পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি বিজ্ঞপ্তি

সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

উচ্চ শিক্ষার বিভিন্ন ক্ষেত্রে অগ্রসরমান বিশ্বের সাথে সঙ্গতি রক্ষা ও সমতা অর্জন এবং জাতীয় পর্যায়ে উচ্চশিক্ষা, গবেষণা, আধুনিক জ্ঞানচর্চা ও পঠন-পাঠনের সুযোগ সৃষ্টি ও সম্প্রসারণের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ কর্তৃক অনুমোদিত ২০০৫ সনের ২৮ নং আইনের মাধ্যমে ঐতিহ্যবাহী জগন্নাথ সরকারি কলেজটি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত হয় এবং ২০০৫ সনের ২০ অক্টোবর এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এটি পূর্নাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় হিসাবে স্বীকৃতি পায়। ২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারী  বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় উপাচার্য হিসেবে অধ্যাপক ড. মেসবাহউদ্দিন আহমেদ যোগদান করেন এবং ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০০৯-এ অধ্যাপক ড. মোঃ শওকত জাহাঙ্গীর ট্রেজারার হিসেবে যোগদান করেন।

বিলুপ্ত সরকারী জগন্নাথ কলেজ ক্যাম্পাসের ১১.১১ একর (প্রায়) জমির উপর বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত। ১৮৬৮ খ্রিস্টাব্দে জগন্নাথ রায় চৌধুরী বর্তামান ক্যাম্পাসে ‘জগন্নাথ স্কুল’ নামে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন। স্কুল প্রতিষ্ঠার পরে এর খ্যাতি ও প্রসারে অনুপ্রানিত হয়ে জগন্নাথ রায় চৌধুরীর পুত্র কিশোরীলাল রায় চৌধুরী ১৮৮৪ খ্রিষ্টাব্দে এটিকে কলেজে রূপান্তরিত করেন। ব্রিটিশ ভারতে শিক্ষার সম্প্রসারনের লক্ষ্যে ১৮৮৪ খ্রিস্টাব্দে জগন্নাথ স্কুলকে ‘ঢাকা জগন্নাথ কলেজ’-এ উন্নীত করা হয়। ভারত উপমহাদেশে যে কয়টি বড় কলেজ স্বীয় বৈশিস্ট্যের জন্য সুপরিচিত, বাংলাদেশে সরকারি জগন্নাথ কলেজ তার মধ্যে ছিল অন্যতম। পরবর্তীতে ১৮৮৭ সালে শিক্ষা বিভাগের নির্দেশে স্কুল ও কলেজ শাখা পৃথক হয়ে যায়। তখন স্কুলের নাম হয় ‘কিশোরীলাল জুবিলী স্কুল ‘ (বর্তমানে কে.এল.জুবিলী স্কুল)।

১৯২০ খ্রিস্টাব্দে Indian Legislative Council “Jagannath College Act” আইন পাশ করে নথিভুক্ত করে। ১৯২০ সনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা উপলক্ষে ট্রাস্টি বোর্ডের অবসান ঘটে এবং অ্যাক্ট১৬, ১৯২০-এর আওতায় জগন্নাথ কলেজের সমস্ত সম্পত্তি, দায়দেনার ভার স্থানীয় সরকারের হাতে ন্যস্ত করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার সঙ্গে সঙ্গে কলেজটিকে স্নাতক পর্যায়ের পাঠক্রমে শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ হয়ে যায় এবং এটি ‘জগন্নাথ ইন্টারমিডিয়েট কলেজ’ নামে প্রতিষ্ঠা পায়। এর ২৮ বছর পর ১৯৪৯ সালে পুনরায় স্নাতক পাঠ্যক্রম শুরু হয়।

১৯৬৮ খ্রিস্টাব্দে জগন্নাথ কলেজকে সরকারি কলেজে রূপান্তরিত করা হয়। স্বাধীনতার পর ১‌৯৭৫ সালে এখানে সম্মান ও স্নাতকোত্তর পাঠ্যক্রম চালু হয়। পরে এটিকে বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ এ রূপান্তরিত করা হয়। ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে ভর্তি বন্ধ করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯১-৯২ শিক্ষাবর্ষ থেকে সরকারি জগন্নাথ কলেজ এর শিক্ষা কার্যক্রম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবর্তে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে পরিচালিত হয়।

২০০৯ সালের ২০ অক্টোবর প্রথমবারের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ের চতুর্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী জাকজঁমকপূর্ণভাবে পালিত হয়।

বিলুপ্ত সরকারি জগন্নাথ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত হওয়ার পর উচ্চ শিক্ষার গুনগতমান উন্নয়নের লক্ষ্যে অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ একডেমিক কর্মকান্ড যেমন-একাডেমিক ও প্রশাসনিক, লাইব্রেরী উন্নয়ন, বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি ক্রয়, বই-পুস্তক ও জার্নাল সংগ্রহ, উচ্চতর গবেষনা,  শিক্ষক নিয়োগ, ছাত্র হল নির্মাণ, প্রশিক্ষণ ইত্যাদি কর্মকান্ডে অগ্রাধিকার প্রদান করা হচ্ছে।

ভর্তি প্রক্রিয়া স্বচ্ছতা আনয়নের লক্ষ্যে ২০০৫-০৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে Computerized System-এ ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৫ অনুযায়ী ২০০৫-০৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে সকল  বিভাগে সেমিস্টার পদ্ধতিতে পাঠদান কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। তাছাড়া বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণাধীন ২০-তলা নতুন ভবনের ৭ তলা পর্যন্ত নির্মান কাজ শেষ হয়েছে এবং সেখানে একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম চলছে।

২০০৯-১০ শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪টি অনুষদে ২৮টি বিভাগ রয়েছে। বর্তমানে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ২৪,৬৮৮ ও শিক্ষক সংখ্যা প্রায় ৩৫৯ জন।

 

ক্যাম্পাসের অবস্থান

জনসন রোড, সদরঘাট, ঢাকা।

ফোন- ৭১১০৪১৫ ও ৭১৭৬১৭৯।

ফ্যাক্স- ৭১১৩৭৫২।

ওয়েবসাইট- www.jnu.ac.bd

 

প্রশাসনিক ভবন

প্রশাসনিক ভবন শহীদ মিনারের  পেছনে অবস্থিত।

 

তথ্য কেন্দ্র

প্রশাসনিক ভবন থেকে সকল তথ্য সংগ্রহ করা যায়।

 

অনুষদ ও বিভাগ

অনুষদ সংখ্যা ৪ টি এবং বিভাগ সংখ্যা ২৮ টি।

০১. বিজ্ঞান অনুষদ।

ক) পদার্থ বিজ্ঞান।

খ) গনিত।

গ) রসায়ন।

ঘ) পরিসংখ্যান।

ঙ) প্রানি বিজ্ঞান।

চ) উদ্ভিদ বিজ্ঞান।

ছ) ভূগোল ও পরিবেশ।

জ) মনোবিজ্ঞান।

ঝ) ফার্মেসী

ঞ) কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং।

ট) মাইক্রোবায়োলজি এন্ড বায়োটেকনোলজি।

 

০২. ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ।

ক) হিসাব বিজ্ঞান।

খ) ব্যবস্থাপনা।

গ) ফিন্যান্স।

ঘ) মার্কেটিং

 

০৩. কলা অনুষদ।

ক) বাংলা।

খ) ইংরেজী।

গ) ইতিহাস।

ঘ) দর্শন।

ঙ) আইন।

চ) ইসলামিক স্টাডিজ।

ছ) ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি।

 

০৪. সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ।

ক) অর্থনীতি।

খ) রাষ্ট্রবিজ্ঞান।

গ) সমাজ বিজ্ঞান।

ঘ) সমাজকর্ম।

ঙ) নৃবিজ্ঞান।

চ) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা।

 

শিফট

ক) অনার্স- পর্যায়ে কোন ইভিনিং শিফট নেই।

খ) মাস্টার্স- শুধুমাত্র হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগে ইভিনিং শিফট রয়েছে।

 

ভর্তি কার্যক্রম

ভর্তি পরিক্ষার পূর্বে-

ভর্তির আবেদন মোবাইলে করা হয়। মোবাইল ফোন এর ম্যাসেজ অপসনে গিয়ে নিম্নের নিয়মে আবেদন করতে হয়।

S.S.C    Roll       Board      Pass year.

H.S.C    Roll      Board      Pas year.

Unit             send to       16222.

 

ফিরতি SMS এ একটি Pin number রিসিভ করতে হবে। তারপর SMS এভাবে  লিখতে হবে।

Yes pin numbers contact No send to 16222. এই SMS টি পাঠালেই ভর্তি ফরমের মূল্য ৩৩০ টাকা কেটে নিবে।

 

ভর্তি পরিক্ষার পর-

ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের নোটিশ বোর্ডের প্রদত্ত ফলাফল শিটের উল্লেখিত নির্দেশনা অনুসরন করেই পরবর্তী করনীয় করে থাকে।

 

ভর্তির খরচ-

বিভাগ অনুসারে এ খরচ ১৪,৫০০ টাকা থেকে ১৬,৫০০ টাকার মধ্যে।

 

ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র-

ক)

S.S.C এবং H.S.C পরীক্ষার মূল মার্কশীট

S.S.C এবং H.S.C পরীক্ষার মূল সনদপত্র

S.S.C এবং H.S.C পরীক্ষার মূল প্রবেশপত্র

 

খ) S.S.C এবং H.S.C পরীক্ষার মূল প্রবেশপত্র এবং রেজিস্ট্রেশন কার্ড।

গ) সদ্যতোলা রঙ্গিন ছবি।

 

সেমিস্টার খরচ

বিষয় ভিত্তিক প্রতি সেমিস্টার খরচ ৩,০০০ থেকে ৪,০০০ টাকা।

 

ক্লাসের ব্যাপ্তি

১ ঘন্টা ৩০ মিনিট।

 

ফলাফল পদ্ধতি

সনাতন ও গ্রেডিং উভয় পদ্ধতিই বর্তমানে প্রচলিত।

 

বৃত্তি তথ্য

০১. দরিদ্র ছাত্র-ছাত্রীদের বিনা বেতনে পড়ার সুবিধা দেয়া হয়। তবে তাদেরকে অবশ্যই তাদের এলাকার স্থানীয় সরকারের প্রত্যয়নপত্র আবেদনপত্রের সাথে সংযুক্ত করতে হয়। নিম্নোক্ত বৃত্তি ও উপবৃত্তিসমূহ চালু রয়েছে-

ক) বোর্ড কর্তৃক প্রদত্ত বৃত্তি সুবিধা।

খ) বিভিন্ন ব্যাংক প্রদত্ত বৃত্তি সুবিধা।

গ) সেনাকল্যাণ তহবিলের বৃত্তি সুবিধা।

ঘ) হিন্দু উপবৃত্তি।

ঙ) বৌদ্ধ উপবৃত্তি।

চ) খ্রিস্টান উপবৃত্তি।

ছ) সরকারি কর্মচারী কল্যাণ তহবিলের বৃত্তি।

উপরে উল্লেখিত শাখা কর্তৃক প্রদত্ত বৃত্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে এর বৃত্তি শাখায় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমাদান সাপেক্ষে বৃত্তির অর্থ প্রদান করে থাকে।

উল্লেখ্য ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তির জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ফান্ড এখনো গঠিত হয়নি।

 

লাইব্রেরি

ক) সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত এটি খোলা থাকে। তবে ৪.৪০ মিনিটের মধ্যে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে লাইব্রেরি ত্যাগ করতে হয়।

খ) লাইব্রেরি কার্ড করে লাইব্রেরিতে অবস্থান করে বই পড়া যায়।

গ) কার্ড সাপেক্ষে বই বাসায় নিয়ে যাওয়া যায়।

ঘ) এখানে একাডেমিক সকল ধরনের বই পাওয়া যায় তবে, রেফারেন্স বই ও পত্রিকার জন্য রয়েছে আলাদা একটি কর্নার, যার নাম ‘মুক্তিযোদ্ধা কর্নার’।

ঙ) লাইব্রেরিতে একসাথে ১৩০ জন ছাত্র-ছাত্রী বসে পড়া-শোনা করতে পারে। বসার জন্য চেয়ার, পড়ার জন্য রয়েছে টেবিল।

চ) লাইব্রেরি একাডেমিক ভবনের ৬ষ্ঠ তলায় অবস্থিত। এই তলায় পুরা অংশ নিয়েই লাইব্রেরি অবস্থিত।

 

ল্যাঙ্গুয়েজ সেন্টার

ইংরেজী বিভাগের সেন্টার ফর ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ সেন্টার রয়েছে।

এখানে ভর্তির নিয়মাবলী-

ক) সার্টিফিকেট কোর্সঃ ভর্তি যোগ্যতা H.S.C, মেয়াদ ৪ মাস।

খরচ- ৯,৫০০ টাকা।

খ) ডিপ্লোমা কোর্সঃ ভর্তি যোগ্যতা মাস্টার্স, মেয়াদ ৮ মাস।

খরচ- ১৯,৫০০ টাকা।

ফরম ইংরেজী বিভাগ থেকে ৩০০ টাকায় কিনতে হবে। ভর্তির টাকা জমা দিতে হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রনী ব্যাংক শাখায়।

 

ক্লাব

০১. বাঁধন-

ক) সদস্যপদ পেতে অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী হতে হবে।

খ) অরাজনৈতিক ছাত্র-ছাত্রীদের সদস্য করা হয়।

অবস্থান-

অবকাশ ভবনের ৪র্থ তলায়।

 

০২. জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি-

সদস্যপদ পেতে অবশ্যই বিশ্ববিদ্যায়ের ছাত্র-ছাত্রী হতে হবে।

অবস্থান-

অবকাশ ভবন, কক্ষ নং ৩০২।

ই-মেইল- [email protected]

 

০৩. বাংলাদেশে উদীচী শিল্পগোষ্ঠী

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী সবাই সদস্য হতে পারবে।

অবস্থান- অবকাশ ভবন ৪র্থ তলা।

ই-মেইল- [email protected]

 

০৪. রেঞ্জার ইউনিট (শুধুমাত্র মেয়েদের জন্য)

ক) শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা সদস্য হতে পারবে।

খ) নির্দিষ্ট ফরম পূরণ করতে হবে।

গ) ২ কপি ছবির প্রয়োজন হবে।

অবস্থান- অবকাশ ভবনের ২য় তলায়।

 

০৫. জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি

সদস্যপদ পেতে যেকোন জাতীয় পর্যায়ে স্বীকৃত পত্রিকার রিপোর্টার হতে হবে।

 

অবস্থান- অবকাশ ভবন (৩য় তলা), কক্ষ নং ৩০১।

 

০৬. জবি আবৃত্তি সংসদ

সদস্যপদের নিয়মাবলী-

আগ্রহী শিক্ষার্থীদেরকে ৩০ টাকা দিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি সংসদের ভর্তির ফরম সংগ্রহ করে নির্দিষ্ট সময়ের ভিতরে জমা দিতে হবে। ভর্তির সঙ্গে ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবিসহ প্রতিষ্ঠানের আইডি কার্ডের ফটোকপি জমা দিতে হবে।

 

BNCC (Bangladesh National Cadet Care)

অবস্থান-

অবকাশ ভবনের ৩য় তলায়।

সদস্য হওয়ার নিয়মাবলী-

ক) বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী হতে হবে।

খ) BNCC এর নির্ধারিত ফরম পূরন করতে হবে।

গ) সদ্যতোলা ২ কপি ছবি লাগবে।

ঘ) মেডিকেল টেস্টের প্রয়োজন পড়বে।

ঙ) মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ন হতে হবে।

চ) দেড় মাসের প্রশিক্ষণে (দুটি ক্লাসে অনুপস্থিত থাকলে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে) অংশ গ্রহন করতে হবে।

প্রশিক্ষণ শেষে একজন সদস্য ক্যাডেট হিসেবে BNCC তে যোগদান করে।

 

মেডিক্যাল সেন্টার

একাডেমিক ভবন, নিচতলা, ১০২ নং কক্ষ।

ক) এখানে প্রাথমিক চিকিৎসা ও প্রেসক্রিপশন করা হয়।

খ) কোন প্রকার ফি এর প্রয়োজন হয়না।

গ) ঔষধ পাওয় যায় না।

 

ক্যান্টিন

অবকাশ ভবনের নিচতলায় এর অবস্থান। যা বর্তমানে বন্ধ রয়েছে।

 

পরিবহন

০১.  উল্কা-১

উত্তরা, (আজমপুর বাসষ্ট্যান্ড), কুড়িল বিশ্বরোড, বাড্ডা, রামপুরা, মালিবাগ, পল্টন, গুলিস্তান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

০২. উল্ক-২

টঙ্গী ব্রিজ, এয়ারপোর্ট, বনানী, মহাখালি, নাবিস্কো, মগবাজার চৌরাস্তা, মালিবাগ, কাকরাইল, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

০৩. প্রজন্ম

খিলগাঁও, বাসাবো, বৌদ্ধ মন্দির, মুগদা, টিটিপাড়া, মানিকনগর, গোলাপবাগ, দয়াগঞ্জ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

অনির্বাণ-১

মিরপুর-১২, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, তালতলা, আগারগাঁও, বিজয় সরণী, ফার্মগেট, বাংলা মোটর, শাহবাগ, পল্টন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

উত্তরণ

মিরপুর-১৪, মিরপুর-‌১০, মিরপুর-১, টেকনিক্যাল, আসাদ গেইট, কলাবাগান, নিউ মার্কেট, আজিমপুর, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

দুর্জয়

মিরপুর-২, মিরপুর-১, টেকনিক্যাল, কল্যাণপুর বাসডিপো, আসাদগেট, মোহাম্মদপুর, শংকর, জিগাতলা, নিউমার্কেট, আজিমপুর, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

স্বপ্নীল

মদনপুর চৌরাস্তা, কাঁচপুর ব্রিজ, চিটাগাং রোড, সাইনবোর্ড, শনির আখড়া, ধনিয়া, যাত্রাবাড়ি, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

প্রজন্ম

আরামবাগ (নটরডেম), মুগদা (মাছ বাজার), মানিক নগর, সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ি, দয়াগঞ্জ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

চন্দ্রমূখী

ফার্মগেট, আসাদগেট, শুক্রাবাদ, কলাবাগান, নিউমার্কেট, আজিমপুর, পলাশী, গুলিস্তান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

 

হল

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ১১ টি হল থাকলেও সেগুলো এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে দখলে নেই। হলের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস ও অবস্থান তুলে ধার হল-

ক) কর্তৃপক্ষের প্রচেষ্টায় ও দানশীল ব্যক্তিদের উদ্যোগে ১১ট ছাত্রাবাস ও একটি কর্মচারী আবাস গড়ে উঠে। কিন্তু আশির দশকে এরশাদ সরকার ক্ষমতায় আসার পর জগন্নাথ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা যাতে আন্দালনে অংশগ্রহন করতে না পারে, সেজন্য তাদেরকে হল থেকে নামিয়ে দেয়া হয়।

২০০৫ সালের পর হল উদ্ধারে উদ্যোগে নেন সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম খান। হলগুলোর সমাপ্তির তথ্য জানাতে ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি বেসরকারি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগে দেন। ২০০৮ সালের জুনে তারা প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন ৬টির বৈধ কাগজপত্র রয়েছে এবং বাকি ৫টি সরকারের সম্পত্তি। নিম্নে এদের ঠিকানা ও অবস্থান দেয়া হল-

ক) আব্দুর রহমান হল- ৬, এসি রোড, আরমানিটোলা।

খ) শহীদ আনোয়ার শফিক হল- আরমানিটোলায় আব্দুর রহমানের হলের বিপরীতে অবস্থিত।

গ) তিব্বত হল-৮, ৯ জিলপার্ক লেন, ওয়াইজঘাট, পাটুয়াটুলী।

এহলের জায়গার পরিমান ৮.৮৮৯ কাঠা।

ঘ) সাইদুর রহমান হল এবং রউফ মজুমদার হল-

পাশাপাশি অবস্থিত এ হল দুটির অবস্থান টিপু সুলতান রোডের ১৫, ১৭, ২০ লেনে।

ঙ) শহীদ আজমল হোসেন হল

১৬ ও ১৭ নং রমাকান্ত নন্দী লেন, পাটুয়াটুলী। (জবি’র পশ্চিম গেটে অবস্থিত)।

চ) বজলুর রহমান হল

১৬, মালিটোলা, বংশাল।

ছ) নজরুল ইসলাম খাঁন হল

৫/১,২,৩,৪, ৬ নং গোপীমোহন বসাক লেন, টিপু সুলতান রোড।

জ) বাণী ভবন- একমাত্র বাণী ভবন হলটির একাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্তৃপক্ষের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

অবস্থান- ১, ঈশ্বরচন্দ্র দাস লেন, প্যারিদাস রোড।

ঝ) শহীদ শাহাবুদ্দিন হল- ৮২, ঝুলনবাড়ি লেন, কোতোয়ালি থানা।

ঞ) ড. হাবিবুর রহমান হল- ৩৫, ৩৬, ৩৭ গোলক পাল লেন, মালিটোলা, বংশাল।

জায়গার পরিমান ৯.৩৯ কাঠা।

কর্মচারী আবাস- ২৬, পাটুয়াটুলী।

 

কর্মচারী আবাসন

২৬, পটুয়াটুলিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মাচারীদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা রয়েছে।

 

সীমাবদ্ধতা

১. বিশ্বিদ্যালয়টিতে কোন ছাত্র-শিক্ষক মিলনকেন্দ্র নেই।

২. বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্রেডিট ট্রান্সফারের কোন সুবিধা নেই।

৩. বিশ্ববিদ্যালয়টিতে কোন ইনষ্টিটিউট নেই।

 

আপডেটের তারিখ ১৫ মে ২০১৩

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়শাহবাগ, শাহবাগ
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়লালবাগ, পলাশী
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়শাহবাগ, শাহবাগ
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়কোতোয়ালী, সদরঘাট
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়সাভার, সাভার
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়N\A, N\A
বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়উত্তরা, সেক্টর ৯
বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়তেজগাঁও, তেজগাঁও
শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়শেরে বাংলা নগর, শেরে বাংলা নগর
ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গাজীপুর, গাজীপুর
আরও ৪ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি