পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

লালবাগ কেল্লা

Lalbag Kella, Online Dhaka Guideলালবাগ কেল্লা পুরাতন ঢাকার লালবাগে অবস্থিত। সম্রাট আওরঙ্গজেব তার শাসনামলে লালবাগ কেল্লা নির্মাণের ব্যবস্থা করেন। সম্রাট আওরঙ্গজেবের পুত্র যুবরাজ শাহজাদা আজম ১৬৭৮ খ্রিষ্টাব্দে এই প্রাসাদ দূর্গের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। তৎকালীন লালবাগ কেল্লার নামকরণ করা হয় আওরঙ্গবাদ কেল্লা বা আওরঙ্গবাদ দূর্গ। পরবর্তীতে সুবাদার শায়েস্তা খাঁনের শাসনামলে ১৬৮৪ খিষ্টাব্দে নির্মাণ কাজ অসমাপ্ত রেখে দূর্গটি পরিত্যাক্ত হয়। সে সময়ে নতুন ভাবে আওরঙ্গবাদ কেল্লা বাদ দিয়ে লালবাগ কেল্লা নামকরণ করা হয়। যা বর্তমানে প্রচলিত।

 

 

 

 

দর্শনীয় জিনিস

বর্গাকৃতির সুউচ্চ প্রাচীর ঘেরা লালবাগ কেল্লার প্রথমেই নজরে আসে বিশাল তোরন/ফটক। লালবাগ কেল্লায় মোট তিনটি ফটক আছে যার মধ্যে দুইটি বর্তমানে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ভেতরে প্রবেশ করলেই বাগান ঘেরা পরিবেশ দর্শনার্থীদের মনে আনন্দ দেয়। সোজা একটু ভেতরেই শায়েস্তা খাঁনের প্রিয় কন্যা পরীবিবির সমাধি সৌধ। ১৬৮৭-৮৮ খ্রিষ্টাব্দের কোন এক সময় পরিবিবি মৃত্যুবরণ করেন। তার স্মৃতি ধরে রাখার জন্য শায়েস্তা খাঁন ব্যায়বহুল একটি সমাধি সৌধ তৈরী করেন। এই একটি মাত্র ইমারত মার্বেল পাথর, কষ্টি পাথর ও বিভিন্ন রংয়ের ফুল, পাতা সুশোভিত চাকচিক্যময় টালির সাহায্যে অভ্যন্তরীণ নয়টি কক্ষ অলংকৃত করা হয়েছে। কক্ষগুলির ছাদ করবেল পদ্ধতিতে কষ্টি পাথরের তৈরী। মূল সমাধি সৌধের কেন্দ্রীয় কক্ষের উপরের কৃত্রিম গম্বুজটি তামার পাত দিয়ে আচ্ছাদিত। উল্ল্যেখ্য সমাধিটির সৌধ ২০.২ মিটার বর্গাকৃতির। এছাড়া নাম না জানা আরো দুইটি সমাধি এবং কয়েকটি ফোয়ারা, পাহাড়ি উচু টিলা, সুরঙ্গ পথ এবং কেল্লার দক্ষিণ এবং পশ্চিম দূর্গ প্রাচীরের নির্দিষ্ট দূরত্ব পর পর একটি করে পলকাটা তোপমঞ্চ। কেল্লার একমাত্র পুকুর। চারিদিক ঘাট বাঁধানো সিড়ির মত এবং পুকুরটি বর্গাকৃতির। পেছনে সৈনিকদের ব্যারাক যা বর্তমানে আনসার ক্যাম্প। পাহাড়ি উচু টিলার নিচে যে কক্ষগুলো পরিত্যাক্ত ছিল সেগুলোকে এখন একটি কনফারেন্স রুম বানানো হয়েছে যা কর্তৃপক্ষ ব্যবহার করেন। কয়েকটি সুরঙ্গ পথ দেখা যাবে বাইরে থেকে, এগুলোতে দর্শনার্থীদের প্রবেশ করতে দেয়া হয় না।

এছাড়াও দর্শনীয় জিনিসগুলোর মধ্যে লালবাগ কেল্লা মসজিদ, সম্রাট আওরঙ্গজেবের ৩য় পুত্র শাহজাদা আজম বাংলার সুবাদার থাকাকালীন এই মসজিদ নির্মাণ করেছিলেন ১৬৭৮-৭৯ খ্রিষ্টাব্দে। আয়তাকারে (১৯.১৯ মি: × ৯.৮৪ মি) নির্মিত তিন গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদটি এদেশের প্রচলিত মুঘল মসজিদের একটি আদর্শ উদাহরণ। বর্তমানেও মসজিদটি মুসল্লিদের নামাজের জন্য ব্যবহার হয়ে আসছে।

এছাড়া শায়েস্তা খাঁনের বাসভবনের পাশে একটি কামান/তোপ রাখা আছে যা সেই সময়ে বিভিন্ন যুদ্ধে ব্যবহার হত।

এছাড়া লালবাগ কেল্লায় সবচাইতে আকর্ষণীয় এবং দর্শনীয় যে জিনিসটি আছে তা হল সুবেদার শায়েস্তা খাঁনের বাসভবন ও দরবার হল। বর্তমানে যা লালবাগ কেল্লা জাদুঘর হিসেবে দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়েছে।

 

শায়েস্তা খানের ব্যবহৃত দ্রব্যসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে -  

  • হাম্মামখানা
  • প্রসাধনী কক্ষ
  • শৌচাগার
  • পোশাক পরিবর্তনের কক্ষ
  • গরম পানি ও বাতাস প্রবাহের চুল্লী
  • চৌবাচ্চা
  • পানি সংরক্ষনাধার ইত্যাদি।

তৎপূর্ব ও তৎকালীন সম্রাট ও শাসকদের শাসনামলে ব্যাবহৃত মুদ্রা

উল্লেখ্য সে সময়কার মুদ্রাগুলো বিভিন্ন ধাতব উপাদান দ্বারা তৈরী হত। যেমন: সোনা, রূপা, তামা, সীসা ও লোহার মিশ্রণে। মুদ্রাগুলো আকারে বর্গাকৃতির ও গোলাকার

তৎকালীন তৈজসপত্র -

  • তৎকালীন ও তৎপূর্ব মানচিত্র
  • চীনা সঞ্চয়পত্র
  • গামলা
  • পারস্যে তৈরী থালা-বাসন ও ট্রে
  • সুরাহী
  • শীলা পাথর

 

অস্ত্রসস্ত্র: মুঘল আমলে যুদ্ধে ব্যবহৃত অস্ত্রসস্ত্রগুলো নিম্নে বর্ণিত।

  • ১৭-১৮-১৯ শতকের বর্শামূল
  • বর্শাফলক
  • লোহার জালের বর্ম
  • ছোরা ও খাপ
  • তীর ও বর্ষা
  • বর্ম
  • গুপ্তি
  • তীর ও বর্ষা নিরোধক লোহার জালের পাত্র
  • ঢাল, তরবারী
  • দস্তানা
  • পারকাশন লক বন্দুক ও রাইফেল
  • হাতকুঠার
  • শিরস্ত্রান
  • বক্ষবর্ম
  • তীর ধনুক
  • ফ্লিন্ট লক পিস্তল
  • ফ্লিন্ট লক কামান
  • পারকাশন লক পিস্তল
  • সৈনিকদের পোশাক
  • রাজার পোশাক এবং সীসার গুলি

 

অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ দর্শনীয় জিনিস

* ১৭শ শতকের পারস্যে তৈরী তিনটি কার্পেট * ঝারবাতি * ল্যাম্প

* জায়নামাজ ও * সম্রাট আওরঙ্গজেবের শাসনামলে একটি মসজিদ ও বাগান তৈরীর বিবরণ লিপিবদ্ধকৃত শিলালিপি। ফারসি ভাষায় লিখিত শিলালিপিটি ১০৯৯ হিজরী ও ১৬৮৯-৯০ খিষ্টাব্দের।

 

মুঘল চিত্রকলা

* দুরদানার প্রতিকৃতি * সিংহাসনে বসা জনৈক রাজার প্রতিকৃতি * শাহজাদা আযম

শাহের প্রতিকৃতি * সিংহাসনে বসা সম্রাট আওরঙ্গজেবের প্রতিকৃতি * আসফ শাহ বাহাদুরের প্রতিকৃতি * মধুমতি অঙ্কিত একটি চিত্র * উটের নাচ * বন্যজন্তু * যুবরাজ ও রাজ তনয়ার অশ্ব চালনা * বৃক্ষ ছায়ায় চিন্তামগ্ন খাজা হাফিজ সিরাজ * আমত্যদের আঘাতে রক্তাক্ত দুটি মানুষকে অবলোকন।

 

গল্প, কাব্য, বন্দনা

* বারোজন শিয়া ইমামের প্রশন্তি * ব্যায়াজ * ক্ষতওয়া-ই-বুরহানা * দেওয়ান-ই

হাফিজ * দেবল রানী * খিজির খান * আমির খসরু * বাহার দানিস * তফসির-ই-সুরা * ইউসুফ *আদব-ই-আলমগিরি * কোরআন শরীফ * তফসির-ই-হোসেনী।

 

পটুয়ালিপিকলা ও ব্যবহার তত্ত্ব

* চুলুচ * নাস্তালিখ * তুঘরা * নাসখ * শিকাস্তা ইত্যাদি পদ্ধতিতে।

 

শাসকদের ফরমান

মো: শাহ গাজী ১১৮১ হিজরী ১৯৬৭ খ্রিষ্টাব্দে * জালালউদ্দিন মোহাম্মদ আকাবর

৯৭৬ হিজরী ১৫৬৮ খ্রিষ্টাব্দ।

পরওয়ানা

* শাহ আলম ১১৮১ হিজরী ১৭৬৯ খ্রিষ্টাব্দ। * মোহাম্মদ শাহ বাদশাহ ১১৩২ হিজরী ১৭১৯

খ্রিষ্টাব্দ। * শিকার সম্পর্কীয় ১২৫৮ হিজরী ১৮৪২ খ্রিষ্টাব্দ। এছাড়া কেল্লার দক্ষিণ-পশ্চিম টিলার কিছু অসমাপ্ত খনন কাজে নতুন ফোয়ারা ও সুইমিংপুল এবং কিছু পুরাতন শিল্প আবিষ্কৃত হচ্ছে।

 

যে কর্তৃপক্ষের তত্ত্ববধায়নে আছে তার বিবরণ

সম্রাট আওরঙ্গজেবের পুত্র শাহজাদা আজম ১৬৭৮

খ্রিষ্টাব্দে এই প্রাসাদ দূর্গের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। পরবর্তী সুবাদার শায়েস্তা খাঁনের শাসনামলে ১৬৮৪ খ্রিষ্টাব্দে নির্মাণ কাজ অসমাপ্ত রেখে দূর্গটি পরিত্যাক্ত হয়। বর্তমানে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর লালবাগ কেল্লার তত্বাবধায়নে নিয়োজিত আছেন। লালবাগ কেল্লার দক্ষিণ ফটকের বেশ কিছু জায়গা নিয়ে আনসার ক্যাম্প ও ব্যারাক গড়ে উঠেছে।

 

নিরাপত্ত কার্যক্রম

কেল্লার সার্বিক নিরাপত্তায় অফিসার ও ডিউটি অফিসার ফাইভ ষ্টার পিস্তল ও ওয়ান্থার

পিপিকে পিস্তল ব্যবহার করেন। আনসার বাহিনী চাইনিজ থ্রী নট থ্রী রাইফেল ও নিরাপত্তা প্রহরী বাঁশ ও বেতের লাঠি এবং বাঁশি ব্যবহার করেন।

 

টিকেটের মূল্য তালিকা

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

দেশী পর্যটক ও দর্শনার্থী = ১০.০০ টাকা জনপ্রতি

 

বয়সসীমা

৫ বছর বয়সের নীচে বাচ্চাদের জন্য কোন টিকেট লাগবেনা। এছাড়া সবার জন্য প্রযোজ্য।

বিদেশী পর্যটক ও দর্শনার্থী = ১০০.০০ টাকা জনপ্রতি।

 

অন্যান্য

বর্তমানে লালবাগ কেল্লা পরিচিতি একটি গাইড বই পাওয়া যায় যার মূল্য ৩১.০০ টাকা।

(বাংলায় সংকলিত)

উল্লেখ্য যে পূর্বে বিদেশী পর্যটকদের জন্য ইংরেজী সংকলন লালবাগ কেল্লা গাইড পাওয়া যেত, যা বর্তমানে পাওয়া যায় না।

গাইড বইগুলো বিভিন্ন দামে পাওয়া যায় যেত। ৩১-৩০০ টাকা পর্যন্ত। অতীতে টিকেট মূল্য ২.০০ টাকা ছিল সাধারণ দর্শনার্থী। মাঝে ৫.০০ টাকা এবং বর্তমানে ১০.০০ টাকা প্রবেশ মূল্য রাখা হচ্ছে। টিকেট মূল্যমানে টিকেটের মান এবং সাইজ গ্রহণযোগ্য। টিকেট কাউন্টারে মহিলা ও পুরুষ কাউন্টার থাকলেও একজনকেই টিকেট দিতে দেখা যায়। গাইড কাম রিসিপশন রুমে তালা দেয়া। এলাকার স্থানীয় মহিলা-পুরুষ আসেন Morning walk এবং Evening walk করতে। উল্লেখ্য তাদের টিকেট লাগে না।

 

টিকেট প্রাপ্তিস্থান

কেল্লার মূল ফটকের বাইরে দু’পাশে দু’টি কাউন্টার আছে। তার মধ্যে বাম পাশের কাউন্টারটি বন্ধ এবং ডান পাশের কাউন্টারটি খোলা থাকে।

 

পরিদর্শন সময়সূচী

গ্রীষ্মকালীন: ১লা এপ্রিল থেকে ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সকাল ১০.০০ টা থেকে বিকেল ৬.০০ টা পর্যন্ত।

দুপুর ১.০০ টা থেকে ১.৩০ মিনিট পর্যন্ত বিরতি।

শুক্রবার: সকাল ১০.০০ টা থেকে ৩.০০ টা পর্যন্ত।

১২.৩০ মিনিট থেকে ২.৩০ মিনিট পর্যন্ত বিরতি।

শীতকালীন: ১লা অক্টোবর থেকে ৩০শে মার্চ পর্যন্ত সকাল ৯.০০ টা থেকে বিকেল ৫.০০ টা পর্যন্ত।

দুপুর ১.০০ টা থেকে ১.৩০ পর্যন্ত বিরতি।

শুক্রবার সকাল ৯.০০ থেকে বিকেল পর্যন্ত।

দুপুর ১২.৩০ মিনিট থেকে ২.০০ টা পর্যন্ত বিরতি।

 

রবিবার পূর্ণ দিবস বন্ধ থাকে ও সোমবার অর্ধ দিবস পর্যন্ত বন্ধ থাকে। এছাড়া সরকারী ছুটির দিনগুলোতে লালবাগ কেল্লা পূর্নদিবস বন্ধ থাকে।

এছাড়া যেকোন পরিস্থিতিতে লালবাগ কেল্লা কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

 

 

 

 

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরদেশীয় ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির নানা নিদর্শনের প্রদর্শনী
ভাষা আন্দোলন জাদুঘরভাষা আন্দোলনের ঐতিহাসিক জিনিস গুলো সংরক্ষিত আছে
আহসান মঞ্জিলঢাকার নবাবদের প্রাসাদ ও দরবার হল
লালবাগ কেল্লামোঘল আমলে প্রতিষ্ঠিত দূর্গ
শহীদ বরকত জাদুঘরভাষা শহীদ আবুল বরকতের স্মৃতি স্মরণে
মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরমহান মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন নিদর্শন স্থল
সামরিক জাদুঘরএই জাদুঘর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে
বিমান বাহিনী জাদুঘরঢাকার আগারগাঁওয়ের বিমান বাহিনী জাদুঘর পরিদর্শনে প্রয়োজনীয় তথ্য
টাকা জাদুঘরএই জাদুঘর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব স্মৃতি জাদুঘরস্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতার স্মৃতিচারণ স্বরূপ
আরও ২ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি