পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

আজকের জোকস : ১৭ অক্টোবর, ২০১৫

জোকস - ০১ : দাঁতের ডাক্তার?!!

দাঁতের ডাক্তারের কাছে এক মেয়ে এসে বলল-
মেয়ে : ডাক্তার সাহেব, আপনি দাঁত তুলতে পারেন?
ডাক্তার : হ্যাঁ, পারি।
মেয়ে : তাহলে যে আমার সঙ্গে আমাদের বাড়ি যেতে হবে। আমার দাদির দাঁত তুলতে হবে।
ডাক্তার : তা যাওয়া যাবে। ফি কিন্তু ডাবল দিতে হবে।
মেয়ে : সেটা সমস্যা না, চলেন আমার সঙ্গে।
ডাক্তার মেয়েটার বাড়ি গেল। সেখানে গিয়ে মেয়েটার দাদিকে বলল-
ডাক্তার : দেখি, আপনার কোন দাঁত তুলতে হবে?
দাদি : আমার সঙ্গে একটু কষ্ট করে পুকুরপাড়ে চলেন। পুকুরপাড়ে গিয়ে দাদি বললেন, আজ গোসল করতে গিয়ে পুকুরে দাঁত পড়ে গেছে। আপনি কষ্ট করে তুলে দেন!

জোকস - ০২ : Gf & Bf!!!

Gf- রাস্তায় হাটার সময় কোন মেয়ের দিকে তাকাবানা। ওকে??
Bf-- আচ্ছা।
Gf- ফেসবুকে কোন মেয়ের ছবিতে লাইক দিবা না। ওকে??
Bf-- আচ্ছা। দেখবোও না। ওকে??
Gf- খালি জিরো ডট ফেসবুক চালাবা। ওকে??
Bf-- আচ্ছা।
Gf-টিভি কম দেখবা। মুভিও দেখবানা। আর দেখলে নায়িকাদের দিকে তাকাবানা। ওকে??
Bf-- আচ্ছা।
Gf- পেপার পড়বা কিন্তু বিনোদন পাতার দিকে যাবা না। মোবাইলে উল্টা পাল্টা ভিডিও দেখলে চোখ গাইল্লা ফেলবো।
Bf-- আচ্ছা।
Gf- তোমার বাসা গার্লস স্কুলের সামনে না??
Bf-হ্যাঁ।
Gf- বাসা চেঞ্জ করো।
Bf--আমার বাবার বাড়ি!!
Gf-বাড়ি বেচে দাও।
Bf-- আমার বাবা শুনলে ?
Gf- তাইলে বাসা ছেড়ে মেসে থাকবা। এমন বাড়িতে যে বাড়ির মালিকের কোন মেয়ে নাই। থাকলেও ওই মেয়ের দিকে তাকাবানা।
Bf-- আচ্ছা।
Gf- মনে থাকবে??
Bf-- এত্ত বড় লিস্ট!! সব তো মনে নাই।
Gf- আবার বলবো ???
Bf-- আবার!
Gf- মনে না থাকলে আবার বলতে হবে।
Bf-- থাক থাক!! এত বড় লিস্ট দিয়ে কাজ নাই। তুমি বরং এমন কোন লিস্ট দাও যেই লিস্টে খালি আমি কোন কোন দিকে তাকাতে পারবো সেই লিস্ট থাকবে।
Gf- ভালো বুদ্ধি। তুমি তোমার পায়ের বুড়া আঙ্গুলের দিকে তাকাবা খালি। এভাবে নিচের দিকে তাকায় চলাচল করবা। ওকে??
Bf-- আচ্ছা। ওকে!!
Gf- দ্যাটস মাই বয়! এই নাও ফ্লায়িং পাপ্পি!! (৪ ঘন্টা পর)
Gf- বেবী তুমি কই???
Bf-- হাসপাতালে।
Gf- কেনো???
Bf-- তোমার কথা শুনে পায়ের বুড়া আঙ্গুলেরদিকে তাকায়া বাইক চালাইতেছিলাম তারপর কিছু মনে নাই। উঠে দেখি হাসপাতালে আছি!
Gf- তাই..??? সাবধান!! নার্সের দিকে তাকাবানা...!!!

 

জোকস - ০৩ : ক্রেডিট কার্ড !!!

রাগ করেই ঘর থেকে বেড়িয়ে পড়লাম। এতটাই রেগে ছিলাম যে বাবার জুতোটা পড়েই বেরিয়ে এসেছি। বাইকই যদি কিনে দিতে পারবেনা, তাহলে ছেলেকে ইঞ্জিনিয়ার বানাবার সখ কেন.? হঠাৎ মনে হল পায়ে খুব লাগছে। জুতোটা খুলে দেখি একটা পিন উঠে আছে। পা দিয়ে একটু রক্তও বেরিয়েছে। তাও চলতে থাকলাম। এবার পাটা ভিজে ভিজে লাগল। দেখি পুরো রাস্তাটায় জল। পা তুলে দেখি জুতোর নিচটা পুরো নষ্ট হয়ে গেছে। বাসস্ট্যান্ডে এসে শুনলাম একঘন্টা পর বাস। অগত্যা বসে রইলাম। হঠাৎ বাবার মানি ব্যাগটার কথা মনে পড়ল, যেটা বেরোবার সময় সঙ্গে নিয়ে এসেছিলাম। বাবা এটায় কাউকে হাত দিতে দেয় না। মাকেও না। এখন দেখি কত সাইড করেছে। খুলতেই তিনটে কাগজের টুকরো বেরল।
প্রথমটায় লেখা "ল্যাপটপের জন্য চল্লিশ হাজার লোন"। কিন্তু আমার তো ল্যাপটপ আছে, পুরনো বটে। দ্বিতীয়টা একটা ডা: প্রেসক্রিপশন। লেখা "নতুন জুতো ব্যাবহার করবেন"। নতুন জুতো। মা যখনই বাবাকে জুতো কেনার কথা বলত বাবার উত্তর ছিল "আরে এটা এখনও ছ'মাস চলবে"। তাড়াতাড়ি শেষ কাগজটা খুললাম। "পুরানো স্কুটার বদলে নতুন বাইক নিন" লেখা শোরুমের কাগজ। বাবার স্কুটার!! বুঝতে পেরেই বাড়ির দিকে এক দৌড় লাগালাম। এখন আর জুতোটা পায়ে লাগছে না। বাড়ি গিয়ে দেখলাম বাবা নেই। জানি কোথায়। একদৌড়ে সেই শোরুমটায়। দেখলাম স্কুটার নিয়ে বাবা
দাঁড়িয়ে। আমি ছুটে গিয়ে বাবাকে জড়িয়ে ধরলাম। কাঁদতে কাঁদতে বাবার কাঁধটা ভিজিয়ে ফেললাম। বললাম "বাবা আমার বাইক চাইনা। তুমি তোমার নতুন জুতো আগে কেন বাবা। আমি ইঞ্জিনিয়ার হব, তবে তোমার মতো করে।"
"মা" হল এমন একটা ব্যাঙ্ক, যেখানে আমরা আমাদের সব রাগ, অভিমান, কষ্ট জমা রাখতে পারি। আর "বাবা" হল এমন একটা ক্রেডিট কার্ড, যেটা দিয়ে আমরা পৃথিবীর সমস্ত সুখ কিনতে পারি।

জোকস - ০৪ : ক্রিকেট রচনা!!

স্যার ক্লাশে সবাইকে ক্রিকেট ম্যাচ নিয়ে রচনা লিখতে দিয়েছেন। সবাই মন দিয়ে লিখে চলছে। ৩-৪ মিনিট পরেই স্যার হঠাৎ দেখেন রন্টি জানালা দিয়ে উদাস নয়নে বাইরের মাঠের দিকে তাকিয়ে আছেন।
স্যার রন্টিকে ঝাড়ি দিয়ে জানতে চাইলেন, ‘এই তুমি লিখছো না কেন?’
রন্টি: স্যার আমার লেখা হয়ে গেছে!
স্যার: মানে? কই তোমার খাতা দেখি?
রন্টি স্যারকে খাতা এগিয়ে দিলেন, স্যার দেখলেন খাতায় লেখা রয়েছে ‘বৃষ্টির কারনে ম্যাচ পরিত্যাক্ত ঘোষনা করা হলো।’

 

  জোকস - ০৫ : সোনার আংটি!!!

একদিন ক্লাসে শিক্ষক তার সোনার আংটিটা একটা গ্লাসের পানিতে ডুবিয়ে ছাত্রকে প্রশ্ন করলেন।
শিক্ষকঃ বল তো, এই আংটিটাতে মরিচা ধরবে কি না?
ছাত্রঃ ধরবে না স্যার।
শিক্ষকঃ গুড, ভেরি গুড। আচ্ছা বলতো, কেন ধরবে না?
ছাত্রঃ স্যার, আপনি জ্ঞানী লোক। যদি পানিতে রাখলে মরিচা ধরতো, আপনি কখনই আপনার সোনার আংটি পানিতে রাখতেন না।

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
আজকের জোকস : ৩০ জুলাই, ২০১৬প্রতিদিন নতুন ৫ টি পেটে খিল লাগানো জোকস
আজকের জোকস : ২১ জুলাই, ২০১৬প্রতিদিন নতুন ৫ টি পেটে খিল লাগানো জোকস
আজকের জোকস : ১৫ জুলাই, ২০১৬প্রতিদিন নতুন ৫ টি পেটে খিল লাগানো জোকস
আজকের জোকস : ১৩ জুলাই, ২০১৬প্রতিদিন নতুন ৫ টি পেটে খিল লাগানো জোকস
আজকের জোকস : ০১ জুলাই, ২০১৬প্রতিদিন নতুন ৫ টি পেটে খিল লাগানো জোকস
আজকের জোকস : ২২ মে, ২০১৬দমফাটানো হাসির ৫টি জোকস রয়েছে
আজকের জোকস : ১৭ মে, ২০১৬দমফাটানো হাসির ৫টি জোকস রয়েছে
আজকের জোকস : ১৫ মে, ২০১৬দমফাটানো হাসির ৫টি জোকস রয়েছে
আজকের জোকস : ০৮ মে, ২০১৬দমফাটানো হাসির ৫টি জোকস রয়েছে
আজকের জোকস : ০৬ মে, ২০১৬দমফাটানো হাসির ৫টি জোকস রয়েছে
আরও ৬৩৯ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি