পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

আজকের ছবি : ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৪

 

অবাক করা এই ভাসমান গ্রামটির অবস্থান পেরুর Lake Titicaca-তে। এটি দক্ষিণ আমেরিকার সবচেয়ে বড় ও অন্যতম গভীর লেক। সর্বমোট ৪২টি ভাসমান দ্বীপে এখানে বেশ কয়েকটি গ্রাম রয়েছে। এখানে পেরুর Uros  সম্প্রদায়ের বসবাস। যুগ যুগ ধরে তারা এই লেকের ভাসমান দ্বীপে বসবাস করে আসছে। এই ভাসমান দ্বীপগুলো প্রাকৃতিকভাবে গড়ে উঠেছে। সেগুলো বসবাসের উপযোগী করে তার ওপর তৈরি করা হয়েছে ঘরবাড়ি থেকে শুরু করে সবকিছু। কিছু দ্বীপ আবার মানুষেরও তৈরি। লেকের পানির গভীর থেকে totora (নলখাগড়া টাইপের) গাছের শাখা-প্রশাখা অত্যন্ত শক্ত ও ঘনভাবে বেড়ে ওঠে এবং তা বিশাল জায়গাজুড়ে পানির ওপর ভাসমান এই দ্বীপ সৃষ্টি করে। অনেকে প্রচুর totora গাছ ব্যবহার করে আর্টিফিসিয়ালভাবেও এই দ্বীপ তৈরি করেছে।
দ্বীপের উপরিভাগ অর্থাৎ গ্রাউন্ড বেশ নরম ও পিচ্ছিল হয়ে থাকে। হাঁটাচলার সময় তাই দেবে যায়। তা ছাড়া এখানকার অধিবাসীরা এই গাছের শাখা-প্রশাখা দিয়েই তাদের ঘরবাড়ি এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র তৈরি করে থাকে। এখানে দ্বীপ অর্থাৎ গ্রামের মাঝে পুকুরের ব্যবস্থাও রয়েছে। তা ছাড়া প্রয়োজনে কেটে এই দ্বীপকে ভাগও করা যায়। কাটার পরে ভাগ হয়ে পৃথক দুটি দ্বীপ হয়ে তখন ভাসতে থাকে। এখানকার অধিবাসীরা বিভিন্ন হস্তশিল্পের কাজ করে। এছাড়া খরগোশ এবং হাঁসও এখানে পোষা হয়। এখানে যাতায়াতের জন্য রয়েছে কারুকার্যখচিত নৌকা। এগুলো totora গাছ দিয়েই তৈরি। Lake Titicaca-র গ্রামগুলো অত্যন্ত সুন্দর ও পরিপাটি করে সাজানো। তাই পেরুর পর্যটকদের কাছে অন্যতম আকর্ষণ এই দ্বীপ ও গ্রাম।

পৃথিবীর বিলুপ্ত শহর বা সভ্যতার মধ্যে ভূ-গর্ভস্থ ডেরিংকুয়ো শহর অন্যতম, এটি তুরস্কে অবস্থিত। ধারণা করা হয় এটি ছিল ফ্রিজিয়ান সভ্যতা। সময়কাল- আনুমানিক খ্রীস্টপূর্ব অষ্টম শতাব্দী থেকে খ্রীস্টাব্দ দশম শতাব্দী। দশের অধিক লেভেল বা তল বিশিষ্ট ভূ-গর্ভস্থ এই স্থাপনাটিতে ৫০,০০০ মানুষের আবাস এবং গবাদীপশু ধারনের স্থান রয়েছে। আরও ধারনা করা হয়, রোমানদের সাম্প্রদায়িকতা ও নির্যাতন থেকে আত্মরক্ষার জন্য তৎকালীন অধুনা খ্রীস্টধর্মের অনুসারীরা এখানে আত্মগোপন করতেন।

বনের মধ্যে অফিস। ছবিতে যে বক্সের মতো স্থাপনাটি দেখছেন তা হচ্ছে Selgase cano architecture এর অফিস। এ সংস্থারই কর্মীরা নিজেই এ অফিসটির ডিজাইন করেছেন। এটি মাদ্রিদে অবস্থিত।

এই সেতুটির নাম হচ্ছে চাইনা সী ব্রিজ। এটি ২৬ মাইল লম্বা, ৩৫ মিটার প্রশস্থ। এই সেতুটি বানাতে খরচ হয় ১.৪ বিলিওন ইউরো। ব্রিজটির কাজ এখনও চলছে, ২০১৫ সাল নাগাদ শেষ হবে এর ২২ মাইল সাগরের উপর দিয়ে যাবে। এটি হবে পৃথিবীর বৃহত্তম সী ব্রিজ।

১৯৬০ সালের বাইতুল মোকারমের একটি দুর্লভ ছবি।

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
আজকের ছবি : ০৯ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১০ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১১ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১২ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১৩ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১৫ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১৭ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১৮ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ১৯ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আজকের ছবি : ২০ মে, ২০১৫দেশী-বিদেশী ঐতিহাসিক, পুরনো দিনের ছবি, আশ্চর্যজনক, নয়নাভিরাম সহ বিভিন্ন ধরনের ছবি রয়েছে
আরও ৫৬৬ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি