পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

থ্রি-জি মোবাইল

 টু-জি মোবাইলফোর-জি মোবাইলওয়াইম্যাক্স (Wimax)

 

থ্রি-জি (3-G-3rd Generation) প্রযুক্তি একটি ষ্ট্যান্ডার্ড মোবাইল টেলিকমিউনিকেশন সিস্টেম যা International Telecommunication Union (ITU) কর্তৃক নির্ধারিত International Mobile Telecommunication-2000 (IMT-2000) এর শর্তসমূহ পূরণ করে। IMT-2000 ষ্ট্যান্ডার্ড এর প্রধান শর্ত অনুযায়ী এই প্রযুক্তিতে কমপক্ষে 200kbt/s অর্থাৎ প্রায় .2mbit/s গতিতে ডাটা ট্রান্সফারের সুবিধা থাকতে হবে।

 

থ্রি-জি মোবাইল মূলত ৪টি ষ্ট্যান্ডার্ডে কাজ করে যা নিম্নরূপ:

  • UMTS (Universal Mobile Telecommunications System): UMTS  প্রযুক্তি 3GPP (3rd Generation Partnership Project) ভিত্তিক একটি প্রযুক্তি যা প্রাথমিকভাবে ২০০১ সনে ইউরোপ, জাপান, চায়না প্রভৃতি দেশে চালু হয়। এক্ষেত্রে একই অবকাঠামো ব্যবহার করে বিভিন্ন ধরনের radio interface এর সুবিধা দেয়া হয়; যেমন:

-সর্বাধিক ব্যবহৃত Radio interface হচ্ছে W-CDMA

-TD-SCDMA রেডিও ইন্টারফেসটি ২০০৯ সালে শুধুমাত্র চায়নায় চালু করা হয়।

-UMTS সিস্টেমের সর্বশেষ সংস্করন HSPA (Hihg Speed Packet Access) সর্বোচ্চ 56mbit/s ডাউনলিংক গতি সরবরাহ করতে পারে।

  • 3PGP2 ভিত্তিক CDMA2000 পদ্ধতি যা ২০০২ সালে প্রথম IS-95 2G ষ্ট্যান্ডার্ডের অবকাঠামো Sharing এর মাধ্যমে উত্তর আমেরিকা এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় চালু হয়। সর্বশেষ সংস্করণ EVDO (Evolution Data Optimized) Rev B 14.7Mbit/s ডাউনলিংক গতি প্রদান করে।
  • এছাড়াও GSM EDGE মোবাইল ওয়াইম্যাক্স সার্ভিস IMT-2000 এর শর্তাবলী পূরণ করে এবং ITU কর্তৃক থ্রি-জি ষ্ট্যান্ডার্ড হিসাবে স্বীকৃত; তবে এরা প্রচলিত থ্রি জি ব্র্যান্ড নয় বরং সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি সিস্টেম।

 

থ্রি-জি মোবাইল ব্যবহারের সুবিধা

  • থ্রি-জি মোবাইল প্রযুক্তি অত্যন্ত উচ্চগতি সম্পন্ন ডাটা ট্রান্সফারের সুবিধা দেয়। ডাউনলিংকের ক্ষেত্রে এই গতি 14mbps এবং আপলিংক এর ক্ষেত্রে 5.8 mbps.
  • থ্রি-জি মোবাইলে অত্যন্ত শক্তিশালী নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ভয়েজ আদান প্রদানের পাশাপাশি ভয়েজ মেসেজ, টেক্সট মেসেজ, ছবি তোলা, অডিও ভিডিও রেকর্ডিং, হাইস্পীড ইন্টারনেট ব্রাউজিং, গেমিং ইত্যাদি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় কিছু সুবিধা পাওয়া যায়। পূর্বে ৩ মিনিটের একটি গান টু-জি মোবাইলের মাধ্যমে ডাউনলোড করতে ৬-৯ মিনিট সময় লাগতো, বর্তমানে থ্রি-জি প্রযুক্তির সাহায্যে তা ১১-৯০ সেকেন্ডেই করা সম্ভব।
  • থ্রি-জি মোবাইলের সাহায্যে মোবাইলে টিভি দেখা এবং টেলিকনফারেন্সের সুবিধা ভোগ করা সম্ভব।

 

কবে চালু হয়

২০০১ সনের ১ অক্টোবর জাপানের NTT Docomo সর্বপ্রথম জাপানে থ্রি-জি মোবাইল উদ্বোধন করে। ইউরোপে সর্বপ্রথম Telenor বাণিজ্যিক ভিত্তিতে থ্রি-জি প্রযুক্তি চালু করে ২০০১ এর ডিসেম্বরে। SK Telecom ২০০২ এর জানুয়ারীতে দক্ষিণ কোরিয়ায় ১ম থ্রি-জি চালু করে। মে ২০০২ এ KT দক্ষিণ কোরিয়ায় ২য় থ্রিজি নেটওয়ার্ক চালু করে। জুলাই ২০০২ এ Verizon Wireless আমেরিকায় সর্বপ্রথম থ্রিজি নেটওয়ার্কের সফল প্রবর্তন করে। পরবর্তী সময়ে AT&T ও যুক্তরাষ্ট্রে থ্রিজি প্রযুক্তি চালু করে। জুন ২০০৩ এ Hutchinson Telecommunications অষ্ট্রেলিয়ায় বাণিজ্যিক ভাবে থ্রিজি প্রচলন শুরু করে।

আফ্রিকায় প্রথম থ্রিজি নেটওয়ার্ক  চালু করে Emtel. ২০০৭ সালের জুনের মধ্যে ২০ কোটি গ্রাহক বিশ্বব্যাপী থ্রিজি নেটওয়ার্কের আওতাভুক্ত হয়। তবে ৩০০ কোটি  মোবাইল গ্রাহকের তুলনায় এই সংখ্যা একেবারেই নগন্য। জাপান এবং দক্ষিণ কোরিয়ায় থ্রিজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা সর্বোচ্চ, প্রায় ৭০ শতাংশ। অন্যান্য যেসব দেশ থ্রিজি ব্যবহারে এগিয়ে আছে সেগুলো হচ্ছে ইটালী, ইংল্যাণ্ড, অষ্টিয়া, অষ্ট্রেলিয়া এবং সিঙ্গাপুর।

 

চায়না ২০০৯ সালের ১ অক্টোবর থ্রিজি মোবাইলের আনুষ্ঠানিক প্রচলন শুরু করে।

 

দক্ষিণ এশিয়ায় নেপাল সর্ব প্রথম থ্রিজি মোবাইল চালু করে। পাকিস্তান ২০০৮ সালের মাঝামাঝি সময়ে, ভারত ১১ ডিসেম্বর ২০০৮ সালে, আফগানিস্তান ২০১২ সালের ১৯মার্চ থ্রিজি প্রযুক্তির প্রবর্তণ করে। বাংলাদেশে টেলিটক ২০১২ সালের অক্টোবর থেকে পরীক্ষামূলক থ্রিজি সেবা দিচ্ছে। অবশ্য এর আগে বাংলাদেশে City Cell  একটি নেশনওয়াইড থ্রিজি মোবাইল ব্রডব্যাণ্ড সার্ভিস চালু করে; কিন্তু ভয়েস নেটওয়ার্ক না থাকায় প্রকৃত পক্ষে বাংলাদেশ টুজি যুগেই এতোদিন অবস্থান করছিলেন। 

 

থ্রি-জি নিলাম:

২০১৩ সালের ৮ ই সেপ্টেম্বর রাজধানীর রূপসী বাংলা হোটেলে অনুষ্ঠিত নিলামে গ্রামীণ, রবি, বাংলালিংক ও এয়ারটেল থ্রি-জি এর লাইসেন্স পেয়েছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) ৪০ মেগাহার্টজ তরঙ্গ বরাদ্দের জন্য এ নিলাম ডেকেছে। নিলামে ২৫ মেগাহার্টজ তরঙ্গ বিক্রি হলেও এখন ১৫ মেগাহার্টজ অবিক্রীত রয়েছে। প্রতি মেগাহার্জ হরঙ্গের প্রাথমিক মূল্য ২ কোটি মার্কিন ডলার (বাংলাদেশী টাকা ১৬০ কোটি টাকা)। নীতিমালা অনুযায়ী, থ্রিজির সঙ্গে ফোরজি ও এলটিই নেটওয়ার্ক সার্ভিস দিতে পারবে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো। ১৫ বছরের জন্য হবে এই লাইসেন্স। প্রতি পাঁচ বছর পর এটি নবায়নের সুযোগ থাকবে। নিলামে গ্রামীণফোন ৪ ও ৫ নম্বর ব্লক, এয়ারটেল ৬ নম্বর ব্লক, রবি ৭ নম্বর ব্লক ও বাংলালিংক ৮ নম্বর ব্লক বরাদ্দ পেয়েছে। রিজার্ভ রয়েছে ১, ২ ও ৩ নম্বর ব্লক।

 

কে কত মেগাহার্জ বরাদ্দ পেয়েছে:

  • সর্বোচ্চ ১০ মেগাহার্টজ তরঙ্গ বরাদ্দ পেয়েছে গ্রামীণফোন

৫ মেগাহার্টজ করে তরঙ্গ বরাদ্দ পয়েছে রবি, এয়ারটেল ও বাংলালিংক

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
মোবাইলে থ্রি-জিথ্রি-জি মোবাইল সংক্রান্ত সকল খবরাখবর
গোটা বিশ্বে গুগলের ওয়াই-ফাইবিস্তারিত পড়ুন গোটা বিশ্বে গুগলের ওয়াই-ফাই
ওয়াইম্যাক্স (Wimax)ওয়াইম্যাক্স প্রযুক্তি সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য রয়েছে
ফোর-জি মোবাইলফোর-জি প্রযুক্তি সম্পর্কে তথ্য রয়েছে
মোবাইলে বাংলা লেখা ও দেখার সহজ উপায়মোবাইলে বাংলা দেখার পদ্ধতি সম্পর্কে তথ্য রয়েছে
ওয়াই-ফাই এর দিন শেষ , এবার এলো লাই-ফাইপ্রযুক্তি জগতের নতুন আবিষ্কার লাই ফাই নিয়ে কিছু কথা
চোখের ইশারায় চলবে কম্পিউটার!এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য রয়েছে
থ্রি-জি মোবাইলথ্রি-জি প্রযুক্তি সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য রয়েছে
ফেসবুকের প্রথম ব্যাবহারকারী ফেসবুকের প্রথম ব্যাবহারকারী প্রসঙ্গে
অল্প টাকায় একাউন্টস ইনভেন্টরী ও পেরোল সফটওয়ার পেতে ক্লাউড কম্পিউটিং বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার সম্পর্কে তথ্য রয়েছে
আরও ১৪ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি