পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

শিশু যখন কার্টুনাসক্ত!

যেকোনো কিছুর প্রতি ঝুঁকে থাকা হচ্ছে বিপদজনক সেটা যদি হয় কোন শিশুর বেলায় তবে সেটি আরও মারাত্মক হয়ে উঠতে পারে। আজকালকার দিনে দেখা যায় শিশুদের কার্টুনের প্রতি ঝোঁক দিন দিন বেড়েই চলছে। বিষয়টিকে শিশুদের বাবা-মা তেমন পাত্তা না দিলেও শিশুটির বুদ্ধি এবং মানসিক বিকাশে কাটুনে আসক্তি বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। যা দীর্ঘমেয়াদে শিশুটির উপর প্রভাব বিস্তার করে।

একটি কার্টুন চিত্র যে শিশুর ওপর কতটা প্রভাব ফেলতে পারে তা হয়তো আপনি বুঝতে পারছেন না কিংবা বোঝার চেষ্টাও করছেন না। উল্লেখযোগ্য একটি কারণ হল কার্টুন দিলে আপনার শিশুটি শান্ত হয়ে থাকছে। তাকে খাওয়ানো যাচ্ছে, কান্নাকাটি করছে না। শিশুরা কার্টুন দেখবেই, ভিডিও গেমও খেলবে। কিন্তু লক্ষ্য রাখতে হবে যেন সেটা মাত্রা ছাড়িয়ে না যায়। মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে সেটি কিন্তু হয়ে উঠবে আপনার মাথাব্যথার কারণ।

 

শিশুদের এই কার্টুনাসক্তি ক্ষেত্রে কিছু যৌক্তিক কারণ আছে, জেনে নেওয়া যাক কেন এই কার্টুনাসক্তিঃ-

১। শিশুরা সবসময় খেলাধুলা খুব পছন্দ করে এবং যদি শিশুদের পর্যাপ্ত খেলাধুলার সুযোগ না থাকলে কার্টুন বা ভিডিও গেমসে আসক্ত হয়।

২। শিশুদের অবিভাবক এবং মা-বাবা পর্যাপ্ত সময় না দিলে শিশু একাকিত্ব বোধ করে এবং সেই একাকীত্ব বোধ দূর করতে টিভি বা কম্পিউটার বেছে নেয়।

৩। যদি পিতা এবং মাতা উভয়ে কর্মজীবী হন তবে স্বভাবতই শিশু গৃহপরিচালকের কাছে বড় হয়, এবং শিশু গৃহপরিচালকের কাছে বড় হলে অনেক সময় গৃহপরিচালকের শিশুকে ব্যস্ত রাখার জন্য কার্টুন ছবি দেখতে উৎসাহিত করে।

৪। শহরে খেলার মাঠের অপ্রতুলতার কারণে অনেক সময় শিশু অলস হয়ে ওঠে এবং অলস সময় কাটালে শিশু টিভি বা গেমসে আসক্ত হয়ে ওঠে। ফলে একপর্যায়ে সে মারাত্মক মানসিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়।

৫। শিশুর মানসিক বিকাশ বাধাগ্রস্ত করতে কার্টুনের কোন বিকল্প নেই! কারণ টিভিতে কার্টুন দেখা বা কমপিউটারে গেমস খেলা দুটিই যেহেতু একপক্ষীয় অর্থাৎ এখানে অন্য পক্ষের সঙ্গে ভাবের আদান-প্রদান হয় না, ফলে বাধাগ্রস্ত হয় শিশুর মানসিক বিকাশ।

৬।  সারাদিন ধরে আপনার শিশু যদি অতিরিক্ত কার্টুন দেখে বা কম্পিউটারে বসে থাকে তবে শিশুর চোখেরও যথেষ্ট ক্ষতি হয়।

৭। অধিকাংশ কার্টুন বা ভিডিও গেমস মারামারি ও সহিংসতাপূর্ণ। এগুলো দেখলে বা খেললে শিশু সহিংস হয়ে ওঠে। অনেক সময় মারামারি শেখে এবং খুব সহজেই আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে। যা শিশুর ভবিষ্যতের জন্য হুমকিস্বরূপ।  

৮। কার্টুনে অনেক নেতিবাচক দিকও দেখানো হয়, অনেক সময় কোমলমতি বাচ্চারা শুধু কার্টুনের চরিত্রের নেতিবাচক দিকগুলোই শেখে।

৯। বেশী বেশী কার্টুন দেখলে শিশুর পড়াশোনায় মনোযোগ কমে যায় এবং একই সাথে স্কুলের প্রতিও তৈরি হয় অনীহা।

 

 

শিশুরা কোমলমতি, আপনি কি চান আপনার শিশু কার্টুনাসক্ত হোক? নিশ্চয় চান না। সেজন্য আপনার রয়েছে কিছু দায়িত্ব, কার্টুনাসক্তি দূরীকরণে অভিভাবকদের করণীয়ঃ-

১। শিশুকে যদি প্রচুর খেলার সুযোগ দেওয়া যায়, তার কল্পনাশক্তি ও সৃজনশীলতাকে উদ্দীপিত করে খেলার বিভিন্ন নির্দেশনা, নিয়ম পর্যায়ক্রম ইত্যাদি বুঝতে ও অনুসরণ করতে সাহায্য করে। তখন শিশু কার্টুন দেখা থেকে বিরত থাকতে পারে।

২। শিশুকে শারীরিক অ্যাক্টিভিটির সঙ্গে যুক্ত করা, যাতে শিশু নিজের বডি ফিটনেস সম্পর্কে আত্মবিশ্বাসী হয়ে ওঠে। যেমন- সাইকেল চালানো, স্কেটিং, বাস্কেটবল, ফুটবল, ঘুড়ি ওড়ানো ইত্যাদি।

৩। শিশুদের বিভিন্ন রকমের মাইন্ড গেমস খেলতে উৎসাহিত করা যেমন- অক্ষর নিয়ে খেলা, ছোট ছোট সহজ ধাঁধা, প্রকৃতির কাছে নিয়ে যাওয়া যাতে তার চিন্তা কল্পনার ব্যবহার হয়।

৪। শিশুদের কঠোরভাবে নয় বরং বুঝায়ে সীমা নির্ধারণ করে দেওয়া যে, কত সময় টিভি দেখবে, কোন কোন নির্দিষ্ট প্রোগ্রাম দেখবে ইত্যাদি।

৫। শিশুদের মানসিক বিকাশে সাহায্য হয় এমন কিছুতে বেস্ত রাখা, শিশুকে বুঝতে দেওয়া যে, টিভি হচ্ছে তার জন্য একটা বিনোদনের সুযোগ মাত্র, দৈনন্দিন রুটিন নয়।

৬। শিশুকে বিভিন্ন সৃষ্টিশীল কাজে ব্যস্ত রাখা; যেমন- আর্ট, গান, অভিনয়, নাচ আবৃত্তি ইত্যাদি।

৭। শিশুর মধ্যে বইপড়ার মনোভাব তৈরি করা, প্রচুর গল্পের বই শিশুকে পড়ে শোনানো, লাইব্রেরির সঙ্গে যুক্ত করা ও বইয়ের প্রতি আগ্রহী করে গড়ে তোলা।

৮। সংসারের ছোট ছোট কাজে তাকে উৎসাহ দেওয়াঃ যেমন-একটি গ্লাস নিয়ে আসা, টেবিল থেকে একটি কলম নিয়ে আসতে বলা ইত্যাদি। এতে করে শিশুর মধ্যে আত্মবিশ্বাস জন্মাবে।

সর্বোপরি অবিভাবক হিসেবে আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে, আপনার আদরের শিশুটি যেন কোনোভাবেই একাকীত্ব এবং বিষণ্নতায় না ভোগে।

 

আপলোডের তারিখঃ ২৯ জানুয়ারী, ২০১৪ ইং।

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
মুখ ও গলার কালো দাগ দূর করার ২টি কার্যকরী উপায় জেনে নিন মুখ ও গলার কালো দাগ দূর করার ২টি কার্যকরী উপায়
এক নিমিষে লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করুণজেনে নিন যেভাবে এক নিমিষে লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করবেন।
বুদ্ধিমান ও মেধাবী সন্তান পেতে যা করবেনজেনে নিন বুদ্ধিমান ও মেধাবী সন্তান পেতে যা করবেন
বিশেষ সময়ে যদি হঠাৎ এমন হয় তাহলে মনোবিদরা জানাচ্ছেন এক বিরল গুণের অধিকারীবিস্তারিত পড়ুন বিশেষ সময়ে যদি হঠাৎ এমন হয় তাহলে মনোবিদরা জানাচ্ছেন এক বিরল গুণের অধিকারী
লিফট ছিঁড়ে গেলে বাঁচার উপায় জেনে নিনবিস্তারিত পড়ুন লিফট ছিঁড়ে গেলে বাঁচার উপায়
মরণ খেলা ব্লু হোয়েল’র ফাঁদ থেকে ছাত্রকে প্রাণে বাঁচালেন স্কুল শিক্ষকজেনে নিন কিভাবে মরণ খেলা ব্লু হোয়েল’র ফাঁদ থেকে ছাত্রকে প্রাণে বাঁচালেন স্কুল শিক্ষক
যেই ভিডিও গেম খেললেই নিশ্চিত মৃত্য (ব্লু হোয়েল )জেনে নিন যেই ভিডিও গেম খেললেই নিশ্চিত মৃত্য (ব্লু হোয়েল )
ব্লু হোয়েল গেমটি কে কীভাবে তৈরি করেন?জেনে নিন ব্লু হোয়েল গেমটি কে কীভাবে তৈরি করেন?
লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করুণবিস্তারিত পড়ুন লেবু দিয়ে শরীরের যেকোন কালো দাগ দূর করুণ
ঠোঁটের কালো দাগ দূর করার দারুণ কার্যকরী কিছু উপায়বিস্তারিত পড়ুন ঠোঁটের কালো দাগ দূর করার দারুণ কার্যকরী কিছু উপায় জেনে রাখুন
আরও ১৪৪৩ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি