রক্ত তিলক (১৯৭৪), বিকেলে ভোরের ফুল (১৯৭৪), যদু বংশ (১৯৭৪), যদি জানতেম (১৯৭৪), প্রিয় বান্ধবী (১৯৭৫), নগর দর্পনে (১৯৭৫), আমি সে ও সখা (১৯৭৫), কাজললতা (১৯৭৫), মৌচাক (১৯৭৫), অগ্নীশ্বর (১৯৭৫), বাঘবন্দী খেলা (১৯৭৫), সন্ন্যাসী রাজা (১৯৭৫), অমানুষ (১৯৭৫), মোমবাতি (১৯৭৬), চাঁদের কাছাকাছি (১৯৭৬), আনন্দমেলা (১৯৭৬), হোটেল স্নোফক্স (১৯৭৬), নিধিরাম সর্দার (১৯৭৬), বহ্নিশিখা (১৯৭৬), সেই চোখ (১৯৭৬), সিস্টার(১৯৭৭), ভোলা ময়রা(১৯৭৭), রাজবংশ(১৯৭৭), সব্যসাচী (১৯৭৭), আনন্দ আশ্রম (১৯৭৭), কিতাব (১৯৭৭), ধনরাজ তামাং (১৯৭৮), নিশান (১৯৭৮), বন্দী (১৯৭৮), দুই পুরুষ (১৯৭৮), নব দিগন্ত (১৯৭৯), সুনয়নী (১৯৭৯), ব্রজবুলি (১৯৭৯), সমাধান (১৯৭৯), শ্রীকান্তের উইল (১৯৭৯), দুরিয়াঁ (১৯৭৯), দেবদাস (‌১৯৭৯), প্রতিশোধ (১৯৮০), খনা বরাহ (১৯৮০), আরো একজন (১৯৮০), দর্পচূর্ণ (১৯৮০), পক্ষীরাজ (১৯৮০), রাজা সাহেব (১৯৮০), দুই পৃথিবী (১৯৮০), সূর্যসাক্ষী(১৯৮১),  ইমন কল্যাণ (১৯৮১), ওগো বধূ সুন্দরী (১৯৮১), কলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (১৯৮১), প্লট নাম্বার ৫ (১৯৮১), উত্তম কুমার অভিনীত হিন্দি চলচ্চিত্র ছোটিসি মুলাকাৎ (১৯৬৭),  দেশপ্রেমী (১৯৮২), মেরা করম মেরা ধরম (১৯৮৭),  উত্তম কুমার পরিচালিত চলচ্চিত্রকলঙ্কিনী কঙ্কাবতী (১৯৮১), বনপলাশীর পদাবলী (১৯৭৩), শুধু একটি বছর (১৯৬৬), উত্তম কুমার প্রযোজিত চলচ্চিত্র গৃহদাহ (১৯৬৭), ছোটিসি মুলাকাত (১৯৬৭), হারানো সুর (১৯৫৭)

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
মিষ্টি জান্নাততার জীবনের খুঁটিনাটি কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে
মারজান জেনিফাতার জীবনের খুঁটিনাটি কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে
তিশা-ফারুকীর প্রেমকাহিনীপ্রথম পরিচয়, প্রেম, বিয়ে সহ সকল তথ্য রয়েছে
আমব্রিনতার জীবনের খুঁটিনাটি কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে
সানিতাতার সম্পর্কে খুঁটিনাটি কিছু তথ্য তুলে ধরা হয়েছে
সোনিয়া হোসেনতার সম্পর্কে খুঁটিনাটি কিছু তথ্য তুলে ধরা হয়েছে
মারিয়া চৌধুরীতার জীবনের খুঁটিনাটি কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে
পিয়া বিপাশাতার জীবনের খুঁটিনাটি কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে
বিপাশা কবিরতার জীবনের খুঁটিনাটি কিছু বিষয় তুলে ধরা হয়েছে
সাফা কবিরতার সম্পর্কে খুঁটিনাটি তথ্য তুলে ধরা হয়েছে
আরও ১১১ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি