পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

সৎ গুণাবলী সম্পন্ন ব্যক্তিরাই সফল

আল্লাহ তাআলা পৃথিবীতে মানুষকে তাঁর ইবাদত করার জন্য পাঠিয়েছেন। মানুষকে সত্য ও ন্যায়ের পথ দেখানোর মহান দায়িত্ব নিয়ে সত্য বিধানসহ যুগে যুগে প্রেরিত হয়েছেন অসংখ্য নবি ও রাসুল। যারা মানুষকে সত্য ও ন্যায়ের পথ দেখিয়েছেন।
 
যখনই কোনো নবি-রাসুলের যুগের অবসান হয়েছে; তখন সে নবি ও রাসুলদের অনুসারিরা তাদের জন্য নির্ধারিত বিধানের লংঘন, পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করেছেন। যা ছিল মারাত্মক অভিশপ্ত কাজ। এ সবের মাঝেও যুগে যুগে প্রত্যেক নবি ও রাসুলদের অনুসারিদের মধ্যে কিছু সংখ্যক লোক ছিল সত্য ও ন্যায়ের ওপর প্রতিষ্ঠিত।
 
যারা তাদের ওপর অর্পিত ধর্ম গ্রন্থের যথাযথ অনুসরণ, পঠন ও বিশ্বাস করতো। সত্য ও ন্যায়ের বিষয়ে তারা কখনো কোনো বিধানের লংঘন, পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করেনি। আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে তা সুস্পষ্ট ভাষায় তুলে ধরেছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘আমি যাদেরকে কিতাব দিয়েছি, তারা তাকে (ধর্মগ্রন্থ) যথাযথভাবে পাঠ করে। তারা তার ওপর সাচ্চা দিলে ঈমান আনে। আর যারা তার সাথে কুফরি নীতি অবলম্বন করে তারাই প্রকৃতপক্ষে ক্ষতিগ্রস্ত। (সুরা বাক্বারা : আয়াত ১২১)
 
এ আয়াতে আল্লাহ তাআলা আহলে কিতাবের অনুসারিদের মধ্যে যারা সৎ ও ন্যায়ের ওপর অটল ছিল তাদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। তারা ছিল উন্নত চরিত্রের অধিকারী। তাদের কর্মকাণ্ড ও তাদের ধর্মগ্রন্থ পাঠ ও এর অনুশীলনের কারণে সৎ গুণাবলী সম্পন্ন লোক ছিলেন তা ওঠে এসেছে আলোচ্য আয়াতে।
 
তাদের মধ্যে একজন ছিলেন হজরত আবদুল্লাহ ইবনে সালামাহ। যিনি বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আগমনের পর ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন।
 
ইসলঅমের আগের আসমানী কিতাবের অনুসারীদের মধ্যে যারা সৎ ও ন্যায়ের অনুসারী ছিলেন তাদের কিছু মৌলিক গুণাবলী ছিল এমন-
 
>> অত্যাধিক একাগ্রতা ও মনোযোগের সঙ্গে তাদের ধর্মগ্রন্থ তেলাওয়াত করতো। যখন জান্নাতের আলোচনা আসতো তখন তারা আল্লাহর কাছে জান্নাত কামনা করতো এবং যখন জাহান্নামের কথা আসতো তখন তারা তা থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থণা করতো।
 
>> তাদের ধর্মগ্রন্থে নির্দেশিত হালাল বস্তুকে তারা হালাল মনে করতো এবং হারাম নির্দেশক জিনিসকে হারাম মনে করতো। এ বিধানের তারা কোনোরূপ বিকৃত করেনি। এ হালাল-হারামের বিধানের ব্যাপারে তারা কোনোরূপ বাড়াবাড়ি ও ছাড়াছাড়ি করেনি।
 
>> তাদের মধ্যে একদল সৎ গুণাবলী সম্পন্ন লোক এমন ছিল, যারা তাদের ধর্মগ্রন্থে লিখিত বিষয়গুলো হুবহু মানুষের কাছে প্রচার করে বেড়াত। কোনো কিছুই গোপন করতো না।
 
>> তারা তাদের আসমানী কিতাবে নাজিলকৃত সুস্পষ্ট বিধানের ওপর আমল করার পাশাপাশি অস্পষ্ট আয়তের ওপর বিশ্বাস পোষণ করতো। যে বিষয়গুলো অস্পষ্ট থাকতো; ভাব বুঝে আসতো না; তারা তাদের আলেমদের নিকট থেকে বুঝে নেয়ার চেষ্টা করতো।
উল্লেখিত আয়াতে আল্লাহ তাআলা ওই সব লোকদেরকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, ‘যারা তাদের (ইয়াহুদি) ধর্মগ্রন্থের অনুসরণ না করে পরিবর্তন ও পরিবর্ধন করে এবং প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রিসালাত ও আসমানি গ্রন্থ পবিত্র কুরআনুল কারিমের বিধান বিশ্বাস স্থাপন করবে না; তারাই হবে ক্ষতিগ্রস্ত।
 
এ আয়াতের ব্যাখ্যায় তাফসিরে জালালাইনে এসেছে, ‘আহলে কিতাবের ৪০ জন লোকের একটি প্রতিনিধি দল বিশ্বনবির দরবারে উপস্থিত হয়। তাদের মধ্যে হাবশার ৩২ জন অধিবাসী ছিল আর সিরিয়ার পাদ্রীদের মধ্য থেকে ৮ জন ছিলেন।
 
এ দলটি হজরত জাফর ইবনে আবু তালিব রাদিয়াল্লাহু আনহুর নেতৃত্বে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের দরবারে এসেছিলেন। হজরত আবু জাফর ছিলেন হজরত আলি রাদিয়াল্লাহু আনহু আপন ভাই ছিলেন। বিশ্বনবির দরবারে আগত ৪০ জনের প্রতিনিধি দলের সবাই পবিত্র ধর্ম ইসলাম গ্রহণ করেন। তাদের ব্যাপারেই এ আয়াত নাজিল হয়েছিল।
 
পরিশেষে...
আল্লাহ তাআলা যুগে যুগে তার বিধানকে সমুন্নত করার লক্ষ্যে নবি-রাসুল প্রেরণ করেছেন। সর্বশেষ বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-কে প্রেরণের মাধ্যমে নবুয়ত ও রিসালাতের দরজা বন্ধ করে দেন। তিনিই হলেন সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবি।
 
বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর ওফাতের পর ইসলামের ঝাণ্ডা উড্ডীন করার জন্য; সমাজে কুরআনের বিধান বাস্তবায়নের এ মহান দায়িত্ব অর্পিত হয় ওলামায়ে কেরামের ওপর। যার ঘোষণা করেছেন স্বয়ং বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম- ‘আলেমগণই আম্বিয়াগণের উত্তরসূরি।’ যারা এ ঘোষণার ওপর আমল করবে তারাই হবে নাজাত প্রাপ্ত।
 
আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সৎ গুণাবলী সম্পন্ন হতে কুরআন বুঝার; কুরআনের বিধান মানা এবং কুরআন অনুযায়ী সমাজ গঠন করার তাওফিক দান করুন। কুরআনের বিধান ও বিশ্বনবির আদর্শ বাস্তবায়নের মাধ্যমে আল্লাহ তাআলার নৈকট্য অর্জন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।
 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
যখন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতো এবং ঝড়ো বাতাস বইত; তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) যা বলতেনবিস্তারিত জানুন যখন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতো এবং ঝড়ো বাতাস বইত; তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) কি বলতেন
না দেখেই বিয়ে: অতঃপর বাসরঘরে যা দেখলেন যুবক!বিস্তারিত জানুন না দেখেই বিয়ে: অতঃপর বাসরঘরে যা দেখলেন যুবক!
আল্লাহ তা’য়ালা মদকে তিনটি পর্যায়ে হারাম ঘোষনা করেনবিস্তারিত জেনে নিন আল্লাহ তা’য়ালা মদকে তিনটি পর্যায়ে হারাম ঘোষনা করেন
জাকাতের অর্থ দেয়া যাবে যাদেরজাকাতের অর্থ দেয়া যাবে যাদের সম্পর্কে
সকাল-সন্ধ্যায় যে দোয়া পড়তেন প্রিয়নবিসকাল-সন্ধ্যায় যে দোয়া পড়তেন প্রিয়নবি সম্পর্কে
রমজানের অন্যতম শিক্ষা ‘জামাআতে নামাজ আদায়’রমজানের অন্যতম শিক্ষা ‘জামাআতে নামাজ আদায়’ সম্পর্কে
জুমআর নামাজ তরক করা মারাত্মক গোনাহজুমআর নামাজ তরক করা মারাত্মক গোনাহ সম্পর্কে
রমজানের পর শাওয়ালের ৬ রোজার প্রয়োজনীয়তারমজানের পর শাওয়ালের ৬ রোজার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে
লাইলাতুল কদর : যেভাবে কাটাবেন আজকের রাতলাইলাতুল কদর : যেভাবে কাটাবেন আজকের রাত সম্পর্কে
রমজানের শেষ দিনগুলোর বিশেষ আমলরমজানের শেষ দিনগুলোর বিশেষ আমল সম্পর্কে
আরও ৬৪৯ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি