পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

শিশুর সাথে আচরণে চাই ধৈর্য

অভিভাবকত্ব পৃথিবীর সবচেয়ে কঠিন দায়িত্বগুলোর মধ্যে একটি! আপনি এ দায়িত্ব কেমনভাবে পালন করছেন, তার ওপরেই নির্ভর করবে আপনার সন্তানের ভবিষ্যত। সন্তান জন্মের সাথে সাথেই মা-বাবার ওপর বর্তে যায় তাকে 'মানুষের মতো মানুষ' করার গুরুভার।

প্রত্যেকটি শিশুই আলাদা আলাদা বৈশিষ্ট্যের অধিকারী হয়। কেউ থাকে শান্তশিষ্ট, কেউ হয় চঞ্চল। কেউ হয় ভীতু ধরনের, আবার কেউ বেপরোয়া। কোনো কোনো বাচ্চা হয় ভীষণ জেদি, শুনতে চায় না কারো কথা। কারো কোনো কথা পাত্তা না দেয়া, নিজের খেয়ালখুশি মতো চলা - এসব বিষয় কম বেশি সব শিশুর মধ্যেই দেখা যায়। এ বিষয়গুলো শিশুর মানসিক বিকাশের ক্ষেত্রে অনেক সময় সমস্যার সৃষ্টি করে।

এই সমস্যাগুলো সামলানোর জন্য ছোটবেলা থেকেই শিশুকে নিয়মানুবর্তিতা বা ডিসিপ্লিন শেখানো প্রয়োজন। তবে ডিসিপ্লিন এবং প্রয়োজনের অতিরিক্ত শাসনকে মিলিয়ে ফেলা যাবে না মোটেও। সন্তানকে ভালো কাজে উত্‍সাহ দিয়ে, তাদের সঠিকভাবে গাইড করে বা তাদের ভুল শুধরে দিয়েও ডিসিপ্লিন শেখানো সম্ভব। তাই মা-বাবার উচিত সন্তানের ভুল আচরণ সময় থাকতে শুধরে দেয়া, অতিরিক্ত শাসনের মাধ্যমে তাদের আরো বিগড়ে দেয়া নয়!শিশুকে ডিসিপ্লিনড করতে চাইলে প্রয়োজন ধৈর্যের। অভিভাবকের অসহিঞ্চুতা হিতে বিপরীত ডেকে আনতে পারে।

আপনার শিশুটির স্বভাব কেমন তা বোঝার চেষ্টা করুন। ও কীভাবে সময় কাটাতে পছন্দ করে, কোন সময়ে পড়তে বসালে বিরক্ত কম করে, কতটা মনোযোগী- এসব বিষয় খেয়াল রেখে বাচ্চার দৈনিক রুটিন তৈরি করুন। মাঝে মাঝে দু একদিন রুটিনে শিথিলতা রাখুন। শিশুকে সময়ের মূল্য বোঝানোর চেষ্টাটা ধীরে ধীরে করুন। গল্প বলে, নানান উদাহরণ দিয়ে ওকে বোঝান যে, সময়ের কাজ সময়ে না করলে ক্ষতি ওরই হবে।

অতিরিক্ত নিয়ম-কানুন বাচ্চাদের ওপর চাপিয়ে দেবেন না। এতে তারা আরো জেদি ও একগুঁয়ে হয়ে ওঠে। বাচ্চা তার কাজ শেষ করে খেলতে চাইলে বাধা দেবেন না। অবসরে সে যদি কোনো সৃজনশীল কাজ করতে পছন্দ করে (যেমন, ছবি আঁকা) তাহলে তাকে উত্‍সাহ দিন।

শিশুকে কোনো অন্যায় আচরণ করতে দেখলে প্রথমে তাকে বুঝিয়ে বলুন যে এটা ঠিক নয়। তারপরেও যদি তার ব্যবহারে পরিবর্তন না আসে, তাহলে শাস্তির ব্যবস্থা করুন। শাস্তি মানে বকাঝকা বা গায়ে হাত তোলা নয়, বরং কিছুদিন তাকে তার পছন্দের জিনিস দেয়া বন্ধ করে দিন। এতে সে বুঝবে, অন্যায় আচরণ করলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে সে নিজেই!

সবার সামনে শিশুর সমালোচনা করবেন না বা তাকে শাসন করবেন না। এতে ওর আত্মবিশ্বাস ক্ষতিগ্রস্ত হবে এবং সে নিজেকে শোধরানোর ব্যাপারে হাল ছেড়ে দেবে। বরং তার সাথে ইতিবাচক ইঙ্গিতপূর্ণ আচরণ ও কথা বলুন। এতে শিশু উত্‍সাহী হবে এবং নিজেকে আরো ভালো হিসেবে উপস্থাপনের চেষ্টা করবে, যা তার মানসিক বিকাশের ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
মুখ ও গলার কালো দাগ দূর করার ২টি কার্যকরী উপায় জেনে নিন মুখ ও গলার কালো দাগ দূর করার ২টি কার্যকরী উপায়
এক নিমিষে লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করুণজেনে নিন যেভাবে এক নিমিষে লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করবেন।
বুদ্ধিমান ও মেধাবী সন্তান পেতে যা করবেনজেনে নিন বুদ্ধিমান ও মেধাবী সন্তান পেতে যা করবেন
বিশেষ সময়ে যদি হঠাৎ এমন হয় তাহলে মনোবিদরা জানাচ্ছেন এক বিরল গুণের অধিকারীবিস্তারিত পড়ুন বিশেষ সময়ে যদি হঠাৎ এমন হয় তাহলে মনোবিদরা জানাচ্ছেন এক বিরল গুণের অধিকারী
লিফট ছিঁড়ে গেলে বাঁচার উপায় জেনে নিনবিস্তারিত পড়ুন লিফট ছিঁড়ে গেলে বাঁচার উপায়
মরণ খেলা ব্লু হোয়েল’র ফাঁদ থেকে ছাত্রকে প্রাণে বাঁচালেন স্কুল শিক্ষকজেনে নিন কিভাবে মরণ খেলা ব্লু হোয়েল’র ফাঁদ থেকে ছাত্রকে প্রাণে বাঁচালেন স্কুল শিক্ষক
যেই ভিডিও গেম খেললেই নিশ্চিত মৃত্য (ব্লু হোয়েল )জেনে নিন যেই ভিডিও গেম খেললেই নিশ্চিত মৃত্য (ব্লু হোয়েল )
ব্লু হোয়েল গেমটি কে কীভাবে তৈরি করেন?জেনে নিন ব্লু হোয়েল গেমটি কে কীভাবে তৈরি করেন?
লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করুণবিস্তারিত পড়ুন লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করুণ
ঠোঁটের কালো দাগ দূর করার দারুণ কার্যকরী কিছু উপায়বিস্তারিত পড়ুন ঠোঁটের কালো দাগ দূর করার দারুণ কার্যকরী কিছু উপায় জেনে রাখুন
আরও ১৪৪৩ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি