পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

মহান স্বাধীনতা দিবস

স্বাধীনতার মর্ম সে জাতিই জানে, যে জাতি বহু ত্যাগ-তীতিক্ষা আর রক্ত বন্যায় ভেসে পরাধীনতার শৃঙ্খলকে খানখান করে ভেঙ্গে মাথা উচু করে দাড়ানোর স্বপ্ন দেখে। আমরা এ স্বপ্ন দেখার সঙ্গে সঙ্গে কাজের নিবিড় বাস্তবায়ন ঘটিয়ে এক বিরল ইতিহাস সৃষ্টি করেছি। সে জাতিই আমরা যারা সবকিছু বিসর্জন দিয়ে লাভ করেছিলাম আমাদের অমূল্য এ স্বাধীনতা। এ স্বাধীনতা কারো দান বা অনুগ্রহ নয়, এটা একান্তই আমাদের অর্জন। গণতান্ত্রিক অধিকারের দীর্ঘ সংগ্রামের ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালের এই দিনে সূচিত হয়েছিল এক দীর্ঘ ও রক্তক্ষয়ী জনযুদ্ধের, নয় মাস পর যার অবসান ঘটে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের মধ্য দিয়ে।

 

পটভূমি:

১৩৩৮ সালে ফখরুদ্দিন মুবারক শাহের স্বাধীনতার ঘোষণা ও ১৫৩৮ সালে গিয়াসউদ্দিন মাহমুদ শাহের উচ্ছ্বেদ পর্যন্ত এ দুইশত বছর বাংলাদেশ অবিচ্ছিন্নভাবে স্বাধীনতার আস্বাদন গ্রহণের পর মুঘল আমলে তা বন্ধ হলেও বার ভূঁইয়াদের স্বাধীন অস্তিত্বই প্রমাণ করে বাংলার মাটিতে স্বাধীনতার শিকড় সুগভীরভাবে প্রোথিত হয়েছিল। ব্রিটিশ আমলে বাঙালির বীরত্বপূর্ণ সুদীর্ঘ সংগ্রাম এই উপমহাদেশের মাটিতে জন্ম দেয় ব্রিটিশ আধিপত্যের মূলোচ্ছেদের। যার সূত্রধরে জন্ম হয় পৃথক দু’টি দেশ ভারত ও পাকিস্তান। আজকের বাংলাদেশ পরিচিতি পায় ‘পূর্বপাকিস্তান’ নামে।স্বল্প সংখ্যক বাঙালি মুসলমান ‘দ্বি-জাতিতত্ত্ব’ অবৈজ্ঞানিক তত্ত্বে পর্যবসিত হয়ে এক অপ্রত্যাশিত অন্ধকার পথে ধাবিত করে। কিন্ত তা স্বল্প সময়ের ব্যবধানে বাংলা ভাষার ওপরে আঘাতের মধ্যদিয়ে প্রমাণ হয় বাঙালি সহজ সরল বলেই করেছিল এই মস্তবড় ভুল। যা পরে ঐতিহ্যপুষ্ট বাঙালি স্বভাবসিদ্ধ সাহস আর বুদ্ধিমত্ত্বতায় জয় করে নেয় এক অবিনশ্বর অধ্যায় ১৯৫২-এর ২১ ফেব্রুয়ারিকে। এরপর ১৯৫৪, ১৯৫৮, ১৯৬২ পেরিয়ে আমরা উপনীত হই সুচতুর জিন্নাহ গংদের অনিবার্য এক সংগ্রামের পথে। ১৯৬৬ সালের জানুয়ারিতে লাহোরে বঙ্গবন্ধু বাঙালির সনদ ছয় দফা ঘোষণা দেন। সেই বছরের ৭ জুন এই ছয় দফা ( ছয় দফা হলো প্রকারন্তরে স্বাধীনতার পরোক্ষ ঘোষণা) আদায়ের দাবিতে পূর্ব পাস্তিানে সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়। আর সে জন্যই পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী তা মেনে না নিয়ে শুরু করেন চরম হিংস্র বৈরীতা। বঙ্গবন্ধু পূর্ব বাংলার জনগণকে ছয় দফা সম্পর্কে অবহিত করতে সারাদেশ ছুটে বেরিয়েছেন। যার ফলে তাঁকে কয়েক ডজন ফৌজদারি মামলার সমুক্ষিণ হতে হয়েছিল। এমনও দেখা গেছে, এক জায়গায় জনসভার পর তিনি গ্রেফতার হয়েছেন এবং পরদিন জামিন নিয়ে আবার অন্য এক জনসভায় গ্রেফতার হয়েছেন। এমনি করে তিনি  জামিন পেয়ে বহু জনসভা-সমাবেশ করে জন সমর্থন জুগিয়েছেন। জনগণ তাঁর পক্ষে থাকার পাশাপাশি বিচারকরাও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ছিলেন বলে তা সহজ হয়েছে। এরচেয়ে উল্লেখ করার মত বিষয়, শেখ মুজিব এই মহান আন্দোলনের প্রচার চালাতে গিয়ে কোনো রকম অপ্রীতিকর-ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের আশ্রয় নেননি। এরপরেও যে কুটচাল হয়নি তা কিন্তু নয়, ব্যক্তি বিশেষরা অভিযোগ কম করেননি কিন্তু কোন কিছুই পারেনি সাহসী ও ন্যায়ের প্রতিক শেখ মুজিবকে থামাতে পারেনি।পর্যায়ক্রমে রাজনীতির মাঠ উত্তপ্ত হয়ে ইতিহাসের পাতায় লিপিবদ্ধ হওয়ার মত এক যুগান্তকারী ঘটনা ঘটতে থাকে। উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান, আইয়ুব খানের পতন, সত্তরের নির্বাচন, বিপুলভাবে আওয়ামী লীগের বিজয়, নির্বাচনোত্তর প্রহসন এবং সর্বশেষে বাঙালিদের ওপর শাসক-বাহিনীর পৈশাচিক আক্রমণই মুক্তিযুদ্ধের মত এক বিশাল ধ্বংসযজ্ঞের সৃষ্টি হয়। হায়েনাদের ধ্বংস আর ধ্বংস খেলার পরেও বীরের জাতি বাঙালিরা জয় ছিনিয়ে আনে পাক হানাদার বাহিনীদের নাস্তানাবুদ করে। ’৭১-এর ২৩ মার্চ গফরগাঁওয়ে সমাবেশে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম পতাকা উত্তেলিত হয় এবং পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে সর্বাত্মক প্রতিরোধ সংগ্রামের ডাকের মধ্যদিয়ে সৃষ্টি হয় আরেক নতুন ইতিহাস। ত্রিশ লক্ষ তাজা প্রাণের বিনিময়ে আমরা লাভ করি স্বাধীনতা নামের সেই স্বপ্নের সোনালী দেশ লাল-সবুজ পতাকা। অথচ, আজ আমরা স্বাধীন হয়েও যেনো স্বাধীন নই। কত রক্ত আর কত মানুষের জীবনের দামে এই স্বাধীন রাষ্ট্র-‘বাংলা মা’ অর্জিত হলো। কিন্তু ভ্রান্তধারার রাজনীতি দিনে দিনে আমাদের সব অর্জনকে যেনো ম্লান করে দিচ্ছে। আজ দেশের সর্বত্রই রাজনীতির কালোছায়ায় সাধারণ মানুষ অসহায় এবং কঠিন এক অবস্থার মুখোমুখি। রাজনীতিবিদরা যে যেমন পারছে তেমন করে দেশের কলকাঠি নেড়েচেড়ে আমাদের সর্বনাশ তথা অন্ধকারের দিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। আমরা এই স্বাধীনতার চার দশকে আহবান জানাই দেশের সকল সুশীল সমাজ ও রাজনীতিবিদদের, দেশের সকল অপশক্তি. ভ্রান্ত রাজনীতিকে পরিত্যাগ করুন, ঘৃণা করুন এবং নতুন করে জাতির প্রকৃত মুক্তির জন্য সংগ্রামে নেমে পড়ুন।

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
ইংরেজী নববর্ষ১ জানুয়ারী এই দিবসটি পালন করা হয়
মহান বিজয় দিবস১৬ই ডিসেম্বর এই দিবসটি পালন করা হয়
আন্তর্জাতিক জীববৈচিত্র্য দিবস২২ মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস১৯ মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব জাদুঘর দিবস১৮ই মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস১৭ই এপ্রিল এই দিবসটি পালন করা হয়
ঐতিহাসিক ফারাক্কা দিবস১৬ই মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব পরিবার দিবস১৫ই মে এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব মা দিবসমে মাসের ২য় রবিবার এই দিবসটি পালন করা হয়
বিশ্ব রেড ক্রস ও রেড ক্রিসেন্ট দিবস৮ মে এই দিবসটি পালন করা হয়
আরও ৪৩ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি