পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

যে সম্পদের জাকাত দিতে হবে

জাকাত শব্দের অর্থ হচ্ছে বৃদ্ধি পাওয়া; বেশি হওয়া। ইহা হচ্ছে বিশেষ সম্পদে নির্ধারিত ব্যক্তিদের জন্য নির্দিষ্ট সময়ে আদায় করা ফরজ। জাকাত আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের পক্ষ থেকে নিসাব পরিমান সম্পদের মালিক বান্দার উপর ফরজ করা হয়েছে।  আল্লাহ রাব্বুল আলামীন বলেন, “তাদের মালামাল থেকে জাকাত গ্রহণ করুন যাতে তার মাধ্যমে তাদেরকে পবিত্র ও পরিচ্ছন্ন করতে পারেন। আর তাদের জন্য দোয়া করুন; নি:সন্দেহে আপনার দোয়া তাদের জন্য স্বান্ত্বনাস্বরূপ। বস্তুত : আল্লাহ সবকিছু শোনেন, জানেন। (সূরা তাওবাহ : আয়াত ১০৩); তাহলে কোন কোন জিনিসের জাকাত দিতে হয় এবং কি পরিমাণ সম্পদ হলে জাকাত দিতে হয়; তা জানা মুসলমান মাত্রই অত্যন্ত আবশ্যক।

আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যে জাকাত বিধিবিধান করেছেন তা তিন ধরণের-
প্রথম- সম্পদের জাকাত :
১. স্বর্ণ ও রূপা এবং সকল মুদ্রা;
২. ‘বাহিমাতুল আনআ’ম  তথা উট, গরু, দুম্বা-ভেড়া ও ছাগল; যেগুলো মুক্তভাবে বিচরণকারী।
৩. জমিন থেকে যা বের হয়; যেমন- শস্যদানা, ফল-ফলাদি ও খনিজপদার্থ।
৪. ব্যবসা সামগ্রী;
দ্বিতীয়- ব্যক্তি দায়িত্বের ফরজ জাকাত। যা প্রতিটি মুসলিমের প্রতি রমজান মাসের শেষে ঈদের নামাজের পূর্বে আদায় করা ফরজ হয়। অর্থাৎ সাদাকাতুল ফিতর।
তৃতীয়- উত্তম দান খয়রাত। যা মুসলিম ব্যক্তি আল্লাহর নিকট বেশি ছাওয়াবের আশায় অন্যের প্রতি ইহসান করে থাকে।

১. স্বর্ণ ও রূপার জাকাত হচ্ছে আড়াই ভাগ (২.৫০%)

স্বর্ণের পরিমাণ : স্বর্ণ বিশ দিনার* ও এর অতিরিক্ত হলে শতকরা আড়াই ভাগ (২.৫০%) জাকাত ফরজ হবে। ২০ দিনার সমান হবে ৮৫ গ্রাম স্বর্ণ। যা ভরির হিসাবে সাড়ে সাত তোলা বা ভরি।

রূপার পরিমাণ :
রূপা দুই শত ও এর অধিক সংখ্যা দিরহাম হলে বা ওজনে পাঁচ আওয়াক ও এর বেশি হলে শতকরা আড়াই ভাগ (২.৫০) জাকাত ফরজ হয়। এই হিসাবে দুই শত দিরহাম সমান ৫৯৫ গ্রাম হয়। যা ভরি/তোলার হিসাবে সাড়ে ৫২ তোলা রূপা হয়।
মনে রাখতে হবে- জাকাতে দেয়ার নিসাব বা পরিমাণ মিলানোর জন্য স্বর্ণ ও রূপা এক সাথে মিলানো যাবে না। আলাদা আলাদা হিসাবে হতে হবে।
 *দিনার : এক দিনার (স্বর্ণমদ্রা) সমান হচ্ছে এক মিছকাল। আর এক মিছকাল বর্তমান যুগের হিসাবে ৪.২৫ গ্রাম।

মুদ্রাসমূহের জাকাত-
বর্তমান যুগের মুদ্রাসমূহ যেমন- রিয়াল, ডলার, টাকা ইত্যাদির বিধান স্বর্ণ-রূপার বিধানের মতোই। কিমাত তথা বর্তমান মূল্যের ভিত্তিতে নির্ধারণ করতে হবে।মুদ্রা পরিমাণ যখন স্বর্ণের বা রূপার মূল্যের সম পরিমান নেসাবে পৌঁছবে তখন তাতে জাকাত ফরজ হবে। আর জাকাত আদায়ের পরিমাণ হচ্ছে ২.৫০% ভাগ যখন পূর্ণ এক বছর অতিবাহিত হবে।

মুদ্রার জাকাত বের করার পদ্ধতি :
যেমন ধরা যাক- বর্তমান বাজারে এক ভরি স্বর্ণের দাম ৫০,০০০/- পঞ্চাশ হাজার টাকা তাহলে সাড়ে সাত ভরি স্বর্ণের দাম হবে ৩,৭৫,০০০/- তিন লাখ পঁচাত্তর হাজার টাকা। যার নিকট সর্ব নিম্ন এই টাকা থাকবে, তাকে ২.৫০% আড়াই ভাগ জাকাত আদায় করতে হবে। অর্থাৎ তাকে ৯,৩৭৫/- নয় হাজার তিন শত পঁচাত্তর টাকা জাকাত দিতে হবে।
অথবা

সমস্ত সম্পদকে ৪০ দ্বারা ভাগ করলে দশ ভাগের এক চতুর্থাংশ দাঁড়াবে। আর ইহাই স্বর্ণ-রূপার ও এর হুকুমে যা আসে তার জাকাত। মনে করুন এক জনের নিকট টাকা আছে ৩,৭৫,০০০/- তিন লাখ পঁচাত্তর হাজার টাকা (৩,৭৫,০০০/৪০=৯৩৭৫/-) ইহা হচ্ছে তার ঐ তিন লাখ পঁচাত্তর হাজার টাকার জাকাত। আর ইহা দশ ভাগের এক চতুর্থাংশ।

২. ‘বাহিমাতুল আনআ’ম তথা উট, গরু, দুম্বা-ভেড়া ও ছাগল-এর জাতাতের দু’টি অবস্থা :
ক. যখন এ পশুগুলো একটি পূর্ণ বছর বা অধিকাংশ সময় বৈধ মরুভূমি বা খোলা মাঠে কিংবা চারণভূমিতে মুক্তভাবে বিচরণ করবে। বছর পূর্ণ হওয়ার পাশাপাশি নির্ধারিত নিসাবে বা পরিমাণে পৌঁছবে তখন তাতে জাকাত ফরজ হবে। চাই তা দুধের জন্য বা বাচ্চা নেয়ার জন্য বা মোটা-তাজা করার জন্য হোক। প্রতিটি পশুর যে জাতি রয়েছে জাকাত তার জাতি দ্বারাই আদায় করতে হবে। জাকাত দেয়ার সময় সর্বোত্তম বা সর্বনিম্ন মানের পশুটি নেয়া যাবে না। বরং মধ্যমটি গ্রহণ করতে হবে।
খ. যখন এ পশুগুলোর খাদ্য নিজের বাগান থেকে বা ক্রয় করে ব্যবস্থা করা হবে। যদি এগুলো ব্যবসার নিয়্যতে ক্রয় করে আর তার উপর এক বছর অতিবাহিত হয় তবে বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করে ২.৫০% (আড়াই ভাগ) জাকাত দিতে হবে।
আর যদি ব্যবসার জন্য না হয়; বরং দুধ বা বাচ্চা দেয়ার জন্য হয় এবং পশু খাদ্যের ব্যবস্থা মালিককে করতে হয় তবে এতে কোনো জাকাত নেই।

পশুরু নিসাব
১. মেষ (দুম্বা-ভেড়া) ও ছাগলের সর্বনিম্ন নিসাব হচ্ছে ৪০ টি (চল্লিশটি); এ পশুগুলো ৪০ থেকে ১২০ পর্যন্ত জাকাতের পরমাণ একটি মেষ বা ছাগল; ১২১ থেকে ২০০টির জন্য দু’টি মেষ বা ছাগল; ২০১ থেকে ৩৯৯ পর্যন্ত তিনটি মেষ বা ছাগল। এরপর প্রতি শ’তে একটি করে চলতে থাকবে।
২. গরুর সর্বনিম্ন নিসাব হচ্ছে ৩০ টি (ত্রিশটি); গরু ৩০-৩৯ হলে এক বছরের একটি বেটা বা বেটি বাছুর; ৪০-৫৯ হলে দু’বছরের একটি বেটি বাছুর; ৬০-৬৯ হলে দু’টি এক বছরের বেটা বা বেটি বাছুর; ৭০-৭৯ হলে দু’বছরের একটি বেটি বাছুর ও এক বছরের একটি বেটা বাছুর জাকাত দিতে হবে। এরপর প্রতি ৩০টিতে একটি বেটা বা বেটি বাছুর; এবং প্রতি ৪০টিতে দু’বছরের একটি বেটি বাছুর। ৫০টি গরুতে দু’বছরের একটি বেটি বাছুর; ৭০ গরুতে একটি এক বছরের বেটা বা বেটি বাছুর ও দুই বছরের একটি বেটি বাছুর এবং ১০০ টি গরুতে দুইটি এক বছরের বেটা বা বেটি বাছুর ও একটি দু’বছরের বেটি বাছুর। আর ১২০টি গরুতে চারটি এক বছরের বেটি বাছুর অথবা তিনটি দু’বছরের বেটি বাছুর। গরুর জাকাতের হিসাব এভাবেই চলতে থাকবে।

৩. উটের সর্বনিম্ন নিসাহ হচ্ছে সর্বনিম্ন  ৫টি-
৫টা থেকে ৯টা পর্যন্ত ১টি ছাগল
১০টা থেকে ১৪ পর্যন্ত ২টি ছাগল
১৫ থেকে ১৯ পর্যন্ত ৩টি ছাগল
২০ থেকে ২৪ পর্যন্ত ৪টি ছাগল
২৫ থেকে ৩৫ পর্যন্ত এক বছরের (বিনতে মাখাজ) একটি উষ্ট্রী
৩৬ থেকে ৪৫ পর্যন্ত দু’বছরের একটি উষ্ট্রী (বিনতে লাবূন)
৪৬ থেকে ৬০ পর্যন্ত (হিক্কাহ) তিন বছরের একটি উষ্ট্রী
৬১ থেকে ৭৫ পর্যন্ত (জিয্আ) চার বছরের উষ্ট্রী
৭৬ থেকে ৯০ পর্যন্ত ২টি বিনতে লাবূন (দু’বছরের দু’টি উষ্ট্রী)
৯১ থেকে ১২০ পর্যন্ত ২টি হিক্কাহ (তিন বছরের ২টি উষ্ট্রী)
(যেহেতু আমাদের দেশে এত সংখ্যক উট হয় না বিধায় উটের জাকাত নিসাব এটুকুই রাখছি)

৩. জমিন থেকে যা বের হয়; যেমন- শস্যদানা, ফল-ফলাদি ও খনিজপদার্থ।
শস্যদানা ও ফলাদির জাকাত ফরজের শর্তসমূহ-
জাকাত ফরজ হওয়ার সময় মালিকানাভুক্ত হতে হবে। অনুরুপ নিসাব পরিমাণ হতে হবে।
নিসাব হচ্ছে ৫ ‘ওয়াসাক’ এক ওয়াসাক সমান ৬০ সা’আ। তাহলে ৫ * ৬০= ৩০০ সা’আ।
এক সা’আ উত্তম গমের মাপ হয় প্রায় ২.৪০ কেজি। তাহলে ৩০০ * ২.৪০=৬১২ কেজি নিসাব।

একই প্রকারে ফল-ফলাদি হলে যেমন খেজুর এক বছরের সমস্ত ফল নিসাব পূরণের জন্য একত্র করতে হবে।

হাদিসে এসেছে-
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘পাঁচ আওয়াকের কমে জাকাত নেই। পাঁচটি উটের কমে জাকাত নেই। পাঁচ ওয়াসাকের কমে জাকাত ফরজ নেই।’ (বুখারি ও মুসলিম)।

১. উশর একদশমাংশ (১০% ) : ইহা বিনা খরচে উৎাদিত হলে যেমন : বৃষ্টির পানি বা ঝর্ণার পানি দ্বারা।

২. অর্ধেক উশর একবিশমাংশ (৫%) : ইহা সেচ দ্বারা উৎপাদিত হলে। যেমন- কুপের বা গভীর নলকূপ কিংবা পুকুর বা নদীর পানি মেশিন ইত্যাদি দ্বারা সেচ দিয়ে উৎপাদিত ফসল বা ফল।

হাদিসে এসেছে- 
রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যা বৃষ্টি ও ঝর্ণার পানি দ্বারা সেচ হয় বা বৃষ্টির পানিতে সিক্ত শষ্যক্ষেত্র তার জাকাত একদশমাংশ (১০%) ; আর যা সেচ দ্বারা পানি দেয়া হয় তার জাকাত একবিশমাংশ (৫%)। (বুখারি)

৩. তিনদশমাংশ (৭.৫০%) : ইহা সেচ ও বৃষ্টি উভয় পানি দ্বারা হলে। অর্থাৎ একবার সেচেরে পানি দ্বারা আর একবার বৃষ্টির পানি দ্বারা হলে তিনদশমাংশ হারে জাকাত দিতে হবে।

জাকাত ফরজের সময় :
-- শস্যদানা ও ফল-ফলাদির দানা যখন শক্ত হবে ও ফল পেকে যাবে তখন জাকাত ফরজ হবে। ফল পাকা মানে হলো- যখন লাল বা হলুদ হয় যায়। সুতরাং বিক্রেতা যদি এর পরে বিক্রি করে তাহলে জাকাত বিক্রেতার উপর ফরজ; ক্রেতার উপর নয়।
-- যদি মালিকের অবহেলা ও ত্রুটি ছাড়াই ফসল নষ্ট হয়ে যায় তবে তার ফরজ জাকাত বাদ হয়ে যাবে।
-- সকল প্রকার সবজি অর্থাৎ যে সকল সবজি ফল-ফলাদি গুদামজাত করা যায় না তার উপর কোনো জাকাত নাই। কিন্তু যদি উহা ব্যবসা সামগ্রী হয়ি এবং তার বিক্রি মূল্যে বছর অতিক্রম ও নিসবা পরিমাণ হয় তবে (২.৫০%) শতকরা আড়াই ভাগ ফরজ জাকাত আদয় করতে হবে।

৪. ব্যবসা সামগ্রী :
কেনা-বেচার জন্য প্রস্তুতকৃত সামগ্রীকে “উরুযুত্তিজারা” বলা হয়। যেমন- স্থাবর সম্পত্তি, পশু, খাদ্য, পানীয় ও মেশিনপত্র ইত্যাদি।
ব্যবসা সামগ্রীর জাকাতের বিধান-

ব্যবসা সামগ্রী যখন নিসাবে পৌঁছবে ও তার প্রতি এক বছর অতিক্রম হবে তখন তার উপর জাকাত ফরজ হবে। বছর পূর্ণ হলে স্বর্ণের বা রূপার যে নিসাব জাকাতের হকদারদের জন্য বেশি উপকারী সে হিসাবে সমস্ত বিক্রয় মূল্য অথবা ব্যবসা সামগ্রী থেকে ২.৫০% আড়াই ভাগ জাকাত নির্ধারণ করতে হবে।

আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদেরকে উপরোক্ত নিয়মে জাকাত দেয়ার তাওফিক দান করুন। আমীন।

জাগো নিউজ ২৪ ডটকমের সঙ্গে থাকুন। রমজান সম্পর্কিত সুন্দর সুন্দর ইসলামী আলোচনা পড়ুন। কুরআন-হাদীস মোতাবেক আমলী জিন্দেগী যাপন করে রমজানের রহমত, বরকত ও মাগফেরাত অর্জন করুন। আমীন, ছুম্মা আমীন

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
যখন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতো এবং ঝড়ো বাতাস বইত; তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) যা বলতেনবিস্তারিত জানুন যখন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতো এবং ঝড়ো বাতাস বইত; তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) কি বলতেন
না দেখেই বিয়ে: অতঃপর বাসরঘরে যা দেখলেন যুবক!বিস্তারিত জানুন না দেখেই বিয়ে: অতঃপর বাসরঘরে যা দেখলেন যুবক!
আল্লাহ তা’য়ালা মদকে তিনটি পর্যায়ে হারাম ঘোষনা করেনবিস্তারিত জেনে নিন আল্লাহ তা’য়ালা মদকে তিনটি পর্যায়ে হারাম ঘোষনা করেন
জাকাতের অর্থ দেয়া যাবে যাদেরজাকাতের অর্থ দেয়া যাবে যাদের সম্পর্কে
সকাল-সন্ধ্যায় যে দোয়া পড়তেন প্রিয়নবিসকাল-সন্ধ্যায় যে দোয়া পড়তেন প্রিয়নবি সম্পর্কে
রমজানের অন্যতম শিক্ষা ‘জামাআতে নামাজ আদায়’রমজানের অন্যতম শিক্ষা ‘জামাআতে নামাজ আদায়’ সম্পর্কে
জুমআর নামাজ তরক করা মারাত্মক গোনাহজুমআর নামাজ তরক করা মারাত্মক গোনাহ সম্পর্কে
রমজানের পর শাওয়ালের ৬ রোজার প্রয়োজনীয়তারমজানের পর শাওয়ালের ৬ রোজার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে
লাইলাতুল কদর : যেভাবে কাটাবেন আজকের রাতলাইলাতুল কদর : যেভাবে কাটাবেন আজকের রাত সম্পর্কে
রমজানের শেষ দিনগুলোর বিশেষ আমলরমজানের শেষ দিনগুলোর বিশেষ আমল সম্পর্কে
আরও ৬৪৯ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি