পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

অন্ধ দাবাড়ু দম্পতি জামিলা ও আজগরের গল্প

জামিলা আক্তার সময় পেলেই গুনগুনিয়ে গাইতে থাকেন রবি ঠাকুরের গান। রবীন্দ্রসংগীত ভীষণ পছন্দ ইডেন কলেজ থেকে সমাজকল্যাণে স্নাতকোত্তর করা দাবাড়ুর। গানটা এত প্রিয় কেন? দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী আরেক দাবাড়ু আজগর আলীই গানটা শিখিয়েছেন। শুধু গান নয়, দাবা খেলাটাও শিখিয়েছেন আজগর আলী। অন্ধ এই দাবাড়ুদের আরেকটা বড় পরিচয়—দুজন স্বামী-স্ত্রী।

 

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের জাতীয় দাবায় পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন আজগরের সঙ্গে জামিলার পরিচয়ের গল্পটাও মজার। ইডেনে পড়াশুনা করার সময় ধানমন্ডিতে একটি ইংরেজি স্পোকেন কোর্সে ভর্তি হন জামিলা। সেখানে ইংরেজি ভাষা শিখতে আসেন আজগরও। টাঙ্গাইলের মেয়ে জামিলার সঙ্গে সখ্য গড়তে দাবাটা দারুণ মেলবন্ধনের কাজ করেছে সিলেটের যুবকের।

 

ভাষা শেখার অবসরে দুজন একসঙ্গে গল্প করতেন। গল্পের ফাঁকে একদিন আজগর দাবা খেলার প্রস্তাব দিলে সেটা কৌশলে এড়িয়ে যান জামিলা। পরে আজগর জানতে পারেন, জামিলা দাবা খেলতে পারেন না। দাবার বোর্ড জোগাড় করে জামিলাকে খেলাটা শিখিয়ে দেন তিনি। এভাবে আস্তে আস্তে ঘনিষ্ঠ হয়ে পড়েন দুজন। পরিচয় থেকে পরিণয়ে আসতে খুব বেশি দিন লাগেনি। পরে অবশ্য পারিবারিকভাবে বিয়ে ২০০৪ সালের ২৮ আগস্ট। অন্ধ এই দাবা দম্পতির পাঁচ বছরের কন্যা ফারিয়া জাহান সাফা। যদিও মা-বাবার মতো অতটা দাবায় মন নেই ফারিয়ার। জামিলা বলছিলেন, ‘আমরা যখন দাবা খেলি তখন ও নিজের জগৎ নিয়ে ব্যস্ত থাকে। কখনো কেক বানাচ্ছে, কখনো আইসক্রিম বানাচ্ছে। আমরা কোন দিকে ঘোড়ার চাল দিলাম, মন্ত্রী কোন দিকে গেল, সেসবের খেয়াল নেই ওর।’

 

দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের দাবায় মেয়েদের বিভাগে গতবারের রানারআপ জামিলাকে নিয়ে খুব আশাবাদী আজগর, ‘ও খুব সম্ভাবনাময় দাবাড়ু।কিন্তু খেলার সুযোগ মেলে না সব সময়।আমি চাকরি নিয়ে ব্যস্ত থাকি।ও ঘরসংসার সামলায়।কিন্তু সাধারণ দাবাড়ুদের সঙ্গে খেলার সুযোগ কম পায় জামিলা।নিয়মিত খেললে ও খুব ভালো করবে।’

 

কেন দাবা খেলাটাই বেছে নিলেন? আজগরের উত্তর, ‘আমরা যারা দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী দাবাড়ু, আমাদের বিনোদনের ক্ষেত্র সীমিত। আনন্দের জন্যই আমরা দাবা খেলি।’ দাবা খেলা নিয়ে মান-অভিমানও করেন এই দম্পতি। অভিমানটা ভাঙানোর দায়িত্ব পড়ে জামিলারই, ‘আমি প্রথমে যখন খেলা শিখি ওর কাছে তখন ভালো খেলতে পারতাম না। দু-একটা চাল ভুল হলেই খুব রাগারাগি করত। কথা বন্ধ করত। খেলা শেষে আমিই আগ বাড়িয়ে কথা বলি।’

 

আজগর আলী দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের মধ্যে সেরা দাবাড়ু। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো আন্তর্জাতিক দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী দাবায় খেলার সুযোগ পাননি। এই নিয়ে জামিলার মনে বেশ আক্ষেপ, ‘আমিও চাই আমার স্বামী বিদেশে খেলতে যাক। কিন্তু আর্থিক সংকটের কারণে কোথাও খেলতে যেতে পারে না ও। আমি নিশ্চিত, বাইরে খেলতে গেলে ও খুবই ভালো ফল করবে।’

 

স্পেশাল অলিম্পিকসের এশিয়া-প্যাসিফিক গেমসে সোনাজয়ী খেলোয়াড়দের সংবর্ধনা দেওয়া হয়। কিন্তু এই দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের খোঁজও নেয় না কেউ। আক্ষেপ করলেন সেটা নিয়েও। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ আর ফেডারেশনের দিকে অসহায়ের মতোই চেয়ে থাকেন ওঁরা। দৃষ্টিশক্তি নেই। কিন্তু মনের শক্তি দিয়েই তাঁরা জয় করতে চান পৃথিবী।

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
জাপানি বিজ্ঞানীর জমজমের পানির রহস্য আবিষ্কার করলেন!এখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
অবশেষে ফেঁসে যাচ্ছে মিয়ানমার সেনাবাহিনীএখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
টাইটানিকের চেয়ে ২০ গুন বড় বিশ্বের সবচেয়ে বড় জাহাজবিস্তারিত জানুন টাইটানিকের চেয়ে ২০ গুন বড় বিশ্বের সবচেয়ে বড় জাহাজ সম্পর্কে
পোষা সিংহ নিয়ে ব্যস্ত সড়কে, আটক করলো পুলিশএখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
রোগ সারানোর নামে মারধরের পর গোবর খাওয়ানো হল তরুণীকে এখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
গোমূত্রে তৈরি সাবান, শ্যাম্পু বিক্রি করবে আরএসএসএখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
ফিডারের দুধে বিষ মিশিয়ে সন্তানকে হত্যা, মা আটকএখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
মাত্র একঘন্টার জন্য ইফতার করেন ফিনল্যান্ডের মুসলমানরাএখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
ট্রাম্পের নামে টয়লেট পেপার!এখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
দাড়ি না কাটায় স্বামীর মুখ ঝলসে দিলেন স্ত্রীএখানে বিস্তারিত বর্ননা করা হয়েছে।
আরও ১৩২০ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি