পূর্ববর্তী লেখা  
পুরো লিস্ট দেখুন

নটিক্যাল সায়েন্স এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং

বাংলাদেশে মেরিন একাডেমি যাত্রা শুরু করে ১৯৬২ সালে। চট্রগ্রামে প্রায় ১০০ একর জমিতে এর যাত্রা শুরু। বাণিজ্যিক জাহাজের কর্মকর্তা বা প্রকৌশলী হওয়ার স্বপ্ন পূরণে এই প্রতিষ্ঠান বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এই প্রতিষ্ঠান ২০০০ সালে ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশনের অন্তর্ভুক্ত হয়।

 

পঠিত বিষয়

এখানে মোট দুটি বিষয়ে অধ্যয়ন করানো হয়, যথা- নটিক্যাল সায়েন্স ও নৌ প্রকৌশল (মেরিন ইঞ্জিনয়ারিং)। উভয় বিষয়ে এখানে স্নাতক কোর্স করানো হয়।

 

ভর্তি যোগ্যতা

ক) আগ্রহী প্রার্থীদেরকে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে বিজ্ঞান বিভাগে পড়াশোনা করতে হয়।

খ) মাধ্যামিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় আলাদাভাবে ন্যূনতম জিপিএ ২.৫ থাকতে হবে।

গ) বয়স অনূর্ধ্ব ২১ বছর হতে হবে।

ঘ) প্রার্থীকে অবশ্যই সাঁতার জানতে হবে।

 

ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া

টেলিটক মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হয়। আবেদন ফি ৭০০ টাকা।

 

নির্বাচন প্রক্রিয়া

মোট পাঁচ ধাপ সম্পন্ন হওয়ার পর একজন প্রার্থীকে মেরিন একাডেমিতে ভর্তি যোগ্য হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।

ধাপ-

ইংরেজি, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন বিজ্ঞান ও সাধারন জ্ঞান এই বিষয়গুলোর উপর প্রার্থীকে ৩০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়।

ধাপ-

প্রার্থীকে শারীরিক যোগ্যতা ও সাঁতার পরীক্ষায় অবতীর্ন হতে হয়।

ধাপ-

প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে হয়।

ধাপ-

প্রার্থীর চোখের বিশেষ পরীক্ষা করা হয়।

ধাপ-

প্রার্থীর চূড়ান্ত স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়।

বস্তুতঃ প্রথম ধাপে উত্তীর্ণ হওয়ার মধ্য দিয়ে প্রার্থীর নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু। প্রতিটি ধাপেই প্রার্থীকে উত্তীর্ণ হতে হয়।

 

কোর্স

একাডেমিতে দুটি বিষয়ে মোট ৩ বছর অধ্যয়ন করানো হয়। এর মধ্যে প্রথম দুই বছর তত্ত্বীয় অধ্যয়ন এবং শেষের এক বছর সমুদ্রে ব্যবহারিক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। প্রশিক্ষণের মধ্যে রয়েছে নটিক্যাল সায়েন্স, নেভিগেশন ওয়াচ ব্যবস্থাপনা, যাত্রাপথ প্রনয়ণ, রাডার ও হাইটেক ব্যবহার, মেরিটাইম, স্যাটেলাইটের সাহায্যে যোগাযোগ, মালামাল ও ক্রু ব্যবস্থাপনা, লাইফবোট ব্যবহার, চিকিৎসা ব্যবস্থা, ব্যবসায় আইন, জাহাজের ইঞ্জিন ব্যবস্থাপনা, ইলেকট্রনিক প্রকৌশল, বিদ্যুৎ প্রকৌশল, কন্ট্রোল।

 

পেশার চাহিদা

পেশা হিসেবে আন্তর্জাতিকভাবে এর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। দেশে ও বিদেশে এই পেশার রয়েছে প্রচুর সুযোগ। পোর্ট ক্যাপ্টেন, প্রশিক্ষক, জাহাজের প্রকৌশলী, জাহাজের অফিসার। এরকম অনেক পদেই এ পেশার সুযোগ রয়েছে। সেই সাথে রয়েছে প্রচুর অর্থের নিশ্চয়তা।

 
আরো পড়ুন
 

নামসংক্ষিপ্ত বিবরণ
এ্যাডমায়ার মেরিন সলিউশনসতেজগাঁও, গ্রীন রোড
শাহ মেরিন এন্ড বিজনেস ইনস্টিটিউটমোহাম্মদপুর, শ্যামলী
ওয়েস্ট কোস্ট ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট এন্ড টেকনোলজীঅত্র প্রতিষ্ঠানে ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স বিষয়ে বিএসসিতে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়
শ্যামলী আইডিয়াল পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটমোহাম্মদপুর, মোহাম্মদপুর
এমআইএসটিপল্লবী, সেকশন ১২
চারুকলা ইনস্টিটিউটশাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
নটিক্যাল সায়েন্স এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিংনৌ-পেশা উপযোগী গড়ে ওঠা
২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি