পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস

জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে দাঙ্গাপীড়িত দেশগুলোর শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে শান্তিরক্ষী বাহিনী নিয়োগ করে থাকে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সৈন্য প্রেরণকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থান শীর্ষে। বর্তমানে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে ১০টি শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের প্রায় ১০ হাজার ৫০০ সেনা ও পুলিশ সদস্য কাজ করছেন।

 

পটভূমি:

২০০২ সালের ১১ ডিসেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের গৃহীত ৫৭/১২৯ প্রস্তাব অনুযায়ী ইউক্রেনের শান্তিরক্ষী সংস্থা এবং ইউক্রেন সরকারের যৌথ প্রস্তাবনায় এ দিবসের রূপরেখা প্রণয়ন করা হয় এবং ২০০৩ সাল থেকে আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস পালন করা শুরু হয়। ১৯৪৮ সালে সংঘটিত আরব-ইসরাইলী যুদ্ধকালীন যুদ্ধবিরতি পর্যবেক্ষণে গঠিত জাতিসংঘ ট্রুস সুপারভিশন অর্গানাইজেশন দিনকে উপজীব্য করে ২৯ মে তারিখে আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস পালন করা হয়। 

 

বাংলাদেশের ভূমিকা:

বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের অবদান এখন অনুকরণীয় হয়ে উঠেছে। দাঙ্গাপীড়িত বিভিন্ন দেশ থেকে নিরাপত্তার অভাবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের জাতিসংঘ বাহিনী ফিরে এসেছে কিন্তু বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী বাহিনী কখনো এই পথটি মাড়ায়নি। যার ফলস্বরূপ সিয়েরালিয়নবাসী বাংলাকে দ্বিতীয় রাষ্ট্র ভাষা হিসেবে মর্যাদা দিয়েছে। বিভিন্ন রাস্তাঘাটের নামকরণ করেছে বাংলাদেশের নামে। সন্ত্রাস দমন, সংঘাত ও দাঙ্গা দমন করে শান্তি স্থাপনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের শান্তি সেনারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে।

 

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে কর্মরত সৈনিকদের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুর্দ্রা অর্জন করে থাকে। এতে অংশগ্রহণকারীদের মিশনের পর বাড়ি কেনার ও অবসরের জন্য সঞ্চয়ের সুযোগ করে দেয়। এর ফলেও এই মিশনে যাওয়ার জন্য সৈনিকরা উন্মুখ হয়ে থাকে। 

 

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশনের অধীনে উপসাগরীয় এলাকা, বেনিন, নামিবিয়া, কম্বোডিয়া, সোমালিয়া, উগান্ডা/রুয়ান্ডা, মোজাম্বিক, প্রাক্তন যুগোস্লাভিয়া, লাইবেরিয়া, হাইতি, তাজিকিস্তান, পশ্চিম সাহারা, সিয়েরা লিওন, কসোভো, জর্জিয়া, পূর্ব তিমুর, কঙ্গো, আইভরি কোস্ট ও ইথিওপিয়ায় শান্তি রক্ষা কাজে অংশগ্রহণ করে।

 

দাঙ্গাপীড়িত সেই সব দেশে বাংলাদেশের সৈনিকরা সে দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা সহ বিভিন্ন ধরনের কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমানেও বাংলাদেশের সৈনিকরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শান্তিরক্ষী বাহিনী হিসেবে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালন করে চলেছে। এর মাধ্যমে বিশ্বের দাঙ্গাপীড়িত অসহায় মানুষজনের হৃদয়ে বাংলাদেশের নামটি বিশেষভাবে স্থান করে নিয়েছে।  

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
ইংরেজী নববর্ষ১ জানুয়ারী এই দিবসটি পালন করা হয়
মহান বিজয় দিবস১৬ই ডিসেম্বর এই দিবসটি পালন করা হয়
আন্তর্জাতিক জীববৈচিত্র্য দিবস২২ মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস১৯ মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব জাদুঘর দিবস১৮ই মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস১৭ই এপ্রিল এই দিবসটি পালন করা হয়
ঐতিহাসিক ফারাক্কা দিবস১৬ই মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব পরিবার দিবস১৫ই মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব মা দিবসমে মাসের ২য় রবিবার এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট দিবস৮ মে এই দিবসটি পালন করা হয়
আরও ৪৩ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি