পূর্ববর্তী লেখা    পরবর্তী লেখা
পুরো লিস্ট দেখুন

ঈমানের দৃঢ়তা

খলীফা হযরত ওমর (রাঃ) এর খেলাফতকাল। তিনি ১৯ হিজরী সনে রোমানদের বিরুদ্ধে একটি বাহিনী পাঠালেন। সেই বাহিনীতে ছিলেন সাহাবী হযরত আব্দুল্লাহ ইববে হুজাফাহ আস সাহমী (রাঃ)। রোমান সম্রাট প্রায়ই রাসূল (সঃ) এর সাহাবীদের ঈমান ও বীরত্বের কথা শুনতেন। তাই তিনি নির্দেশ দিয়েছিলেন কোন মুসলিম সৈনিক জীবিত অবস্থায় বন্দী হলে যেন তার কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আল্লাহর ইচ্ছায় হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) কে রোমানরা বন্দী করে এবং সম্রাটের সামনে উপস্থিত করে।

রোমান সম্রাট হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) কে বললেন, “আমি প্রস্তাব করছি তুমি খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ কর। যদি তা কর, তাহলে তোমাকে মুক্তি দেব এবং তোমাকে সম্মানিত করবো।”

বন্দী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) খুব দৃঢ়তার সাথে বললেন, “আফসোস! যেদিকে আপনি আহবান জানাচ্ছেন তার থেকে হাজার বার মৃত্যু আমার অধিক প্রিয়।”

তখন রোমান সম্রাট বললেন, “আমি মনে করি তুমি একজন বুদ্ধিমান লোক। আমার প্রস্তাব মেনে নিলে আমি তোমাকে আমার ক্ষমতার অংশীদার বানাবো, আমার কন্যা তোমার হাতে সমর্পণ করবো এবং আমার এ সাম্রাজ্য তোমাকে ভাগ করে দেব।”

বেড়ী পরিহিত বন্দী হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) মৃদু হেসে বললেন, “আল্লাহর কসম! আপনার গোটা সাম্রাজ্য এবং সেই সাথে আরবদের অধিকারে যা কিছু আছে সবই যদি আমাকে দেওয়া হয়, আর বিনিময়ে আমাকে বলা হয় এক পলকের জন্য মুহাম্মদের (সঃ) দ্বীন আমি পরিত্যাগ করি, আমি তা করবো না।”

রোমান সম্রাট বললেন, “তাহলে আমি তোমাকে হত্যা করবো।”

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) দৃঢ়তার সাথে বললেন, “আপনার যা খুশী করতে পারেন।”

এরপর হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) কে শূলকাষ্ঠে হাত পা বেঁধে ঝুলিয়ে খ্রিষ্টধর্ম গ্রহণ করতে বলা হল। এতে রাজী না হওয়ায় বিশাল এক কড়াই এনে তাতে তেল ফুটানো হল। টগবগে সেই উত্তপ্ত তেলে ফেলা হল একজন মুসলিম বন্দীকে। ফেলার সাথে সাথে দেহের গোশত ছিন্ন ভিন্ন হয়ে হাড় পৃথক হয়ে গেল।

সেটা দেখিয়ে এবার হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) কে আবারও খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণের আহবান জানানো হল। এবারও তিনি দৃঢ়ভাবে তা প্রত্যাখ্যান করেন। সম্রাটের নির্দেশে তাকে উত্তপ্ত কড়াইয়ের নিকট আনা হয়। এতে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) এর চোখে পানি চলে আসে।

এতে তার মন পরিবর্তন হয়েছে মনে করে সম্রাট তাকে আবারও খ্রিষ্টধর্ম গ্রহণ করতে বললেন। কিন্তু তিনি তা আবারও প্রত্যাখ্যান করেন। তাহলে কাঁদছ কেন জিজ্ঞেস করলে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে হুজাফাহ (রাঃ) বলেন, “আমি একথা চিন্তা করে কাঁদছি যে, এখনই আমাকে এই কড়াইয়ের মধ্যে নিক্ষেপ করা হবে এবং আমি শেষ হয়ে যাব। অথচ আমার বাসনা, আমার দেহের পশমের সমসংখ্যক জীবন যদি আমার হতো এবং সবগুলিই আল্লাহর রাস্তায় এই কড়াইয়ের মধ্যে বিলিয়ে দিতে পারতাম।” সত্যিই আল্লাহর রাসূল (সঃ) এর সাহাবীদের ঈমান ছিল পর্বতের মতো অটল। আল্লাহু আকবার!

 

মহান আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে রাসূল (সঃ) এর সাহাবীদের মতো সুদৃঢ় ঈমান দান করুন। আমীন।

 

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
যখন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতো এবং ঝড়ো বাতাস বইত; তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) যা বলতেনবিস্তারিত জানুন যখন আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতো এবং ঝড়ো বাতাস বইত; তখন রাসুলুল্লাহ (সা.) কি বলতেন
না দেখেই বিয়ে: অতঃপর বাসরঘরে যা দেখলেন যুবক!বিস্তারিত জানুন না দেখেই বিয়ে: অতঃপর বাসরঘরে যা দেখলেন যুবক!
আল্লাহ তা’য়ালা মদকে তিনটি পর্যায়ে হারাম ঘোষনা করেনবিস্তারিত জেনে নিন আল্লাহ তা’য়ালা মদকে তিনটি পর্যায়ে হারাম ঘোষনা করেন
জাকাতের অর্থ দেয়া যাবে যাদেরজাকাতের অর্থ দেয়া যাবে যাদের সম্পর্কে
সকাল-সন্ধ্যায় যে দোয়া পড়তেন প্রিয়নবিসকাল-সন্ধ্যায় যে দোয়া পড়তেন প্রিয়নবি সম্পর্কে
রমজানের অন্যতম শিক্ষা ‘জামাআতে নামাজ আদায়’রমজানের অন্যতম শিক্ষা ‘জামাআতে নামাজ আদায়’ সম্পর্কে
জুমআর নামাজ তরক করা মারাত্মক গোনাহজুমআর নামাজ তরক করা মারাত্মক গোনাহ সম্পর্কে
রমজানের পর শাওয়ালের ৬ রোজার প্রয়োজনীয়তারমজানের পর শাওয়ালের ৬ রোজার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে
লাইলাতুল কদর : যেভাবে কাটাবেন আজকের রাতলাইলাতুল কদর : যেভাবে কাটাবেন আজকের রাত সম্পর্কে
রমজানের শেষ দিনগুলোর বিশেষ আমলরমজানের শেষ দিনগুলোর বিশেষ আমল সম্পর্কে
আরও ৬৪৯ টি লেখা দেখতে ক্লিক করুন
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি