পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

বঙ্গবাজার

ঢাকায় বসবাস করে অথচ বঙ্গবাজারের নাম শুনেনি বা বঙ্গবাজারে পদধুলি পড়েনি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কষ্টসাধ্য। কেননা এই বঙ্গবাজারকে আবর্তিত করে রয়েছে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। যেমন – পুলিশ হেডকোয়াটার্স, নগর ভবন, ফায়ার সার্ভিস হেড কোয়াটার্স, কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতাল ও ঐতিহ্যবাহী কার্জন হল। এই মার্কেটটির বদৌলতে এই এলাকা ঢাকার আশপাশ সহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শুরু করে দেশের সীমানা অতিক্রম করে বিদেশী পর্যটকদের পদচিহ্নে মুখরিত থাকে। এটি একটি পরিপূর্ণ তৈরী পোশাক মার্কেট। ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে এই মার্কেটটি পরিচালিত হয়।

 

খোলা – বন্ধের সময়সূচী

এই মার্কেটটি শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত খোলা থাকে। শুক্রবার সাপ্তাহিক বন্ধ থাকে। শনিবার দিনের প্রথম অর্ধ দিবস বন্ধ থাকে। এছাড়া অন্যান্য দিন সকাল ৮.০০ টা থেকে রাত ৮.০০ টা পর্যন্ত খোলা থাকে।

 

কিভাবে আসবেন

পূর্ব দিক হতে - হযরত গোলাপ শাহ মাজার থেকে পূর্ব দিকে নগর ভবনের পাশ দিয়ে পুলিশ হেড কোয়াটার্সের সাথে, পশ্চিম দিক হতে – পলাশী বা চানখার পুল মোড়ে এসে রিক্সা বা অন্য কোন পরিবহন যোগে সোজা পশ্চিম দিকে নগর ভবন সংলগ্ন অবস্থিত, উত্তর দিক হতে – ঢাকা প্রেস ক্লাব বা হাইকোর্ট হয়ে কার্জন হলের পাশ দিয়ে কার্জন হল সংলগ্ন মোড়ের দক্ষিণ-পূর্ব কোণে অবস্থিত এনেক্সকো টাওয়ারের সাথে এবং দক্ষিণ দিক হতে – নাজিরা বাজার চৌরাস্তা থেকে দক্ষিণ দিকে ৫ মিনিটের হাঁটা দূরত্বে ফায়ার সার্ভিস হেড কোয়ার্টার্সের বিপরীত পাশে এই মার্কেটটি অবস্থিত।

 

মার্কেটের প্রবেশ পথ

মার্কেটে প্রবেশের জন্য মার্কেটটির পশ্চিম, উত্তর ও দক্ষিণ দিকে নিকটতম দূরত্বে বেশ কিছু সরু গলিপথ রয়েছে। পূর্ব দিকের অংশটুকু পুলিশ হেড কোয়াটার্সের সীমানা প্রাচীর দ্বারা ঢাকা পড়ার কারণে এই দিক দিয়ে মার্কেটে প্রবেশের কোন পথ নেই। আর মার্কেটের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় উঠার জন্য মার্কেটের পশ্চিম ও দক্ষিণ পাশে বেশ কিছু কাঠের সিঁড়ি রয়েছে।

 

মার্কেটের গঠন ও স্তরবিন্যাস

এটি কাঠের তৈরী তিনতলা বিশিষ্ট মার্কেট। কাঠের পাটাতনের মাধ্যমে এক ফ্লোর থেকে অন্য ফ্লোরকে পৃথক করা হয়েছে। প্রথম তলায় রয়েছে পাইকারী ও খুচরা রেডিমেড পোশাক, দ্বিতীয় তলায় রয়েছে পাইকারী ও খুচরা শাড়ি কাপড়ের দোকান, গার্মেন্টস এক্সেসরীজ এবং তৃতীয় তলায় রয়েছে গার্মেন্টস কারখানা। তবে মার্কেটের প্রথম তলায় মার্কেটের কোন নির্দিষ্ট স্তর বিন্যাস নেই। একই ধরনের পণ্যের দোকান দেখা যায় সারা মার্কেট জুড়েই বিক্ষিপ্ত ভাবে অবস্থিত। তবে কিছু কিছু অংশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দোকানের অবস্থান লক্ষ্য করা যায়।  যেমন দক্ষিণ দিক দিয়ে প্রবেশ করার পূর্বেই মার্কেটের বাইরের দিকে অবস্থিত ব্যাগের দোকানগুলোতে প্রদর্শনীকৃত ঝুলানো ব্যাগগুলোর সাথে মাথা ঠুকিয়ে ফুটপাতকে পাশ কাটিয়ে মার্কেটে প্রবেশ করে প্রথমেই পাঞ্জাবী, শিশু ও মহিলাদের পোশাক বিক্রেতারা আপনাকে স্বাগত জানাবে। কেননা এই দিকটাতেই মার্কেটের পাঞ্জাবীর দোকানগুলো অবস্থিত। তাই পাঞ্জাবী ক্রেতারা মার্কেটের দক্ষিণ দিকে প্রবেশ পথের সাথে অবস্থিত পাঞ্জাবীর দোকানগুলোতে ঢুঁ মারতে পারেন। আর মার্কেটের পশ্চিম দিকের প্রবেশ পথগুলো দিয়ে মার্কেটে ঢোকার সময় প্রথমেই চোখে পড়বে লুঙ্গি, মেয়েদের ওড়না, রেডিমেড সালোয়ার কামিজ, ছোটদের পোশাকের ছোটছোট বেশ কিছু দোকান। মার্কেটের উত্তর দিকের পুলিশ হেড কোয়াটার্সের পাশ দিয়ে প্রবেশ করার সময় প্রথমেই রয়েছে সারি সারি জিন্স প্যান্টের দোকান। মার্কেটের পূর্ব প্রান্তের অংশে পাইকারী রেডিমেট গার্মেন্টস পোশাকের দোকানগুলো অবস্থিত। উত্তর পাশে শেষ প্রান্তে বেশ কিছু পাইকারী জুতার দোকান ও গার্মেন্টস এক্সেসরীজ এর দোকান রয়েছে।  

 

মার্কেটের বাইরের পরিবেশ

মার্কেটের বাইরের ফুটপাত অস্থায়ী হকারদের দখলে রয়েছে। যা ক্রেতাদের হাটাঁচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। এই মার্কেটটিকে বাইরে থেকে দেখে কোনভাবেই মার্কেটের ভিতরের তাৎপর্য বা গুরুত্ব উপলব্ধি অনুধাবন করার কোন উপায় নেই।

 

আসুন মার্কেটের অভ্যন্তরে প্রবেশ করি

বাইরের যানজট ও কোলাহল ভেদ করে মার্কেটে প্রবেশ করে কিছুটা হলেও অস্বস্তি বোধ হতে পারে। কেননা মার্কেটটিতে পর্যাপ্ত আলো-বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা নেই। তবে পূর্বের তুলনায় বর্তমানে কৃত্রিমভাবে আলো-বাতাসের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হয়েছে। মার্কেটটিতে চলাচলের জন্য নির্দিষ্ট দূরত্ব অন্তর অন্তর বেশ কিছু গলিপথ রয়েছে। পথগুলোর দুই পাশে রয়েছে সারি সারি কাপড়ের দোকান। বর্ষাকালে মার্কেটের অভ্যন্তরে পানি পড়ে না। রয়েছে পানি নিষ্কাশনের সুব্যবস্থা।

 

যে সকল পণ্য পাওয়া যায়

এই মার্কেটটিতে শিশু-তরুন-বৃদ্ধ সকল বয়সের নারী-পুরুষের সকল ধরনের পোশাক পাওয়া যায়। ছেলেদের – লুঙ্গি, প্যান্ট, শার্ট, গেঞ্জি, পাঞ্জাবী, ফতুয়া, নাইট ড্রেস সহ বিভিন্ন ধরনের পোশাক পাওয়া যায়। মেয়েদের – শাড়ি, সালোয়ার কামিজ, জিন্স প্যান্ট, ফতুয়া, ওড়না সহ বিভিন্ন ধরনের পোশাক পাওয়া যায়। ছোটদের –  ফ্রক, শার্ট, গেঞ্জি, প্যান্ট, পাঞ্জাবী, বেবী সেট - ১ পিস, ২পিস ও ৩ পিসের বিভিন্ন ধরনের কাপড়ের সেট পাওয়া যায়। অর্ডার বাতিল এক্সপোর্ট পণ্য, নিম্ন মানের কারণে বাতিলকৃত এক্সপোর্ট পণ্য ও শীতের পোশাক পাওয়া যায়।

 

প্রাপ্ত পণ্যের গুণগত মান

এই মার্কেটে স্থানীয়ভাবে তৈরীকৃত ডিসপুটেড এক্সপোর্ট কোয়ালিটির তৈরীকৃত পণ্যের পাশাপাশি চীন, থাইল্যান্ড, ভারত প্রভৃতি দেশে থেকে আমদানি কৃত পোশাক পাওয়া যায়। এছাড়া স্থানীয় লোকাল গার্মেন্টস পণ্যও পাওয়া যায়।

 

বিক্রয়ের ধরন

এই মার্কেটিতে খুচরা বিক্রয়ের সাথে পাল্লা দিয়ে সমানতালে পাইকারী হারে পোশাক বিক্রয় করা হয়। সারা মার্কেট জুড়েই খুচরা দোকানগুলোর অবস্থান হলেও পাইকারী দোকানগুলো মার্কেটের পূর্ব পাশের  গলিগুলোতে অবস্থিত।

 

পণ্যের মূল্য

এই মার্কেটটিতে প্রাপ্ত পণ্য সামগ্রীর মূল্য অত্যন্ত সহনীয়। পণ্যের গুণগত মানের উপর ভিত্তি করে পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করা হয়। পাইকারী মূল্যের চেয়ে খুচরা মূল্য কিছুটা বেশি হয়ে থাকে। পাইকারী ক্রয়ের ক্ষেত্রে কমপক্ষে একই ডিজাইনের ১২ পিস ক্রয় করতে হবে।

 

ক্রেতাদের ধরন

এই মার্কেটে আগত ক্রেতাদের বেশিরভাগই নিম্নবিত্ত বা স্বল্প আয়ের মানুষ। এছাড়া এদের পাশাপাশি মধ্যবিত্ত শ্রেণীর লোকজনেরও কম বেশি আনাগোনা লক্ষ্য করা যায়। তবে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টি লক্ষ্য করা যায় তা হল মার্কেটে প্রতিদিনই উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বিদেশী পর্যটকের আগমন ঘটে। কারণ এই মার্কেটে তুলনামূলক কম দামে নমিনাল ডিসপুটেড এক্সপোর্ট কোয়ালিটির কাপড় পাওয়া যায়।

 

পার্কিং ব্যবস্থা

মার্কেটটির নিজস্ব কোন গাড়ি পার্কিং ব্যবস্থা নেই। তবে মার্কেটের পশ্চিম পাশের সড়কে ১০টির মত গাড়ি পার্কিং এর ব্যবস্থা রয়েছে। তবে এর জন্য নির্ধারিত হারে চার্জ প্রদান করতে হয়। আর মার্কেটের ব্যবসায়ীদের গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য পার্শ্ববর্তী এনেক্সকো টাওয়ারের আন্ডারগ্রাউন্ডে গাড়ি পার্কিং এর ব্যবস্থা রয়েছে।

 

খাবার ব্যবস্থা

মার্কেটের অভ্যন্তরে উত্তর-পূর্ব কোণে শেষ প্রান্তে খাবারের দোকান রয়েছে। এছাড়া মার্কেটের বাইরে বেশ কিছু উন্নতমানের খাবারের হোটেল রয়েছে। আর আপনি যদি ভোজন রসিক হয়ে থাকেন তাহলে কেনাকাটার শেষে ঢু মারতে পারেন ‘খাবারের গলি’ হিসাবে খ্যাত নাজিরাবাজারে।

 

বিবিধ

  • মার্কেটে কোন প্রকার Raffle Draw আয়োজন করা হয় না এবং বিশেষ উৎসব বা দিবস উপলক্ষ্যে মূল্য ছাড় দেয়া হয় না।
  • মার্কেটের তৃতীয় তলায় একটি মসজিদ আছে।
  • দোকান মালিক সমিতি অফিস মার্কেটের তৃতীয় তলায় অবস্থিত। 
  • এছাড়া মার্কেটের তৃতীয় তলাতে অর্থের বিনিময়ে পাবলিক টয়লেট ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
এলিফ্যান্ট রোড বিয়ের মার্কেটশাহবাগ, এলিফ্যান্ট রোড
বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্সকলাবাগান, পান্থপথ
সীমান্ত স্কয়ার শপিং মলধানমন্ডি, ধানমন্ডি
বেনারশী পল্লীমিরপুর, বেনারশী পল্লী
আতর, তসবি, টুপির মার্কেটআতর, তসবি, টুপির মার্কেট
এলিফ্যান্ট রোড পর্দার মার্কেটকলাবাগান, এলিফ্যান্ট রোড
কৃত্রিম ফুলের বাজার, নিউ মার্কেটনিউমার্কেট, নিউমার্কেট
ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন টাওয়ারউত্তরা, সেক্টর ৩
অরার্চাড পয়েন্টধানমন্ডি, ধানমন্ডি
রাজলক্ষ্মী কমপ্লেক্সউত্তরা, সেক্টর ৩
আরও ৬৩ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি