ঢাকায় থাকা

ঢাকা সিটি পরিচিতি:

ঢাকার ইতিহাস

ঢাকার নামকরণের সঠিক ইতিহাস নিয়ে ব্যাপক মতভেদ রয়েছে। কথিত আছে যে, সেন বংশের রাজা বল্লাল সেন বুড়িগঙ্গা নদীর তীরবর্তী এলাকায় ভ্রমণকালে সন্নিহিত জঙ্গলে হিন্দু দেবী দুর্গার একটি বিগ্রহ খুঁজে পান। দেবী দুর্গার প্রতি শ্রদ্ধাস্বরূপ রাজা বল্লাল সেন ঐ এলাকায় একটি মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। যেহেতু দেবীর বিগ্রহ ‘ঢাকা’ বা গুপ্ত অবস্থায় খুঁজে পাওযা গিয়েছিল, তাই রাজা মন্দিরের নাম রাখেন ঢাকেশ্বরী মন্দির। মন্দিরের নাম থেকেই কালক্রমে স্থানটির নাম ঢাকা হিসেবে গড়ে ওঠে।

ঢাকাই মসলিন

ঢাকার রিকশা, রিকশার ঢাকা

পুরো লিস্ট দেখুন

 

এলাকা পরিচিতি:

ঢাকার বিভিন্ন এলাকার আদ্যোপান্ত নিয়ে সাজানো হয়েছে এই বিভাগটি। ঢাকার কোন এলাকায় কিভাবে যেতে হয় বা ঐ এলাকা থেকে কিভাবে ঢাকার অন্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোয় যাওয়া যায় ইত্যাদি তথ্য পাওয়া যাবে এখানে। এলাকাভিত্তিক ব্যাংক, বিপণীবিতান, গুরুত্বপূর্ণ অফিস, স্কুল, কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয়, খেলার মাঠ, খাবারের দোকান ইত্যাদি তথ্যও থাকবে। এছাড়া আবাসন, হাসপাতাল, কাঁচাবাজার এবং পরিবহন সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য থাকছে এখানে। ঐ এলাকায় কোন দর্শনীয় স্থাপনা আছে কিনা, কিভাবে সেখানে যেতে হয় সব কিছুই গুছিয়ে উপস্থাপন করা হচ্ছে এখানে।

মগবাজার

নাটক সরণি

বংশাল

ওয়ারী

পুরো লিস্ট দেখুন

 

নাগরিক সেবা:

ঢাকায় বসবাসরত নাগরিকদের সেবা প্রদানের জন্য বেশকিছু সরকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসকল প্রতিষ্ঠানগুলো কী কী সেবা প্রদান করে, কীভাবে সেবা পাওয়া যায় সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে।

ঢাকা সিটির থানাগুলো

ঢাকা নগর ভবন (দক্ষিণ)

পুরো লিস্ট দেখুন

 

ডি.সি.সি. ওয়ার্ড পরিচিতি:

ঢাকা সিটি কর্পোরেশনকে ঢাকা দক্ষিণ ও ঢাকা উত্তর এই দুই ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। নব নির্ধারিত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ঢাকা দক্ষিণের অফিসটি পূর্বের ঢাকা সিটি কর্পোরেশন অফিসে (নগর ভবনে) অবস্থিত এবং ঢাকা উত্তরের অফিসটি (বনানী কমিউনিটি সেন্টার) গুলশানে অবস্থিত। ঢাকা সিটি কর্পোরেশন উত্তর ও দক্ষিণ এর ওয়ার্ডগুলোর তথ্য এখানে তুলে ধরা হয়েছে।

দক্ষিণ: ওয়ার্ড নম্বর -৩৫ (পুরোনো ৭১)

দক্ষিণ: ওয়ার্ড নম্বর -১৭ (পুরোনো ৫১)

পুরো লিস্ট দেখুন

 

রোড পরিচিতি:

বায়ান্ন বাজার তিপ্পান্ন গলির এই ঢাকা শহরে বিভিন্ন প্রয়োজনে বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন কাজ পড়ে যায়। পুরো ঢাকা শহরের সব এলাকার অবস্থান জানা কারো পক্ষেই সম্ভব নয়। এখানে আমরা ঢাকার রোডগুলোকে বর্ণানুক্রমিক এলাকাভিত্তিক তুলে ধরা হয়েছে।

পুরো লিস্ট দেখুন

 

প্রয়োজনীয় তথ্য:

ঢাকায় বসবাসরত মানুষের ঢাকা সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য প্রয়োজন হয়। যেমন - আপনি যে এলাকায় থাকেন সেই এলাকার পোস্ট কোড কত তা আপনি জানেন না। এ ধরনের বিভিন্ন তথ্য নিয়ে এই অংশটি সাজানো হয়েছে।

ঢাকা সিটির পোস্ট কোড সমূহ

ঢাকা সিটির নির্বাচনী আসন সমূহ

পুরো লিস্ট দেখুন

 

আবাসিক হোটেল:

এই অংশে ঢাকার বিভিন্ন স্থানে অবস্থিত আবাসিক হোটেলগুলোর মান অনুযায়ী বিভিন্ন ভাগে ভাগ করে তুলে ধরা হয়েছে। যেমন - তারকা হোটেল, গুলশান-বনানীর হোটেল, উত্তরা এলাকার হোটেল, পুরাতন ঢাকার হোটেল।

সোনারগাঁও হোটেল

রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেল

হোটেল গুলশান ইন

হোটেল ওয়াশিংটন লি:

হোটেল রেডিয়ান

গার্ডেন রেসিডেন্স

হোটেল ইসরাত টু স্টার

হোটেল ছায়ানীড় (আবাসিক)

পুরো লিস্ট দেখুন

 

ঢাকার ম্যাপ:

সম্পূর্ণ ঢাকার ম্যাপ থেকে ঢাকার নির্দিষ্ট একটি স্থানকে খুজে পাওয়া কষ্টকর। তাই এই অংশে ঢাকার থানাভিত্তিক ম্যাপগুলোকে উপস্থাপন করা হয়েছে। যেখান থেকে যে কেউ খুব সহজেই কাঙ্ক্ষিত এলাকার অবস্থান খুব সহজেই জানতে পারবেন।

গুলশান থানার ম্যাপ

ধানমন্ডি থানার ম্যাপ

উত্তরা থানার ম্যাপ

রমনা থানার ম্যাপ

পুরো লিস্ট দেখুন

 

রেষ্ট হাউজ:

বিদেশ থেকে আসা পর্যটক এবং ব্যবসায়ীদের মধ্যে যারা কিছুটা বেশি ব্যয় করার ক্ষমতা রাখেন, অতিরিক্ত সুযোগ সুবিধা চান এবং আরাম আয়েশে অভ্যস্ত তাদের কথা মাথায় রেখে ঢাকায় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবনের বাইরে কিছু বেসরকারী রেস্ট হাউজ তৈরি হয়েছে। মূলত রাজধানীর অভিজাত পাড়াগুলোতেই রেস্ট হাউজগুলোর অবস্থান।

এগুলোয় কেবল টিভি, ইন্টারনেট, সেক্রেটারিয়াল সার্ভিস ইত্যাদি দেয়া হয়। সেই সাথে অনেকগুলোয় রয়েছে সুইমিংপুল এবং ব্যায়ামাগারের সুবিধা। মানি এক্সচেঞ্জ সুবিধাও আছে প্রায় সবগুলো রেস্ট হাউজে। এয়ারপোর্ট থেকে রেস্ট হাউজ পর্যন্ত আসা যাওয়া এবং বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ানোর জন্য পরিবহন সুবিধাও পাওয়া যায় রেস্ট হাউজগুলো থেকে। এই অংশে ঢাকার রেষ্ট হাউজগুলোর বিভিন্ন তথ্য বর্ণনা করা হয়েছে।

ম্যারিনো গেস্ট হাউজ

লন্ডন গেষ্ট হাউজ

আম্বালা ইন

গোধূলী গেষ্ট হাউজ

পুরো লিস্ট দেখুন

 

মহিলা হোস্টেল:

শিক্ষা অর্জনের বা জীবিকার প্রয়োজনে নারীরা আসেন তিলোত্তমা এই ঢাকা মহানগরীতে। এই নগরে যাদের আত্বীয়-স্বজন রয়েছে। তাদের থাকার কোন সমস্যা নেই। তবে যাদের আত্বীয় স্বজন নেই তাদের জন্য বাসস্থান বেশ কার্যকর। এই কষ্ট দুর করতে বেসরকারী / ব্যাক্তি মালিকানায় ঢাকা শহরের ফার্মগেট, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, মগবাজার, উত্তরা, সিদ্ধশ্বরী এলাকায় কর্মজীবি মহিলা ও ছাত্রী হোস্টেল গড়ে উঠেছে। কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা, লেখাপড়ার সুষ্ঠ পরিবেশ, উন্নত খাবার এবং মানসম্মত থাকার ব্যবস্থা রয়েছে এই সব হোষ্টেলে। ঢাকার বিভিন্ন মহিলা হোস্টেলের তথ্য আলাদা আলাদাভাবে এই পেজটিতে বর্ণনা করা হয়েছে।

নীলক্ষেত কর্মজীবি মহিলা হোস্টেল

ড্যাব ছাত্রী হোষ্টেল

বেগম রোকেয়া কর্মজীবি মহিলা হোষ্টেল

শেলটেক জয় ছাত্রী হোস্টেল

পুরো লিস্ট দেখুন

 

মেস:

চাকরী বা পড়াশোনার সূত্রে অনেককেই ঢাকা শহরে থাকতে হয়। কিন্তু একা একজন লোক আলাদা একটি বাসা নিয়ে অনেকের পক্ষে থাকা সম্ভব হয় না বা সহজে বাসা পাওয়াও যায় না। তাই ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় বেশ কিছু মেস রয়েছে। ঢাকার সে সকল মেগুলোর বিভিন্ন তথ্য আলাদা আলাদাভাবে এই অংশে বর্ণনা করা হয়েছে।

রেডি এন্ড রোজ হোস্টেল

মিলেনিয়াম ছাত্রাবাস

ঢাকা প্রোটিন হাউজ ছাত্রাবাস

রংধনু ছাত্রাবাস

পুরো লিস্ট দেখুন

 

জমি ক্রয়:

এই অংশে ঢাকার বিভিন্ন রিয়েল এস্টেট, ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠানের তথ্য বর্ণনা করা হয়েছে। এছাড়া জমি-জমা সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্যও রয়েছে। যেমন - জমি রেজিষ্ট্রেশন, রাজউক প্লান পাস প্রভৃতি।

বসুন্ধরা লেকভিউ

আনন্দ হাউজিং লিমিটেড

বসুমতী আবাসিক প্রকল্প

সেঞ্চুরী কুয়াকাটা মডেল টাউন

জমি রেজিষ্ট্রেশন

রাজউক প্লান পাস

পুরো লিস্ট দেখুন

 

গৃহঋণ:

মাথা গোঁজার একটা ঠাঁই দরকার সবার। নিজের একটা বাড়ি না হলে সে ঠাঁই যেন ঠিক ঠাঁই বলে মনে হয় না। মধ্যবিত্তের প্রথম স্বপ্ন হচ্ছে নিজের একটা বাড়ি। বাড়ি করতে প্রচুর অর্থের প্রয়োজন হয়। পুরো টাকার ব্যবস্থা করা যাদের জন্য কঠিন তাদের জন্য রয়েছে গৃহঋণ সুবিধা। বিভিন্ন দেশী-বিদেশী ব্যাংক ছাড়াও অনেক আর্থিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা গৃহঋণ দেয়; এরকম প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইনান্স কর্পোরেশন, আইডিএলসি ফাইনান্স এবং ডিবিএইচের নামে উল্লেখযোগ্য। বিস্তারিত

 

নির্মাণ প্রতিষ্ঠান:

নিজস্ব এক টুকরো জমি বা একতলা বাড়ী ভেঙ্গে বহুতল ভবন নির্মাণ অনেকের লালিত স্বপ্ন। সময়মতো টাকার জোগানের অভাব, ব্যাংক ঋণের প্রতি অনীহা বা দীর্ঘ সূত্রতা কিংবা নিজে থেকে কাজ করায়ে নিতে যারা অপারগ তাদের জন্য রয়েছে আবাসিক বা বাণিজ্যিক বহুতল ভবন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। এই নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ইষ্ট ওয়েস্ট প্রপার্টিজ, কনকর্ড, ডোম ইনো, নাভানা প্রপার্টিজ, মিশন প্রপার্টিজ, শেলটেক, রুহামা প্রপার্টিজ এবং রুপায়ন অন্যতম। নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলো জমি নেওয়ার সময় জমির মালিকের সাথে একটি চুক্তিতে আবদ্ধ হয়ে থাকে। এই চুক্তি মোতাবেক উভয় পক্ষের আলোচনার ভিত্তিতে নগদ কিছু টাকা নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জমির মালিককে প্রদান করে থাকে। এছাড়া নির্মিত বহুতল ভবনের ফ্ল্যাটগুলি ৬০:৪০ অনুসারে বন্টন করার ব্যবস্থা থাকে এই চুক্তিতে।  ৬০% ফ্ল্যাট নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এবং ৪০% ফ্ল্যাট জমির মালিক পেয়ে থাকে। এছাড়া প্ল্যান পাশ করানোসহ যাবতীয় সকল কাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান করে থাকে। এগ্রিমেন্ট অনুসারে নির্দিষ্ট মেয়াদের মধ্যে নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জমির মালিকের নিকট ফ্ল্যাট হস্তান্তর করে থাকে। 

ডম ইনো বিল্ডার্স লিমিটেড

কনকর্ড

ট্রপিক্যাল হোমস লিমিটেড

বিশ্বাস বিল্ডার্স লিমিটেড

পুরো লিস্ট দেখুন

 

বিবিধ ঢাকায় থাকা:

শৌখিন মৎস্য শিকার

বাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থা

এসওএস চিলড্রেন ভিলেজ

মাচ্ মোর লিটিং সার্ভিস

পুরো লিস্ট দেখুন


২৫ বছরে ১৮ সন্তানের জননী!
সর্বপ্রথম পোর্টেবল দ্বীপ
বিদেশিনীর বাংলা প্রেম
জুতার গাছ!
exam
নির্বাচিত প্রতিবেদন
exam
সুমাইয়া শিমু
পিয়া বিপাশা
প্রিয়াংকা অগ্নিলা ইকবাল
রোবেনা রেজা জুঁই
বাংলা ফন্ট না দেখা গেলে মোবাইলে দেখতে চাইলে
how-to-lose-your-belly-fat
guide-to-lose-weight
hair-loss-and-treatment
how-to-flatten-stomach
fat-burning-foods-and-workouts
 
সেলিব্রেটি