পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

সামরিক জাদুঘর

বাংলাদেশের সামরিক বাহিনীর ইতিহাস, ঐতিহ্য, সাফল্য এবং মুক্তিযুদ্ধে সামরিক বাহিনীর কর্মকাণ্ড ও বিশ্বে বিভিন্ন মিশনের সফলতা সহ বিভিন্ন অস্ত্র-শস্ত্রের সংগ্রহ নিয়ে সামরিক জাদুঘরটি সজ্জিত। ১৯৮৭ সালে ঢাকার মিরপুর সেনানিবাসের প্রবেশদ্বারে প্রথম সামরিক জাদুঘরটি প্রতিষ্ঠিত হয়। সামরিক জাদুঘরের গুরুত্ব এবং দর্শকদের চাহিদার কথা বিবেচনা করে ১৯৯৯ সালে জাদুঘরটি স্থায়ীভাবে ঢাকার বিজয় সরণিতে স্থানান্তর করা হয়।

 

জাদুঘরের প্রবেশদ্বার
সামরিক জাদুঘরের গেট দিয়ে ভেতরে ঢুকতেই চোখে পড়বে ট্যাংক পিটি-৭৬। রাশিয়ার তৈরি এই ট্যাংকটি পানিতেও ভেসে চলতে সক্ষম। এই ট্যাংকটি ১৯৭১-এর স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এলাকা থেকে বাংলাদেশ বাহিনী কর্তৃক পাকিস্তান দখলদার-বাহিনীর নিকট হতে উদ্ধার করা হয়।

 

জাদুঘরের মাঠের উত্তর পূর্ব দিক
সামরিক জাদুঘরের মাঠের উত্তর ও পূর্ব দিক দিয়ে সুসজ্জিত ভাবে আরও ১৬টি ট্যাংক ও কামান প্রদর্শিত হচ্ছে। এগুলো খোলা আকাশের নীচে কেবল পাকাভিটি করে রাখা হয়েছে। এর মধ্যে আছে -

  • ৭৫ মি. মি. প্যাক হাউগান
  • ট্যাংক এ আর ভি মার্ক-টু শেরমান এম-৩২ বি-১
  • ট্যাংক ক্রুইজার আর এ এম জিপিও সেক্সটন
  • ট্যাংক ক্রুইজার মিডিয়াম ৭৬ মি. মি. গান মার্ক-টু শেরমান
  • মোটর গ্যারেজ ৪০ মি. মি. সাপোর্ট ক্রুইন এম ১৯ এ১, ১৭ পাউন্ডার ট্যাংক বিধ্বংসী গান
  • ২৫ পাউন্ডার গান
  • এস পি আর্টিলারী ২৫ পাউন্ডার সেঞ্জটন এম-৫
  • ৩৭ মি. মি. কামানসহ ট্যাংক হালকা স্টুয়ার্ড মার্ক-৪ (পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সৌজন্যে প্রাপ্ত বলে পরিচিতি পর্বে উল্লেখ করা হয়েছে)

 

জাদুঘরের মাঠের পূর্ব প্রান্ত
জাদুঘরের মাঠের পূর্ব প্রান্ত দিয়ে সারিবদ্ধ ভাবে প্রদর্শিত হচ্ছে –

  • দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্যবহৃত ১০৫/৫২ সি এম ক্রুপ গান
  • ১৯৭৩ সালে মিসর কর্তৃক আরব-ইসরাইল যুদ্ধে ব্যবহৃত ব্যারেল ১০০ মি. মি. ট্যাংক গান
  • অষ্টাদশ শতাব্দীর ৬টি ছোট-বড় কামান

 

জাদুঘরের মাঠের উত্তর-পশ্চিম দিক
মাঠের উত্তর-পশ্চিম দিকে প্রদর্শিত হচ্ছে মোটর লঞ্চ ‘এম এল সূর্যোদয়'। জাপান সরকার এটি অনুদান হিসেবে দেয়।

 

জাদুঘরের বিভিন্ন গ্যালারি
মূল জাদুঘর ভবনের দোতলায় রয়েছে ৮টি গ্যালারি। গ্যালারিগুলোতে আছে -

  • প্রথম গ্যালারিতে – হাত-কুঠার, তীর, ধনুকসহ আদিম যুগের অস্ত্রশস্ত্র প্রদর্শিত হচ্ছে।
  • দ্বিতীয় গ্যালারিতে – ডিবিবিএল গান, এসবিবিএল গান, বিশেষ ব্যক্তিবর্গের ব্যবহৃত হাতিয়ারসহ যুদ্ধাস্ত্র।
  • তৃতীয় গ্যালারিতে – এলএমজি, এসএমজিসহ মাঝারি অস্ত্র।
  • চতুর্থ গ্যালারিতে – মর্টার, স্প্যালো, এইচএমজিসহ ভারী অস্ত্র সর্বসাধারণের জন্য প্রদর্শন করা হচ্ছে।
  • পঞ্চম গ্যালারিতে প্রদর্শিত হচ্ছে – সশস্ত্র-বাহিনীর শীত ও গ্রীষ্মকালীন পোশাক-পরিচ্ছদ, র‌্যাঙ্ক, ব্যাজ, ফিতা ইত্যাদি।
  • ষষ্ঠ গ্যালারিতে (‘মুক্তিযুদ্ধ' শীর্ষক) প্রদর্শিত হচ্ছে – মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার-বাহিনীর আত্মসমর্পণ দলিল, সেক্টর কমান্ডারগণের পোর্ট্রেট, কিছু ব্যবহার্য বস্তু ইত্যাদি।
  • সপ্তম গ্যালারির নাম দেয়া হয়েছে ‘বিজয় গ্যালারি'। এতে সশস্ত্র বাহিনীর যেসব ব্যক্তি মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন দিয়েছেন সেসব বীরশ্রেষ্ঠদের পোর্ট্রেট ও সংক্ষিপ্ত জীবনী প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
  • অষ্টম গ্যালারিতে রয়েছে প্রাক্তন সকল সেনাপ্রধানের তৈলচিত্র, বীরশ্রেষ্ঠ-বীরপ্রতীকদের নামের তালিকা ইত্যাদি।

 

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়কের জিপ

জাদুঘর ভবনের নীচতলায় প্রদর্শিত হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক জেনারেল এম এ জি ওসমানী যে গাড়িটি নিয়ে বিভিন্ন যুদ্ধ এলাকা পরিদর্শন করেন সেই জিপ গাড়িটি। ‘যশোর ব ১৪৬' নম্বর-ধারী এই গাড়িটির স্ট্যান্ড-বোর্ডে বলা হয়েছে, এটি ১/৪ টন ৪×৪ কাইজার উইলিজ জিপ ওয়াগানার। (এটি যশোর শিক্ষা বোর্ডের সৌজন্যে প্রাপ্ত)

এর পাশাপাশি রয়েছে গোলন্দাজ-বাহিনী কর্তৃক ব্যবহৃত –

  • ১৪.৫ মি. মি. কোয়াড বিমান বিধ্বংসী কামান
  • ১২০ মি. মি. মর্টার ব্রান্ডেট এ এম-৫০
  • ১৯৭১ সালে পাকিস্তান বাহিনীর ব্যবহৃত ৬ পাউন্ডার ট্যাংক বিধ্বংসী কামান
  • ১০৬ মি. মি. রিকয়েললেস রাইফেল (আর আর)
  • জিপ জি এস-উইলিস ৪/৪ মডেল এম ৩৮ এ-১ ইত্যাদি।

 

মুজিব কর্নার
সামরিক জাদুঘরের নীচ তলায় পশ্চিম পাশের কক্ষে একাংশে সম্প্রতি স্থাপন করা হয়েছে মুজিব কর্নার। এখানে স্বাধিকার আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত ৩০টি আলোকচিত্র অঙ্কিত আছে।

 

স্টাফ কার
জাদুঘরের আরেক আকর্ষণ হলো পাক সেনাবাহিনী থেকে উদ্ধারকৃত স্টাফ কার মার্সিডিজ বেঞ্জ ও সিলিন্ডার ২০০০ সি সি। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তৎকালীন প্রধান, পরবর্তীতে প্রেসিডেন্ট লে. জে. জিয়াউর রহমান বীর উত্তম এটি ব্যবহার করতেন।

 

অবস্থান
ঢাকা শহরের বিজয় সরণীতে বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটারের পশ্চিম পাশে সামরিক জাদুঘরটি অবস্থিত।

 

টিকেট সময়সূচী

  • এই জাদুঘরে প্রবেশের জন্য কোন টিকেট লাগে না।
  • সপ্তাহের পাঁচ দিন শনিবার, রবিবার, সোমবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার জাদুঘর খোলা থাকে।
  • গ্রীষ্মকালে সকাল ১০.৩০ টা থেকে সন্ধ্যা ৬.৩০ টা পর্যন্ত খোলা থাকে।
  • শীতকালে ১০ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত খোলা থাকে।
  • বুধবার এবং শুক্রবার জাদুঘরটি বন্ধ থাকে।
  • ফোন: (৮৮০-২) - ৯৮৭০০১১, (৮৮০-২) - ৮৭৫০০১১; এক্সটেনশন: ৭৫৪২  

 

আপলোডের তারিখ২৮ জুন ২০১৫

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরদেশীয় ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির নানা নিদর্শনের প্রদর্শনী
ভাষা আন্দোলন জাদুঘরভাষা আন্দোলনের ঐতিহাসিক জিনিস গুলো সংরক্ষিত আছে
আহসান মঞ্জিলঢাকার নবাবদের প্রাসাদ ও দরবার হল
লালবাগ কেল্লামোঘল আমলে প্রতিষ্ঠিত দূর্গ
শহীদ বরকত জাদুঘরভাষা শহীদ আবুল বরকতের স্মৃতি স্মরণে
মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরমহান মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন নিদর্শন স্থল
সামরিক জাদুঘরএই জাদুঘর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে
বিমান বাহিনী জাদুঘরঢাকার আগারগাঁওয়ের বিমান বাহিনী জাদুঘর পরিদর্শনে প্রয়োজনীয় তথ্য
টাকা জাদুঘরএই জাদুঘর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্মৃতি জাদুঘরস্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতার স্মৃতিচারণ স্বরূপ
আরও ২ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি